• মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২১, ৫ মাঘ ১৪২৭  |   ২১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

‘ইসরায়েলই ফখরিজাদেহকে হত্যা করেছে, পশ্চিমারা চুপ কেন?’

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৪:৪৫
‘ইসরায়েলই ফখরিজাদেহকে হত্যা করেছে, পশ্চিমারা চুপ কেন?’
গুপ্তহত্যার শিকার ইরানি বিজ্ঞানী মহসেন ফখরিজাদেহ (ছবি : ইরনা)

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী মহসেন ফখরিজাদেহকে হত্যার জন্য সরাসরি ইহুদি রাষ্ট্র ইসরায়েলকে দায়ী করেছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ। তিনি প্রশ্ন তুলেছেন, এরপরও পশ্চিমা বিশ্ব চুপ কেন?

বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) রোমে একটি আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক সভায় তিনি এ প্রশ্ন তোলেন। খবর ডয়েচে ভেলের।

ইরানে সন্ত্রাসবাদের জন্য ইসরায়েলকে অভিযুক্ত করে জাভেদ জারিফ বলেন, একমাত্র ইসরায়েল বর্তমানে ইরানে সন্ত্রাস চালাচ্ছে। পরমাণু বিজ্ঞানীকে হত্যার ঘটনার পেছনেও তারাই রয়েছে। অথচ পৃথিবীর সব দেশ চুপ। ইসরায়েলের বিরুদ্ধে পশ্চিমা দেশগুলো কখনও কোনো কথা বলে না।

পশ্চিমা বিশ্ব ও মধ্যপ্রাচ্যের ভূমিকার সমালোচনা করে ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ফিলিস্তিন ভূখণ্ডে ইসরায়েল বিনা বাধায় একের পর এক সন্ত্রাসবাদী কাজকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিম দেশগুলোকে স্থির করতে হবে ইসরায়েলের সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে তারা ইরানের পাশে থাকবে কিনা।

আরও পড়ুন : ইরানে ৩০ শতাংশ গ্রাহকের বিদ্যুৎ বিল মওকুফ!

ইসরায়েলের সঙ্গে আমিরাত ও বাহরাইনের চুক্তির নিন্দা জানিয়ে জারিফ বলেন, সম্প্রতি আরব আমিরাত এবং বাহরাইন ইহুদি রাষ্ট্রটির সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্কে আবদ্ধ হয়েছে। এ বিষয়ে মুসলিম বিশ্বকে সতর্ক থাকতে হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার নিন্দা জানিয়ে জারিফ বলেন, যুক্তরাষ্ট্র তাদের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা না তুললে তারা কোনোভাবেই মাথা নত করবে না।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের পর জো বাইডেন ক্ষমতায় এলে ইরান নীতি বদলাতে পারেন বলে মনে করছেন বহু বিশেষজ্ঞ। এ বিষয়ে জাভেদ জারিফের ভাষ্য, যুক্তরাষ্ট্রের কোনো কথা শুনতেই তারা রাজি নয়। একমাত্র যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেই তাদের সঙ্গে সংলাপ হতে পারে।

আরও পড়ুন : যুক্তরাষ্ট্রকে বিনাশর্তে পরমাণু চুক্তিতে ফিরতে বলছে ইরান

উল্লেখ্য, ইরানের উদ্ভাবন বিষয়ক সংস্থার চেয়ারম্যান মহসেন ফখরিজাদেহ শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় তেহরানে এক সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হন।

বিবিসি নিউজ জানিয়েছে, দামাভান্দ এলাকার আবজার্দে ইরানি এ পরমাণু বিজ্ঞানীর গাড়ি লক্ষ্য করে সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের হামলার পর আহত মহসেনকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়েও বাঁচানো যায়নি।

২০১০ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে ইরানের চার পরমাণু বিজ্ঞানী হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। ইরান শুরু থেকেই এসব হত্যাকাণ্ডে ইসরায়েলকে দায়ী করে আসছে।

আরও পড়ুন : আফগানিস্তানকে সতর্ক থাকতে বলছে ইরান

পরমাণু বিজ্ঞানীর হত্যার পর ইরানের সংসদ একটি আইন তৈরি করেছে। যাতে দেশে ইউরেনিয়াম মজুদ বহু গুণ বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে।

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড