• শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০, ২৭ চৈত্র ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কুরআনপাঠ ও ইসলামের পরিপূর্ণ সৌন্দর্য উপলব্ধি

  মুনশি আমিনুল ইসলাম

১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৮:১৬
ইসলাম
ছবি: প্রতীকী

ইহকালীন শান্তি ও পরকালীন মুক্তির সোপান পবিত্র কুরআন। জীবন চলার বিধিবিধান, জ্ঞান-বিজ্ঞান ও তথ্যে সমৃদ্ধ একটি কিতাব আল কুরআন। এ প্রসঙ্গে রাব্বুল আলামিন মহান আল্লাহ বলেন, ‘আমি এ কিতাবে কোনো বিষয়ই বাদ দিইনি’। (সুরা আনআম :৩৮) অন্যত্র তিনি বলেন, ‘আমি তোমার প্রতি এ কিতাব অবতীর্ণ করেছি, যা প্রত্যেকটি বিষয়ে সুস্পষ্ট বর্ণনাদানকারী’। (সুরা নাহল :৮৯) অর্থাৎ একজন মানুষের দৈনন্দিন জীবনে যা কিছুর প্রয়োজন তার সবকিছুর বর্ণনা রয়েছে মহাগ্রন্থ আল কুরআনে।

রাসুলে কারিম (সা.) বলেন, ‘যে মুমিন কুরআন পাঠ করে, তার উদাহরণ হলো কমলালেবু, যা স্বাদে ও গন্ধে উত্তম। আর যে মুমিন কুরআন পাঠ করে না, তার উদাহরণ হলো খেজুর, যার সুগন্ধ না থাকলেও স্বাদে মিষ্ট। আর যে মুনাফেক কুরআন পাঠ করে, তার উদাহরণ হলো রায়হানাহ ‘ফুল’, যার সুগন্ধি আছে এবং স্বাদ তিক্ত। আর যে মুনাফেক কুরআন পাঠ করে না, তার উদাহরণ হলো হান্যালাহ (মাকাল ফল), যার কোনো সুগন্ধি নেই এবং স্বাদও খুব তিক্ত।’ (সহিহ মুসলিম :১৭৪৫)

ইসলামের প্রকৃতি প্রচারধর্মী। আবেদন বিশ্বজনীন। কুরআন হচ্ছে মানবজাতি এবং গোটা বিশ্ব মানবতার জন্য একটি দিকনির্দেশনা। আল্লাহ পাকের ঘোষণা- প্রত্যেক রাসুলকেই আমি স্বজাতির ভাষা দিয়ে পাঠিয়েছি যেন তাদের (স্বজাতিকে) পরিষ্কারভাবে বুঝাতে পারে। (সুরা ইবরাহিম :৪) সর্বশেষ নবির (সা.) মাতৃভাষায় কুরআন অবতীর্ণ হওয়ার বহু পরে ইউরোপীয় জগৎ যখন কুরআন বুঝতে সক্ষম হলো তখনই তাদের মধ্যে জন্ম নিলো রেনেসাঁ সৃষ্টিকারী পণ্ডিত। পশ্চিমা জগৎ শুধু নিজেরাই কুরআন বুঝে প্রশান্তি লাভ করেনি বরং বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদের তাগিদ অনুভব করেছিল।

ইউরোপীয় পণ্ডিতদের মধ্যে যারা অগ্রগামী ছিলেন তারা বুঝতে পারেন, আরবি রচনাবলি শুধু যে গুরুত্বপূর্ণ তাই নয়, সেগুলো অপরিহার্যও বটে। কারণ, তারই মধ্যে সঞ্চিত ছিল জ্ঞানের প্রচুর সম্পদ। কুরআনের অনুবাদ, তাফসির ও গবেষণাকর্ম বহু শতাব্দী আগে থেকে আরবি ও ফারসিতে শুরু হলেও উনবিংশ শতাব্দীর আগে বাংলা ভাষায় ইসলামের মূলগ্রন্থ কুরআন পাকের অনুবাদ সম্পাদিত হয়েছিল বলে জানা যায় না। এককালের পারস্য ও আজকের ইরান যখন ইসলামি শাসন বলয়ের অন্তর্ভুক্ত হয়, তখন সেখানে ফারসি ভাষার মাধ্যমেই ইসলামের বাণী প্রচারিত হয়।

বর্তমান প্রেক্ষিত
আপনি প্রতিদিন কুরআন পড়ছেন আরবিতে, কিন্তু কিছুই বুঝছেন না। পড়ছেন শুধু এক বর্ণে ১০ নেকির লাভের আশায়। আপনি কি শুধু এই নেকি নিয়ে সন্তুষ্ট থাকবেন! আল্লাহর দেয়া আদেশ-নিষেধগুলো বুঝতে হবে না আপনাকে? পবিত্র কুরআনে আল্লাহ বলেন, (সরল-সঠিক পথের সন্ধান দিতেই) আমি এভাবে তোমাদের কাছে তোমাদের মধ্য থেকেই একজনকে রাসুল করে পাঠিয়েছি, যে ব্যক্তি (প্রথমত) তোমাদের কাছে আমার ‘আয়াত’ পড়ে শোনাবে, (দ্বিতীয়ত) সে তোমাদের (জীবন) বিশুদ্ধ করে দেবে এবং (তৃতীয়ত) যে তোমাদের আমার কিতাব ও তার অন্তর্নিহিত জ্ঞান শিক্ষা দেবে, (সর্বোপরি) সে তোমাদের এমন বিষয়গুলোর জ্ঞানও শেখাবে যা তোমরা কখনও জানতে না। (সুরা বাকারা :১৫১)

সাম্প্রতিকতালে কুরআনের বিশুদ্ধ উচ্চারণ তিলাওয়াত, অনুবাদ ও তাফসির শেখার জন্য অনেক সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। আর কুরআন বুঝে পড়তে হলে মাতৃভাষার কোন বিকল্প নেই। তাই বাংলা ভাষাভাষী প্রত্যেক মুসলমান যখন নিজের মাতৃভাষা বাংলার মাধ্যমে কুরআন ও হাদিস শরিফ বুঝে পড়তে সক্ষম হবে- আশা করা যায়, তখন তারা ইসলামের পরিপূর্ণ সৌন্দর্য উপলব্ধি করতে পারবেন।

প্রচলিত কুসংস্কারের বিরুদ্ধে ধর্মীয় ব্যখ্যা, সমাজের কোন অমীমাংসিত বিষয়ে ধর্মতত্ত্ব, হাদিস, কোরআনের আয়াতের তাৎপর্য কিংবা অন্য যেকোন ধর্মের কোন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, সর্বপরি মানব জীবনের সকল দিকে ধর্মের গুরুত্ব নিয়ে লিখুন আপনিও- [email protected]
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড