• শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০, ২৬ আষাঢ় ১৪২৭  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের ইদ

  মো. আশিকুর রহমান, গবি প্রতিনিধি

২৭ মে ২০২০, ২৩:১৩
ইদ
ছবি : সম্পাদিত

ইদ দুটি বর্ণের মিলন। যার ব্যাপ্তি মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য আকাশচুম্বী। বছরে মাত্র দুটি ইদ অত্যন্ত আনন্দ উল্লাস ও জাঁকজমকভাবে পালন করেন সারা বিশ্বের মুসলমানরা। শত ঝগড়া বিবাদ ভুলে গিয়ে কাঁধে কাঁধ ও বুকে বুক মিলিয়ে শান্তির বাণী প্রচার করেন এই দুই দিন।

মুসলিমরা আনন্দ উল্লাসে সময় পার করলেও এই দুই ইদে অন্য ধর্মের মানুষরা কীভাবে ছুটি কাটান? সে ব্যাপারে বিস্তারিত জানাচ্ছেন গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োকেমিস্ট্রি অ্যান্ড মলিক্যুলার বায়োলজি বিভাগের শিক্ষার্থী ও দৈনিক অধিকারের প্রতিনিধি মো. আশিকুর রহমান।

মনের মাধুরী মিশিয়ে মনের কথা ব্যক্ত করেন গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান ও সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষার্থী ছন্দা রানি সরকার। এই শিক্ষার্থী বলেন, ‘আমার কাছে ইদ মানে আনন্দ, ইদ মানে খুশি! আর সবার মাঝে আনন্দ ভাগাভাগি করে নেওয়া। ইদের ছুটিতে বাসায় আসা হয়, ভালোই লাগে। বাসায় সবার সঙ্গে ইদ পালন করা হয় যেহেতু ইদের ছুটি। যদিও রোজা আমরা থাকি না কিন্তু ইফতারি টা খেতে মিস করি না! ইদের দিন সেমাই, মাংস, পোলাও ভাত আমরাও এইসব খেয়ে থাকি। কারণ ইদ একটি উৎসব আমি মনে করি। দীর্ঘ একমাস ছুটি পায়। বাবা-মা, ভাই-বোনদের সঙ্গে সময় কাটাতে পেরে ভালো লাগে।

ইদ নিয়ে কথা হয় বৌদ্ধ ধর্মের অনুসারী হ্লামংউ মারমার সঙ্গে। তিনি গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী। তার মতে, আমাদের কোনো উৎসবের আয়োজন নেই। তবে ইদের ছুটিতে বাড়িতে সবার সঙ্গে ভালো সময় কাটিয়ে উঠতে পারি। এছাড়া সবাই যে যার কর্মস্থলে থাকার কারণে পরিবারের সবাই একসঙ্গে মিলিত হওয়া সম্ভব হয়ে ওঠেনা। এই সময় বিশেষ করে আম, কাঁঠাল, কাজুবাদাম বিভিন্ন ফলের সিজন। সব মিলিয়ে আমার ইদের ছুটি ভালোই লাগে। প্রতিটা পবিত্র দিন সবার জন্য মঙ্গলজনক। করোনা মহামারির কারণে এবার ইদটা অন্য রকমের পালন হোক সবাই নিজ ঘরে থেকে ইদের আনন্দে আলোকিত হোক।

অন্য ধর্মের অনুসারী হলেও ইদ নিয়ে অনেকটা মনের রং ঢেলে জানান উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী ধীরা ঢালি। তিনি জানান, ইদ মানে অপেক্ষার প্রহর শেষে অফুরন্ত খুশি, নতুন পোশাকে নিজেকে সাজানো, নতুন করে নিজেকে উপস্থাপন করা। ইদের মাধ্যমে আমরা সহমর্মিতা ও ভ্রাতৃত্বের মেলবন্ধনে আবদ্ধ হই। তবে আমার এবারের ইদ ছিল একটু ভিন্ন, রংধনুর সেই মেলা ছিল না, বন্ধুদের সঙ্গে ডানা ঝাপটানোর তাড়া ছিলনা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুভেচ্ছা বিনিময়ের মধ্যদিয়ে শেষ হয় এই কাঙ্ক্ষিত দিনটি।

আরও পড়ুন : রোজা ও করোনা পরিস্থিতিতেও থেমে নেই রক্ত দান

ধর্মের দিক থেকে আমরা মুসলিম, কেউ হিন্দু, বৌদ্ধ বা খৃষ্টান কিন্তু আমাদের সবার একটাই পরিচয় আমরা মানুষ। আমাদের সবার শরীরেই বইছে একই রক্ত। ইদ মুসলিমদের ধর্মীয় উৎসব হওয়া সত্ত্বেও অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের কাছেও তা আনন্দের এবং উৎসবের এই বিষয়টা সত্যিই খুব গর্বের। 

করোনার এই সময়ে আমরা সবাই ঘরেই অবস্থান করি, আর দোয়া করি আল্লাহর কাছে তিনি যেন খুব দ্রুত আমাদের এই মহামারি থেকে রক্ষা করেন। জাতি, ধর্ম, বর্ণ সব ভুলে আজ আমরা মানবতার জয়গান করি। লকডাউনের উৎসব নয় আমরা চাই মানুষ যেন আবার পাখির মতো উড়ে বেরানোর স্বাধীনতা, মন খুলে হাসি, গান আর আড্ডায় মাতানোর স্বাধীনতা ফিরে পায়। জন্ম হোক নতুন এক শান্তিময় পৃথিবীর।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড