• বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ১ কার্তিক ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বাংলাদেশ এই মাসাকাদজাকে ভুলবে কীভাবে!

  ক্রীড়া ডেস্ক

২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:১৭
হ্যামিল্টন মাসাকাদজা
হ্যামিল্টন মাসাকাদজা (ছবি : সংগৃহীত)

সাদা-কালো টিভির যুগ অর্থাৎ- ২০০০ সালের পরের কথা বলছি- ২০০৩/২০০৪ সালের কথা; প্রথমবারের মতো টিভিতে (বিটিভি) বাংলাদেশের খেলা দেখেছি; মানে খেলাটা মোটামুটি বুঝতে শিখেছি তখন; সাদা-কালো টিভির সামনে একটা রঙিন গ্লাস লাগালে টিভিটা মনে হতো কালারফুল। বাংলাদেশের বিপক্ষে জিম্বাবুয়ের টেস্ট ম্যাচ ছিল সেদিন। হুট করেই টিভির সামনে এসে দাঁড়াতেই কানে কয়েকটা নাম শোনা গেল- মানে ধারাভাষ্যকার বলছেন, তাতেন্দা তাইবু-ডগলাস হোন্ডো-এলটন চিগুম্বুরা- হেনরি ওলোঙ্গা-ব্রেন্ডন টেইলর ও হ্যামিল্টন মাসাকাদজার কথা।  

স্পষ্ট করে এখনো মনে আছে, রেডিওতে ধারাভাষ্যকার বলছিলেন, প্রস্তুত অধিনায়ক হাবিবুর বাশার সুমন বল নিয়ে আসছেন ডগলাস হোন্ডো; একদম কালো বর্ণের চুলগুলো জটলার মতো একজন বিধ্বংসী বলার! আবার ব্যাটিংয়ে শুনছিলাম মিড উইকেট প্রান্ত থেকে বল নিয়ে আসছেন তাপস বৈশ্য আর ওদিকে মোকাবিলায় প্রস্তুত হ্যামিল্টন মাসাকাদজা! 

সেই থেকেই শুরু! তখন থেকেই শুনে আসছি জিম্বাবুয়ে আর হ্যামিল্টন মাসাকাদজা যেন সমার্থক শব্দ। মাসাকাদজা ছাড়া আবার জিম্বাবুয়ে দল হয় নাকি! সেই ২০০১ সাল থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছেন। ১৮ বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলে গেছেন। কত চড়াই উতরাইয়ের সাক্ষী তিনি। সেই মাসাকাদজা আজ শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) সব স্মৃতির পাতায় জমা করে ফেলবেন। মানে আগামীকাল থেকে তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটমুক্ত একজন হয়ে উঠবেন! রঙিন পোশাকটি তুলে রাখবেন সারা জীবনের জন্য!

বাংলাদেশের যার খেলা নিয়ে সামান্য আগ্রহ নেই সেও কিন্তু হ্যামিল্টন মাসাকাদজার শুনেছেন। বাংলাদেশের দর্শকদের কাছে মাসাকাদজা তো ভিনদেশি স্বজন! লম্বা আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে মাসাকাদজা সবচেয়ে বেশিবার সফর করেছেন বাংলাদেশে, সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলেছেন বাংলাদেশের বিপক্ষে।  আন্তর্জাতিক সিরিজ কিংবা ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলতে বহুবার এসেছেন বাংলাদেশে। এ দেশের মাঠ, প্লেয়ার, কর্মকর্তা, কিউরেটর, গ্রাউন্ড স্টাফ, জল, বাতাস, আবহাওয়া সবই তার চেনাজানা। তাইতো বাংলাদেশকে মাসাকাদজা বলে থাকেন নিজের দ্বিতীয় বাড়ি।

স্কুল জীবনে মাঝে মাঝে 'গরীবের অ্যাশেজ' দেখতাম; মানে একটা সময় বাংলাদেশ আর জিম্বাবুয়ের টেস্ট মানেই তো ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার 'অ্যাশেজ' এর মতোই; টানটান একটা উত্তেজনা কাজ করত সবার মধ্যে; মানে  মাসাকাদজা নামলেই যেন একটা বাড়তি টেনশন কাজ করত; এই মাসাকাদজার অবসরের কথায় সত্যিই মনটা খারাপ লেগেছে, অনেক পুরাতন স্মৃতি মনে পড়ে যায়। বাংলাদেশের কত পরাজয়ের কারণ ছিলেন এই মাসাকাদজা!

জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক মাসাকাদজা প্রথম আন্তর্জাতিক টি-টুয়েন্টি ম্যাচটি খেলেছিলেন বাংলাদেশের মাটিতে। শেষ টি-টুয়েন্টি ম্যাচটিও খেলবেন বাংলাদেশের মাটিতেই। আর এই ম্যাচটিই হতে যাচ্ছে তার ক্যারিয়ারের শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচও। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় যে আফগানিস্তানের বিপক্ষে জিম্বাবুয়ের খেলতে নামবে এই ম্যাচটি মাসাকাদজার শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ হতে চলেছে। 

১৮ বছরের ক্যারিয়ারে ৩৬ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডার ৩৮টি টেস্টের ৭৬ ইনিংসে ৫ শতকসহ ৩০.০৪ গড়ে ২২২৩ রান ও ২০৯টি ওয়ানডেতে ৫ শতকসহ ২৭.৭৩ গড়ে ৫৬৫৮ রান এবং ৬৫টি টি২০তে ২৫.২৫ গড়ে ১৫৯১ রান করেন।

আইসিসির নিষেধাজ্ঞা মাথায় নিয়ে বড় আশা নিয়েই বাংলাদেশ সফরে এসেছিলেন মাসাকাদজা। কিন্তু ত্রিদেশীয় সিরিজ থেকে এক ম্যাচ আগেই বিদায় নিশ্চিত হয়েছে জিম্বাবুয়ের। বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের ফাইনালে খেলা নিশ্চিত হয়ে গেছে। এখন আজ যদি আফগানদের হারানো যায় তাহলে মাসাকাদজার স্বস্তি মিলবে। মাসাকাদজার বিদায়ও রাঙিয়ে তুলবে এই জয়। তা কী হবে?

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বড় ক্রিকেটারদের সাথে মাসাকাদজার তুলনা হয়তো খুব বড় করে করা না হলেও বাংলাদেশি ক্রিকেটপ্রেমীরা অবশ্যই এই মানুষটাকে মনে রাখবে, কারণ এই মাসাকাদজা, টেইলর, চিগুম্বুরা, ওলোঙ্গা-তাইবুদের দেখেই তো অনেকে বড় হয়েছে, এদের সাথে জিতে জিতেই তো বাংলাদেশ ধীরে-ধীরে জিততে শিখেছে ওয়ানডে ক্রিকেটে। 

বিদায়ী ম্যাচে বিসিবি মাসাকাদজাকে ক্রেস্ট উপহার দেবে। 

ওডি/এএপি 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড