• শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি কমানোর উপায় বাতলে দিল সুপার কম্পিউটার

  প্রযুক্তি ডেস্ক

০৮ জুলাই ২০২০, ২২:৫৭
সুপার কম্পিউটার
সুপার কম্পিউটার (ছবি : সংগৃহীত)

মহামারি করোনা ভাইরাসের ভয়াল তাণ্ডবে যেন ভেঙেচুরে যাচ্ছে পুরো পৃথিবী। সংকটপূর্ণ এই পরিস্থিতির মাঝে জানালা খোলা রেখে কমিউটার ট্রেন চালানো এবং এতে যাত্রীসংখ্যা সীমিত রাখলে এই মরণ ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি কমানো সম্ভব বলে পরামর্শ দিয়েছে জাপানি সুপার কম্পিউটার।

বাতাসের মাধ্যমেও করোনা ভাইরাস ছড়াতে পারে বলে সতর্ক করেছেন বিজ্ঞানীরা। এ কারণেই এমন পরামর্শ এসেছে সুপার কম্পিউটারের সিমুলেট করা মডেল থেকে।

সম্প্রতি বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুতগতির সুপার কম্পিউটার ফুগাকুর মাধ্যমে একটি জরিপ চালিয়েছে জাপানের গবেষণা জায়ান্ট রাইকেন। বিভিন্ন পরিবেশে বাতাসের মাধ্যমে কীভাবে ভাইরাস ছড়াতে পারে তা সিমুলেট করেছে প্রতিষ্ঠানটি। জনসমাগম হয় এমন স্থানে সংক্রমণের ঝুঁকি কীভাবে কমানো যেতে পারে সে বিষয়ে কয়েকটি পরামর্শও দিয়েছে কম্পিউটারটি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে প্রধান গবেষক মাকোতো সুবোকুরা বলেন, কমিউটার ট্রেনে জানালা খোলা রাখলে ভেন্টিলেশন ব্যবস্থা দুই থেকে তিন গুণ বাড়তে পারে, এতে পরিবেষ্টিত জীবাণুর গঠন দূর্বল হতে পারে। আর এজন্য যাত্রীদের মধ্যে যথেষ্ট ফাঁকা জায়গা থাকতে হবে।

একই সঙ্গে অফিস এবং শেণিকক্ষে পার্টিশন লাগানো এবং হাসপাতালের বিছানাগুলো পর্দা দিয়ে সিলিং পর্যন্ত ঢেকে রাখারও পরামর্শ এসেছে গবেষণার মাধ্যমে।

সোমবার (৬ জুলাই) ৩২টি দেশের ২৩৯ জন বিজ্ঞানী এক খোলা চিঠিতে প্রমাণসহ দেখিয়েছেন, বাতাসে ভেসে থাকা একেবারে ক্ষুদ্র ভাইরাসবাহী কণা থেকেও মানুষ শ্বাসপ্রশ্বাসের মাধ্যমে আক্রান্ত হতে পারে।

বাতাসের মাধ্যমেও করোনা ভাইরাস ছড়ানোর ‘প্রমাণ’ যে আসতে শুরু করেছে, তা স্বীকার করলেও এটি নিশ্চিত নয় বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে ভেন্টিলেশন ব্যবস্থা উন্নত করা এবং ভীড় এড়িয়ে চলার পরামর্শ দিয়েছেন খোলা চিঠির লেখকদের একজন শিন-ইচি তানাবে। জাপান কয়েক মাস আগেই বিস্তৃত পরিসরে এই ব্যবস্থাগুলো গ্রহণ করেছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন : ৪জি সম্প্রসারণের তাগিদ দিলেন টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

এ ব্যাপারে টোকিওর ওয়াশিডা ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক তানাবি বলেন, ‘জাপানে কোভিড-১৯ প্রতিরোধ ব্যবস্থা গ্রহণকারী কমিটি প্রাথমিক পর্যায়ের ৩সি ব্যবস্থা চালুর পরামর্শ দিয়েছে।’ জাপানের ‘ক্লোজড স্পেসেস, ক্রাউডেড প্লেসেস এবং ক্লোজ-কনট্যাক্ট সেটিংস’ প্রচারণাকেই বলা হচ্ছে ৩সি।

জাপানে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা ১৯ হাজারের বেশি, আর মারা গেছেন ৯৭৭ জন। করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় এই সাফল্যের জন্য ৩সি এবং ক্লাস্টার-ট্রেসিং কৌশলকে কৃতিত্ব দিয়েছেন দেশটির অর্থ মন্ত্রী ইয়াসুতোশি নিশিমুরা।

jachai
nite
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
jachai

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড