• বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ত্রাণ সহায়তায় ছাত্র অধিকার পরিষদের ‘জরুরি তহবিল’

  নিজস্ব প্রতিবেদক

০৭ এপ্রিল ২০২০, ২০:১৯
ছাত্র অধিকার
বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ

বিশ্বব্যাপী মহামারি ঘোষিত করোনাভাইরাস বাংলাদেশে সংক্রমিত হওয়ার পর থেকে 'জরুরি তহবিল' গঠনে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ। ২০ মার্চ থেকে শুরু হওয়া এ তহবিল সংগ্রহের কাজ এখনও চলমান।

এ পর্যন্ত ছাত্র অধিকার পরিষদের জরুরি তহবিলে জমা হয়েছে প্রায় ৭ লাখ টাকা। এই তহবিল শক্তিশালী করতে সংগঠনটির সকল নেতা-কর্মীরা রাতদিন কাজ করে যাচ্ছে। 

তবে কেন্দ্রীয় পরিষদ ছাড়াও সংগঠনটির জেলা-উপজেলা, ইউনিয়নসহ বিভিন্ন কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা কমিটিও নিজেদের মত করে তহবিল সংগ্রহ করে যাচ্ছে। 

প্রসঙ্গত, অফিসিয়াল প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে গত ২০ মার্চ এই জরুরি তহবিল সংগ্রহের কাজ শুরু করে সংগঠনটি। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের (বিকাশ, রকেট ও নগদ) মাধ্যমে অর্থ সহায়তা করছেন সংগঠনের শুভাকাঙ্ক্ষীরা। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সংগঠনের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন। 

হাসান আল মামুন বলেন, মোবাইল ব্যাংকিং ছাড়াও ছাত্র অধিকার পরিষদ ফেসবুক ফান্ড রাইজিং ইভেন্ট (Corona Crisis: Relief Fund for Bangladesh)- এর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের চেষ্টা করছে। সেখানে বাংলাদেশি, প্রবাসী ভাই-বোনেরা সহায়তা করছেন।

সংগঠনের নেতারা জানান, দেশের ৬৪ জেলায় ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রম হাতে নিয়েছে ছাত্র অধিকার পরিষদ। ইতোমধ্যেই ৪০টি মত জেলায় কয়েক ধাপে ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রম পরিচালনা করেছে। বাকি জেলাগুলোতেও ত্রাণ দেওয়ার প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে। কিছুদিনের মধ্যেই সেখানে কার্যক্রম পরিচালনা করবে বলে। 

এ পর্যন্ত সংগঠনটি প্রায় ৩০০০ পরিবারকে সরারসি ত্রাণ সহায়তা প্রদান করেছে। যার ব্যয় হয়েছে প্রায় ৮ লাখ টাকার মতো। ত্রাণ সহায়তার খাদ্যসামগ্রীর মধ্যে ছিল চাল, ডাল, আলু, তেল, পেয়াঁজ, লবণসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি। এ ছাড়াও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার অংশ হিসেবে খাদ্যসামগ্রীর সাথে দেওয়া হয় একটি করে সাবান। সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সরাসরি অসহায়, দুস্থ ও নিম্ন আয়ের মানুষের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ত্রাণ পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করে।

এছাড়াও গণস্বাস্থ্যের সহায়তায় ও ছাত্র অধিকার পরিষদের তত্ত্বাবধানে ঢাকায় ও নারায়ণগঞ্জে প্রায় ৭৫০টি পরিবারকে প্রথম পর্যায়ে এক মাসের খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়েছে; যা আগামী ৬ মাস অব্যাহত থাকবে। এমনটিই জানান সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক ও ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর। 

মধ্যবিত্ত পরিবার, যারা সাহায্যের জন্য রাস্তায় লাইনে দাঁড়াতে পারে না তাদেরকে সহায়তা করার জন্য একটি ক্যাম্পেইন পরিচালনা করা হচ্ছে। যার সার্বিক তত্ত্বাবধায়ন করছেন পরিষদের আরেক যুগ্ম আহবায়ক রাশেদ খান। যেখানে ডোনার সরাসরি মধ্যবিত্ত পরিবারকে সহায়তা করবেন। 

রাশেদ খান বলেন, আমরা ডোনার ও সাহায্যগ্রহীতার মধ্যে মধ্যস্থতায় কাজ করছি। এখানে সাহায্যগ্রহীতা পরিবারের সকল তথ্য গোপন রাখা হয়। এই ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে এখন পর্যন্ত প্রায় শতাধিক মধ্যবিত্ত পরিবারকে সহায়তা করা হয়েছে।

ডাকসু ভিপি বলেন, এর পাশাপাশি কেন্দ্রীয় পরিষদের সহায়তায় সংগঠনটির ঢাকা মহানগর ও সম্মিলিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতৃবৃন্দ প্রতিরাতে প্রায় ২০০ জন নিম্ন আয়ের ব্যক্তিকে রান্না করা খাবার ঢাকার বিভিন্ন স্থানে বিতরণ করছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা মোট ২০ হাজার পরিবারকে সহায়তা করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছি। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ১ কোটি টাকা। ছাত্র সংগঠনের পক্ষে এত টাকার ব্যয়ভার বহন করা কষ্টসাধ্য হওয়ায় আমরা সমাজের ধর্ণাঢ্য ও উচ্চবিত্তদের সার্বিক সহায়তা কামনা করছি।

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড