• বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০, ২৫ আষাঢ় ১৪২৭  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

অনলাইন শিক্ষার সুযোগ পাচ্ছে না মফস্বলের শিক্ষার্থীরা

  শিক্ষা ডেস্ক

১২ মে ২০২০, ১৬:১৭
সংসদ টিভি
ছবি : সংগৃহীত

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। তবে সংসদ টেলিভিশনে ক্লাস সম্প্রচার করছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। 

কিন্তু রাজধানীসহ বিভাগীয় ও জেলা শহরের শিক্ষার্থীরা এই চ্যানেলে ক্লাস দেখতে পেলেও সুযোগ পাচ্ছে না মফস্বলের শিক্ষার্থীরা। এতে করে পড়ালেখার সুযোগ পাচ্ছে না তারা।

জানা যায়, গত ২৯ মার্চ থেকে ‘আমার ঘরে আমার ক্লাস’ শিরোনামে প্রতিদিন ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির আটটি ক্লাস সম্প্রচার করছে মাউশি অধিদপ্তর। আর এর পরপরই প্রাক-প্রাথমিক থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ক্লাস প্রচার শুরু করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

এ ছাড়া রাজধানীর অনেক স্কুল নিজেরাও অনলাইনে ক্লাস প্রচার শুরু করছে। বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গ্রুপ খুলেও পড়ালেখা আদান-প্রদান করছেন শিক্ষকরা। কিন্তু বেশির ভাগ মফস্বল এলাকায়ই সংসদ টেলিভিশন প্রচার হয় না। অনেকের বাড়িতে টেলিভিশনও নেই। আর গ্রামে যাদের টেলিভিশন আছে তাদের বেশির ভাগেরই ডিস সংযোগ ও ইন্টারনেট সুবিধা নেই। এমনকি দরিদ্র পরিবারের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা এখনো সাধারণ ফোন ব্যবহার করেন। ফলে অনলাইনে প্রচারিত সব ক্লাস থেকেই দূরে আছে মফস্বলের শিক্ষার্থীরা।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ বলেন, ‘সংসদ টেলিভিশন ছাড়াও আমরা রেডিওতে ক্লাস সম্প্রচারের কথা ভাবছি। এ ছাড়া স্ব-স্ব স্কুলের শিক্ষকদের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেও আমরা বলেছি।’ নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার বেশির ভাগ এলাকায় টেলিভিশন বা অনলাইন সুবিধা না থাকায় প্রায় এক লাখ শিক্ষার্থীর পড়াশোনা বন্ধ হয়ে গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার বেশির ভাগ এলাকায় কেবল নেটওয়ার্ক সংযোগ নেই। নেই কোনো অনলাইন সুবিধা। উপজেলা সদর বা দু-একটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় কেবল নেটওয়ার্ক সংযোগ থাকলেও এতে সংসদ টিভি দেখা যাচ্ছে না। এতে উপজেলার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক মিলে প্রায় এক লাখ শিক্ষার্থীর পড়ালেখা বন্ধ হয়ে গেছে।

পূর্বধলার সাধুপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. হিরা মিয়া বলেন, ‘বর্তমান তথ্য-প্রযুক্তির যুগে প্রতিটি শিক্ষার্থীর জন্য অনলাইন ক্লাস সুবিধা নিশ্চিত করা এখন সময়ের দাবি। শুধু দুর্যোগকালে নয়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সময়ও তা শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা অব্যাহত রাখতে ভূমিকা রাখবে।’

একই উপজেলার মৌদাম গ্রামের পল্লী চিকিৎসক আবু রায়হান তালুকদার জানান, তাঁর ছেলে সিফায়েতুল ইসলাম ওই এলাকার মিডিয়া আইডিয়াল স্কুলে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ে। স্কুল বন্ধ থাকায় সংসদ টিভিতে পাঠদান হবে শুনে তিনি নতুন টিভি কেনেন। কিন্তু দেখা না যাওয়ায় তা ছেলের কোনো কাজে আসছে না।

ঘাগড়া দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী ইসরাত জাহান হলি জানায়, কেবল সংযোগ ও কোনো অনলাইন না থাকায় সংসদ টেলিভিশন বা অনলাইনে কোনো ক্লাস করার সুবিধা পাচ্ছে না সে।

পূর্বধলা জে এম সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী সুমনা সরকার বলেছে, তাদের বাসায় কেবল সংযোগ থাকলেও সংসদ টিভি দেখা যায় না।

আরও পড়ুন : ৬ জুন থেকে একাদশে ভর্তির আবেদন

ওই উপজেলার হাটখোলা এসইএসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, সংসদ টিভিতে পাঠদান কার্যক্রম দেখতে অধিদপ্তর থেকে শিক্ষকদেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু গ্রামে কেবল সংযোগ বা অনলাইন সুবিধা না থাকায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা তা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

পূর্বধলা উপজেলা সদরের কেবল ব্যবসায়ী আশিকুর রহমান বলেন, ব্যান্ডউইথ কম থাকায় ও নানা কারিগরি ত্রুটির কারণে ফ্রিকোয়েন্সি পেতে সমস্যা হয়। তাই সংসদ টিভি দেখা যায় না।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড