• বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

নির্বাচনের মাঝেই সশস্ত্র মিছিলের ডাক বিজেপির

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৪ এপ্রিল ২০১৯, ১০:৪৭
বিজেপি
পশ্চিমবঙ্গে সশস্ত্র মিছিল করছেন বিজেপির সমর্থকরা। (ছবিসূত্র : দ্য হিন্দুস্তান টাইমস)

বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশ খ্যাত ভারতে শুরু হয়েছে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচন। দেশটির ১৮ রাজ্যের মোট ৫৪৩টি আসনে মাসব্যাপী চলবে এই ভোটের কার্যক্রম। তাছাড়া দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলেও উত্তাপ ছড়িয়েছে এই নির্বাচন। একইসঙ্গে আরও চারটি রাজ্যে হতে যাচ্ছে বিধানসভার ভোট গ্রহণ।

এবারের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যে দেশ জুড়ে তীব্র উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে। যার অংশ হিসেবে ক্ষমতাসীন দল বিজেপি এবং তাদের শরিকরা পশ্চিমবঙ্গে অস্ত্র হাতে ‘রামনবমী’ পালনের ডাক দিয়েছে। যে কারণে কলকাতাসহ রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় শনিবার থেকেই এই মিছিল বের হয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।

কলকাতাভিত্তিক দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, চলমান সংকটময় পরিস্থিতি মোকাবিলায় নির্বাচন কমিশনের কাছে অতিরিক্ত কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের সাহায্য চেয়েছে রাজ্য প্রশাসন। 

রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ‘রামনবমীর মিছিলে প্রশাসন বাধা দিতে গেলে পরিণাম ভয়ঙ্কর হবে।’

এদিকে নির্বাচন চলাকালীন সময়ে ধর্মীয় অনুষঙ্গ ব্যবহার করাই যখন নিষিদ্ধ তখন এমন কর্মসূচি কীভাবে হতে পারে সেই প্রশ্ন আগে থেকেই তুলে রেখেছে সিপিএম। তাছাড়া তৃণমূল কংগ্রেসসহ জোটের অন্যান্য দলগুলোও ঠিক একই প্রশ্ন তুলছে। তবে বিজেপির এই অস্ত্র মিছিলের বিরোধিতা করলেও বেশ কিছু স্থানে রামনবমীর অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার কর্মসূচি আগে থেকেই দিয়ে রেখেছে তৃণমূল।

বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ আরও বলেছেন, ‘অস্ত্র নিয়েই রামনবমীর মিছিল করার ক্ষেত্রে আমরা প্রশাসনের কোনো নিষেধাজ্ঞাই মানব না।’

দিলীপ ঘোষ এও বলেছিলেন, ‘রামনবমীতে অস্ত্র নিয়ে শোভাযাত্রা আমাদের একটি ঐতিহ্য। যার যেটা ঐতিহ্য সে ঠিক সেটাই সেভাবে পালন করবে। ভোট এসেছে তো কি হয়েছে, ভোট বলে বা কোনো সরকারের জন্য আমরা আমাদের সাংস্কৃতিক পরম্পরা ছেড়ে দিব এটা কখনোই হতে পারে না।’

নির্বাচনের সময়ে সাম্প্রদায়িকতা ছড়ানোর দায়ে বিরোধীরা যে কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছে তা নিয়ে পাল্টা কটাক্ষ করেছেন রাজ্য বিজেপির এ সভাপতি। তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন কেন বিজেপিকে আটকাতে পাকিস্তানের সঙ্গে হাত মেলাচ্ছে বিরোধীরা। তারা কমিশনে গেলেও আমার ধার্মিক অধিকার আমি পালন করব।’

তবে বিজেপির এমন বক্তব্যের প্রেক্ষিতে সতর্ক অবস্থান নিতে হচ্ছে দেশের নির্বাচন কমিশনকেও। রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে রামনবমীর জন্য অতিরিক্ত কেন্দ্রীয় নিরাপত্তাবাহিনী পাঠাতে একমত হয়েছে তারা।

আরও পড়ুন :- কুচবিহারের ১৬৬ কেন্দ্রে পুনঃভোট চায় বিজেপি

এ বিষয়ে সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র বলেছেন, ‘কেন্দ্র এবং রাজ্যের দুই শাসক দলই ধর্মীয় উৎসবকে রাজনৈতিক মেরুকরণের স্বার্থে ব্যবহার করছে। আমরা রাজ্যের সমস্ত ধর্মনিরপেক্ষ এবং শুভ বুদ্ধিসম্পন্ন মানুষের কাছে আহ্বান করছি। আপনারা সবাই সতর্ক থাকুন এবং ঐক্যবদ্ধ থাকুন। কেননা সাম্প্রদায়িক অপশক্তি এসে আপনাদের মাঝে সুযোগ নিতে পারে। যে কারণে তাদের কোনো ধরনের সুযোগ দেবেন না।’

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড