• বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বায়েজিদ বোস্তামীর তিনটি কবিতা

তুমি তোমাকেই কিনে নিয়ে যাও

  বায়েজিদ বোস্তামী

০৬ নভেম্বর ২০১৯, ১৩:৪৪
কবিতা
ছবি : প্রতীকী

বাদামি বারুদ

সফেদ আর উষ্ণ বরফের 
পাহাড়ে
শুয়ে আছে
এক বিন্দু বাদামি বারুদ
ছুঁলেই
মুহূর্তমধ্যে 
ঘটে যায়
অনিবার্য বিস্ফোরণ!


হাততালির বদলে

সংসারী লোক মাত্রই জানেন, জাদুকরের মুদ্রার খেলা
হতে পারে শিল্পই বড়ো জোর। এক্ষেত্রে হাত সাফাইয়ের চাতুরির কথা চেপে যান তাঁরা নেহায়েত শিল্পের প্রতি শ্রদ্ধাবশত। জাদুকরের মুদ্রা কিনতে পারে না পূর্ণ ননীযুক্ত গুঁড়ো দুধ। (এই অকালে কালো গাইয়ের দুধ আর পাওয়া যাচ্ছে কই!)

তাই বলে সংসারী লোক মন্দ লোক নয় মোটে! শিল্পের সমজদার তাঁরাও। শিল্পীর মর্যাদা দিতে জানেন, প্রতিটি মজমা শেষে প্রচুর হাততালিই প্রমাণ!

প্রেমিকও জাদুকর, সোনা! মোহন খেলাশেষে, নিজ গন্তব্যে চলে যাবার আগে, তুমি তার ঠোঁটে দিয়ো কিছু চুম্বন-অঙ্গার, হাততালির বদলে।


আদতে

তোমার কপোতী বুকের উষ্ণতা কেনে ঝকঝকে ক্রেডিটকার্ড। তাতে খোদিত রুপোলি বর্ণ ব্রেইল 
ছুঁয়ে খোঁজো প্রেমের শরীর। মুদ্রার ঝনঝন নুপূর নিক্কনকে ছাপিয়ে যায়। কি বিচ্ছিরি কাণ্ড!

কাঁটাবনের খাঁচার পাখিদের নীলাভ ডানা, অ্যাকুরিয়ামের মাছেদের সোনালি পুচ্ছ তোমাকে মুগ্ধ করে। ক্রেডিট কার্ড তোমাকে সচ্ছলতা দিয়েছে। তুমি পাখি কেনো, মাছ কেনো। পাখিদের ব্যালকনিতে রাখো, মাছেদের বসার ঘরে।
 
আদতে তুমি তোমাকেই কিনে নিয়ে যাও। খাঁচার পাখি হয়ে, অ্যাকুরিয়ামের মাছ হয়ে অপরের ঘর সাজাও!

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড