• শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

জিপির দেওয়া হাজার কোটি টাকা করোনাদুর্গতদের জন্য ব্যয়

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৯ মে ২০২০, ২১:১৯
জিপি
পে-অর্ডার জমা দান (ছবি : সংগৃহীত)

করোনা দুর্যোগের সময়ে অডিট আপত্তি নিয়ে গ্রামীণফোনের দেওয়া টাকা দুর্গতদের জন্য ব্যয় করতে সরকার আরও তৎপর হতে পারবে বলে জানিয়েছেন বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক।

মঙ্গলবার (১৯ মে) আদালতের নির্দেশনা মেনে গ্রামীণফোন বিটিআরসির কাছে শেষ কিস্তির এক হাজার কোটি টাকার পে-অর্ডার জমা দেওয়ার সময় চেয়ারম্যান এ কথা বলেন।

আগামী ৩১ মে নির্ধারিত সময়ের আগেই টাকা দেওয়ায় গ্রামীণফোনকে ধন্যবাদ জানিয়ে বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, ‘এই টাকাটা পাবলিক ডিমান্ড, আমাদের কিছু করার ছিল না। সরকারি টাকা নেওয়াই আমাদের একমাত্র কাজ।’

তিনি বলেন, ‘করোনার ক্রান্তিলগ্নে গ্রামীণফোন যে এক হাজার কোটি টাকা জমা দিল এতে বাংলাদেশ সরকারের বিরাট উপকার হবে, করোনায় যারা আক্রান্ত তাদের সাহায্য করা যাবে।’

বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, গ্রামীণফোনের ন্যায্য যে পাওনা বিটিআরসির কাছে আছে তা তারা সব সময় পেতে থাকবে। গ্রামীণফোনের কাছে বিটিআরসির যে পাওনা তা যেন পরিশোধ করে, এ প্রত্যাশা আমরা করি। বর্তমান সিইওর অধীনের বিটিআরসির সঙ্গে গ্রামীণফোনের ভালো সম্পর্ক বিরাজ করবে।’

গ্রামীণফোনের সিইও ইয়াসির আজমান বলেন, ‘আদালতের প্রতি সম্মান রেখেই আমরা টাকা পরিশোধের সিদ্ধান্ত নেই।’

এর আগে ফেব্রুয়ারিতে এক হাজার কোটি টাকা পরিশোধ করা হয়। করোনার এই দুর্যোগের সময় এই টাকা অনেক কাজে লাগবে- চেয়ারম্যানের কথা টেনে গ্রামীণফোনের সিইও বলেন, আমরা আনন্দিত যে এই সময়ে এটার সঙ্গী হতে পেরেছি।

গ্রামীণফোনের কাছে অডিট আপত্তির বাকি পাওনা আদায় আগামী দিনে কীভাবে সমাধান হবে- জানতে চাইলে চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমরা উভয়পক্ষ বসে হিসাব করে দেখবো, যা হয় তা মানবো। আমরা অর্থ বিভাগের সঙ্গেও বসবো। যদি কোনো হিসাবের গণ্ডগোল থাকে, সঠিক তথ্য যদি কেউ দেয় আমরা সেটা মেনে নেবো।’

আরও পড়ুন : লকডাউনে গেম খেলতেই ১০৮৬ কোটি ডলার খরচ করেছে মানুষ

তবে রি-অডিটের কোনো প্রশ্ন আর আসতে পারে না বলে জানান বিটিআরসি চেয়ারম্যান।

এই মুহূর্তে সমালোচনা না করে মহামারির সময়ে সবার জন্য কাজ করা উচিত জানিয়ে গ্রামীণফোন সিইও বলেন, ‘এটা প্রতিযোগিতায় ক্ষতি করবে না। সবারই এসব কাজ করা উচিত।’

বাকি অপারেটরদের অডিট নিয়ে বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, অর্থ বিভাগ চেষ্টা করছে। অডিট প্রক্রিয়াধীন। আমরা চেষ্টা করছি ক্রমান্বয়ে সব অডিট হয়ে যাবে। এয়ারটেলে শুরু হয়ে গেছে, বাকিগুলোও হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড