• শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

আল্লাহ ও নবীর কটূক্তিকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির আইন করতে হবে

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২২ অক্টোবর ২০১৯, ১৮:১৫
হেফাজতে ইসলামের বিক্ষোভ সমাবেশ
বায়তুল মোকাররমের সামনে হেফাজতে ইসলামের বিক্ষোভ সমাবেশ (ছবি : সংগৃহীত)

আল্লাহ ও নবী-রাসুলগণের কটূক্তিকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের আইন করার দাবি জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। ভোলার ঘটনায় দোষীদের শাস্তিসহ মৃত্যুদণ্ডের আইন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে বলে জানিয়েছে ধর্মীয় এ সংগঠনটি। এমনকি  আবারও শাপলা চত্বরে আন্দোলনের হুমকি দিয়েছেন হেফাজতের নেতারা।

মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) রাজধানীর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে এ দাবি জানায় হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হক। ভোলার বোরহানউদ্দীনের ঘটনায় পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী এ দিন সমাবেশ করে হেফাজতে ইসলাম।

সমাবেশে হেফাজতে ইসলামের ঢাকা মহানগর আমির আল্লামা নূর হোসেন কাসেমী বলেন, আল্লাহর নবীর সঙ্গে যারা বেয়াদবি করেছে, তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। এ দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষ তাদের সমাজে মেনে নেবে না।

আল্লাহ ও নবীর কটূক্তিকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রেখে সরকারের প্রতি আইন করার দাবি জানিয়ে আল্লামা কাসেমী বলেন, কটূক্তিকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তিতে একটি আইন প্রয়োজন। যে আইনে আল্লাহ তায়ালা ও নবী-রাসূলগণের কটূক্তিকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড হবে। 

আইন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলনের হুমকি দিয়ে তিনি বলেন, কোনোরকমেই আল্লাহর হাবিবের সঙ্গে করা বেয়াদবি মেনে নেবে না দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষ। সরকার আল্লাহর হাবিবের সম্মান রক্ষায় ব্যর্থ হয়েছে। তাই তাদের ক্ষমতায় থাকার কোনো অধিকার নেই।

সরকারের কাছে হেফাজতের দাবি : 
ভোলার ঘটনায় সরকারের কাছে কয়েকটি দাবি জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম। তার মধ্যে রয়েছে- ভোলায় পুলিশের মামলা প্রত্যাহার, গ্রেফতারদের অবিলম্বে মুক্তি, সংশ্লিষ্ট থানার ওসি ও ভোলার এসপিকে প্রত্যাহার এবং বাংলাদেশ থেকে ইস্কনের কার্যক্রম নিষিদ্ধ করা।

উল্লেখ্য, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মহানবীকে (সা.) কটূক্তির অভিযোগে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার ঈদগাহ মসজিদ চত্বরে তৌহিদী জনতার ব্যানারে গত রবিবার বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ ডাকা হয়। এতে পুলিশের হস্তক্ষেপে সকালে কর্মসূচি শেষ হয়। এরপরই হঠাৎ পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন স্থানীয়রা। এ ঘটনায় চারজন নিহত হয়েছেন। পুলিশ সদস্যসহ আহত হয়েছেন অন্তত শতাধিক মানুষ। ঘটনার পরদিন (সোমবার) অজ্ঞাতনামা পাঁচ হাজার জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করে পুলিশ।

ওডি/এসএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড