• বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ২৪ আষাঢ় ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

অপরাধ অথচ অপবাদ!

  নুসরাত জাহান শাম্মী

০৫ জুন ২০২০, ২৩:২৪
অপরাধ অথচ অপবাদ!
অপরাধ অথচ অপবাদ!

‘আইনের চোখে চুরি ডাকাতি আর পাঁচটা অপরাধে মতোই ধর্ষণও একটি অপরাধ। অপরাধ করার দায়ে শাস্তি হয় অপরাধীর। যেমন চুরি করার পর অপরাধী অর্থাৎ চোরের শাস্তি হয়; পাশাপাশি চুরির ঘটনাটি সমাজে নিকৃষ্টতার সাক্ষী রাখে। কিন্তু ধর্ষণ এমন একটি অপরাধ যেখানে ধর্ষককে অপরাধী না করে অপরাধের পুরো দায়ভার গিয়ে পরে ধর্ষিতার উপর, সমাজ দিতে শুরু করে অপবাদ। চুরির অপরাধে আমরা নিঃসন্দেহে চোরকে দায়ী করি- এক্ষেত্রে নিশ্চিত ভাবে বলি চুরির শিকার হওয়া মানুষটির কোন ভুল নেই; তবে কেন ঠিক- চুরির মতোই একই রকম অপরাধে ধর্ষণের পর সব দোষ হয় ধর্ষিতার!’।

সমাজে যেভাবে নিচু হয়ে বাঁচে একজন চোর, ঠিক সেভাবে কেন ধর্ষক নিচু হয়ে বাঁচে না!। কেনই বা  সারাজীবন এর শাস্তি ভোগ করতে হয় একজন ধর্ষিতাকে। যদি তাই সমাজের নিয়ম হয়ে থাকে- তবে কেন কারোর চুরি হওয়ার পর সে আজীবন একটা মানসিক যন্ত্রণায় ভোগেনা- যে মানসিক যন্ত্রণায় প্রতিদিন মৃত্যু ঘটে একজন ধর্ষিতার!। যেদিন আমরা, আমাদের এই সমাজ ধর্ষণকে কেবল মাত্র একটা অপরাধ হিসেবে নিতে পারবো- প্রকৃতপক্ষে সেদিন ধর্ষণের কুপ্রভাব কিছুটা হ্রাস পাবে।

আমরা সমাজ থেকে চুরিকে যেমন নির্মূল করতে পারিনি- অপরাধ হয়ে লেগে আছে সমাজের সাথে, ঠিক তেমনি কিছু মানুষরূপী পশুদের জন্য আমরা সমাজ থেকে ধর্ষণকেও নির্মূল করতে পারবো না, কেবলমাত্র আমাদের চিন্তাভাবনার মানবিক উন্নতি ঘটিয়ে ধর্ষণকে একটা সুস্পষ্ট অপরাধ করে তুলতে পারবো- সেখানে বাজে ভাবে অপরাধের শিকার হওয়ার জন্য ধর্ষিতার কোন দায় থাকবে না; বা ধর্ষনের কারণে সারাজীবন অপরাধীর মতো কাটাতে হবে না। ধর্ষণ কেবল একটি অপরাধ, অপরাধের জন্য দায়ী কেবলমাত্র ধর্ষক যেমন অপরাধী একজন চোর।

যখন পুরো মানবজাতি করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর মতো অদৃশ্য শত্রæর সাথে লড়াই করে যাচ্ছে, মৃত্যু যখন কড়া নাড়ছে দরজায় দরজায়- ধর্ষকরা কিন্তু এখনো শুধরোয়নি! মৃত্যুর ভয়ও তারা পাচ্ছেনা, দিনকেদিন ধর্ষণের মতো অমানবিক কাজ করে নিজেদের পশুত্বের প্রমাণ দিয়ে যাচ্ছে। কিছুদিন পর হয়ত এই মরণ দুর্যোগ কেটে যাবে, কিন্তু কবে এসব পশুরা মানুষ হবে আমরা তা জানি না। কেবল একটা সমাজ তৈরির দাবী রাখতে পারি; যেখানে ধর্ষণ অপরাধ আর ধর্ষিতা অপরাধী নয়।


 

চলমান আলোচিত ঘটনা বা দৃষ্টি আকর্ষণযোগ্য সমসাময়িক বিষয়ে আপনার মতামত আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তাই, সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড