• বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮  |   ২১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি পেয়ে মুখে হাসি ফুটল আফগান শিশুদের

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭:২০
ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি পেয়ে মুখে হাসি ফুটল আফগান শিশুদের
ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরিতে বসে বই পড়ছে আফগান শিশুরা (ছবি : বিবিসি নিউজ)

কট্টর ইসলামিক সংগঠন তালেবান যুদ্ধবিধ্বস্ত রাষ্ট্র আফগানিস্তানের শাসন ক্ষমতা দখলের পর থেকেই দেশটির শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। বিশেষত নারীদের শিক্ষা কার্যক্রম নিয়ে বিশেষজ্ঞরা ছিলেন উদ্বিগ্ন। এমনকি ক্ষমতা গ্রহণের পর কয়েক মাস কেটে গেলেও দেশটির অনেক স্কুলও এখন পর্যন্ত বন্ধই রয়ে গেছে।

এসবের পাশাপাশি প্রিয় ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরিতে উঠতে না পেরে হাঁপিয়ে উঠেছিল আফগান শিশুরা। অবশেষে সড়কে বই ভর্তি সেই গাড়ি চালু করার অনুমতি দিয়েছে তালেবান। মূলত এরপরই আবার সড়কে বেরিয়ে পড়েছে সেই গাড়ি। প্রিয় বইগুলো আবার পড়তে পেরে খুশি কাবুলের শিশুরা। হাসি ফিরেছে তাদের মুখে।

সোমবার (৬ ডিসেম্বর) করা প্রতিবেদনে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, গেল রবিবার (৫ ডিসেম্বর) আফগান রাজধানী কাবুলের একটি এতিমখানায় যায় ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরির একটি বাস। তালেবান নেতাদের ক্ষমতা গ্রহণের পর এ ধরনের ঘটনা এটাই প্রথম। আর এতেই হাসি ফুটেছে ছোট ছোট শিশুদের মুখে।

১১ বছর বয়সী আরিজু আজিজিও ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি পেয়ে ভীষণ খুশি। তার ভাষায়, আমার সত্যি খুব ভালো লাগছে। আমার প্রিয় বইগুলো আমি আবার পড়তে পারছি।

প্রিয় বইগুলো হাতে নিয়ে বেশ উত্তেজিত কণ্ঠে সে জানায়, গত তিন মাস যাবত লাইব্রেরিটি এখানে আসেনি। কিন্তু এখন আসছে।

আরও পড়ুন : বিদ্রোহী ভেবে ১৩ গ্রামবাসীকে হত্যা করল ভারতীয় সেনারা

মোট ৫টি বাস ভাড়া নিয়ে ভ্রাম্যমাণ এই লাইব্রেরির কার্যক্রম শুরু করেছে চারমাগজ নামে একটি সংস্থা। এর প্রতিষ্ঠাতা ফ্রেশতা করিম নামে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন আফগান স্নাতক।

এএফপির প্রতিবেদক বলছেন, বিদ্যমান নানা সমস্যা ও সংকটে জর্জরিত কাবুলের অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নিজস্ব লাইব্রেরি নেই। আর তাই সাম্প্রতিক বছরগুলোতে শত শত শিশু এই ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি ব্যবহার করেছে।

যদিও গত আগস্ট মাসের মাঝামাঝি সময়ে তালেবান ক্ষমতা দখলের পর থেকে এই কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি পরিচালনার ডেপুটি প্রধান আহমদ ফাহিম বারাকাতি বলছেন, তালেবান নেতারা ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে প্রায় সবগুলো স্পন্সরই আমরা হারিয়ে ফেলি।

তিনি আরও বলেন, যদিও কয়েক সপ্তাহ আগে ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি পরিচালনার অনুমতি দেয় তালেবানের শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কিন্তু লাইব্রেরি পরিচালনার জন্য ভাড়া নেওয়া বাসগুলোর মালিক আফগান পরিবহন মন্ত্রণালয় এবং মাত্র কয়েকদিন আগে এই কার্যক্রম পরিচালনার বিষয়ে আমরা তাদের সঙ্গে একটি চুক্তিতে পৌঁছাতে পেরেছি। এরপরই এই লাইব্রেরি চালু হয়।

এ দিকে লাইব্রেরি চালু হওয়ায় শিশুদের মতো খুশি লাইব্রেরিয়ান রামজিয়া আবদি খলিলও। ২২ বছর বয়সী ওই লাইব্রেরিয়ান বলেছেন, এটি অনেক ভালো অনুভূতি। বর্তমানে স্কুলগুলো বন্ধ। আমরা রাস্তাতেই শিশুদের পড়াচ্ছি। স্কুল বন্ধ থাকায় তাদেরও প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সুযোগ নেই। এভাবে তাদের পড়ার সুযোগ দিতে পেরে ভালো লাগছে।

আরও পড়ুন : নাগাল্যান্ডে গ্রামবাসীকে হত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের

লাইব্রেরিগুলোতে ঠিক কোন ধরনের বই আছে সেটি নিয়েও কথা বলেন আবদি খলিল। তার ভাষায়, আমাদের এখানে ইসলামিক বই, ইংরেজি বই এবং গল্পের বই রয়েছে। আছে চিত্রাংকনের বই এবং বিভিন্ন ধরনের খেলার অনেক বইও।

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]m

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড