• মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন

মির্জাপুরে বৃক্ষমেলা

  মির্জাপুর প্রতিনিধি, টাঙ্গাইল

১৮ জুলাই ২০১৯, ১৮:৩৭
বৃক্ষমেলা
বৃক্ষমেলা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

প্রতি বছরের মতো এবারও সারা দেশে শুরু হয়েছে বৃক্ষমেলা। বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন ধরনের কাঠ গাছের পাশাপাশি ঔষধি গাছও বিক্রি হচ্ছে প্রচুর পরিমাণে। 

ঔষধি গাছ কেনা সম্পর্কে মির্জাপুর সরকারি কলেজের সদ্য সাবেক অধ্যক্ষ সালাউদ্দিন আহাম্মেদ বলেন, নিম, অর্জুন, বসাক, তুলসী গাছ আমাদের উপকারী ঔষধি গাছ। একদিকে যেমন আমাদের পরিবেশ রক্ষা করে অন্যদিকে আমাদের নাইট্রোজেন চক্রে কার্বন-ডাই-অক্সাইডের সামঞ্জস্যতা রক্ষা করে স্বাস্থ্য রক্ষায় বিনা খরচে জরুরি নিরাময় পাওয়া যায়।

বৃক্ষমেলায় যেসব গাছ বিত্রির জন্য আসে তার প্রায়ই মূল শিকড় কাটা থাকে। ফলে গাছগুলো স্বাভাবিকভাবে বেড়ে উঠতে পারে না। নার্সারি নীতি মালায় গাছের মূল শিকড় রেখে গাছ সরবরাহ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। যত্রতত্র মেহগনি, আকাশমণি, চাম্বল, ইউক্লিপটাস গাছ না লাগিয়ে দেশীয় গাছ আম, জাম, কাঠাল, লিচু, জলপাই, তাল ইত্যাদি রোপণ করলে ফলের পাশাপাশি কাঠেরও চাহিদা মিটবে এবং মেহগনি, আকাশমণি, চাম্বল গাছের কাঠ ৮শ থেকে ১ হাজার ৪শ টাকা সেফটি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর বাজারে কাঠাল, জাম, তাল গাছের কাঠ পাওয়াই কষ্টকর। যাও পাওয়া যাচ্ছে তাও আবার দুই হাজার থেকে চার হাজার টাকা সেফটি দরে কিনতে হচ্ছে। মেলায় গাছ কিনতে এসে কথাগুলো বললেন মির্জাপুর পৌর সদরের বৃক্ষ প্রেমিক মির্জাপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহ বজলুর রশিদ বিজু। 

তিনি আরও বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃক্ষমেলা এবং ইন্ডিয়া থেকে বিভিন্ন ধরনের ফলের চারা সংগ্রহ করে নিজ বাসার ছাঁদে টবের মধ্যে লাগিয়েছে। ইতোমধ্যে সে গাছগুলোতে ফল ও ধরেছে প্রচুর। 

মির্জাপুর উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, প্রতি বছর এখানে মেলা হচ্ছে, এ মেলায় শুধু গাছ বিক্রি নয় বৃক্ষের ওপর অনেক কলা কৌশল শিক্ষা দেওয়া হয়। মেলা চলাকালীন দিন গুলিতে সারা দিনই বৃক্ষের ওপর নানা তথ্য বিষয়ক আলোচনা করা হয়। এর মধ্যমে সাধারণ গাছ ক্রেতাসহ কৃষকরাও উপকৃত হচ্ছেন। তাছাড়া প্রতি বছর এ ধরনের মেলা হওয়ার কারণে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার মানুষ গাছ লাগাতে উৎসাহ পাচ্ছেন।

মির্জাপুর কৃষি বিভাগের উদ্যোগে উপজেলা কৃষি অফিসের সামনে তিন দিনব্যাপী এ মেলা হয়। এ বছর ১৬ জুলাই থেকে ১৮ জুলাই পর্যন্ত এ বৃক্ষমেলা চলে। 

মেলার উদ্বোধন করেন আলহাজ মো. একাব্বর হোসেন এমপি এবং ১৮ জুলাই মেলার সমাপনী টানেন মির্জাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান মীর এনায়েত হোসেন মন্টু। 

উদ্বোধনী এবং সমাপনী দিনে মেলার সভাপতিত্ব করেন মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল মালেক।  

ওডি/এএসএল

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড