• রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

দৈনিক অধিকার ঈদ সংখ্যা-১৯

ভ্রমরার হুল ভুলিয়ে দেবে বিরহের গান

  তসলিম হাসান

০৪ জুন ২০১৯, ১১:০২
ছবি
ছবি : ভ্রমরার হুল ভুলিয়ে দেবে বিরহের গান

সম্পর্কের বিস্তারে আমাদের দুঃখগুলো কেমন বিস্তারিত হয়ে পড়ছে
গভীর সম্পর্ক বলেই দুঃখগুলো দিন দিন গভীরতর ঘ্রাণ পাচ্ছে
মাটির মানুষ কখন যে সোনার মানুষ হয়ে গেল
সোনার দেহ পুড়লো সখের জ্বালানী কাঠ হয়ে
কবি কি সাংবাদিক আমি বিচার করবে এমন রসিক পাওয়াই তো দুর্লভ
ধেয়ান তাকে কাঙাল করেছে ধ্যানেই করে তুলবে মনমহাজন
ভ্রমের দিকে ভ্রমরার হুল ভুলিয়ে দেবে বিরহের গান তন্দ্রার ঘোর।

 


নিঃসঙ্গতা ও তোমার প্রতি ব্যাকুলতা যদি পাশাপাশি হেঁটে যায়
তবে গন্তব্যের ভারসাম্যের খবর আকাশের নক্ষত্রেরা 
জানবে কী করে অথবা
নিঃসঙ্গতার পায়ে যদি চুরি পরাই আর ব্যাকুলতার হাতে বেড়ি
তবে উদয়শঙ্করের নাচ সমুদ্রের গভীর জলের মাছের মত
নিরর্থক হয়ে যাবে।

 


    
সন্ধ্যা পৃথিবীতে প্রতিদিনই নামে; এ আর এমন কী।
যদি পৃথিবী নামে সন্ধ্যার বুকে অথবা বিষয়ের উল্টোটাই
যদি সত্যি তবে সকল ব্যাকুলতা একাকীত্বের খাঁদে পড়ে গেছে।

 

 

অথবা জগৎ যখন উদয় হয় পাকা আমের স্বাদে নয়তো
ফুটন্ত গোলাপের রঙে তাহলে মদের গন্ধে জন্ম লাভ করে
একজন বয়োজ্যেষ্ঠ প্রেমিক। 

 


এই যে আমাদের বন্ধুত্ব 
কেমন ফিকে হয়ে আসা চাঁদের মত রহস্যময় দেখায়
তুমি হয়তো পড়েছো জোছনার কবিতা
যা আমাদের সময়ের নির্মমতার চোখে ধরা পড়ে না
এমনও দিনগুলো চৈত্রের দুপুরের মত কঠোর
তুমি চাও এমন অবেলায় সঙ্গী হিসেবে যেন
আমি তোমার মন যুগিয়ে চলি
একটি শীতল স্বপ্নের ভোরের আশায় 
আমাদের সারাটা জীবন ব্যয় হয়ে যাবে হয়তো
এভাবেই
তুমি এসেছিলে এও তো এক স্বপ্নই ছিল
জেগে থেকে চিরকাল এমন নির্লিপ্ত থেকে গেল
স্বপ্নহীন সময়।

 

আমার একাকিত্বের রাতগুলো চলেছে
চলেছে পরদেশি বন্ধুর দিকে।
এক সুমহান বেদনা এই, তার কেশের আলোটুকুই
আজ রাতের একান্ত উদ্দেশ্য কে জানে!
হৃদয় যে নিয়তি বেঁধে নিয়েছে বুকে
তাকে এড়িয়ে চলা পথিক নিজেরই অন্ধ অনুচর।
বলার মত প্রতিটি কথা বোবা রয়ে যাবে কি
সফল প্রেমের মত!

 


তোমার প্রতিক্ষায় আমার ঘরের দরজা 
কেমন কাত হয়ে রাত জেগে চলেছে।
ভোর হলে সটান দাঁড়িয়ে থাকে আর
মাঝে মধ্যে নড়ে উঠে রক্ত চলাচল ঠিক রাখে।

 

 

বাড়ির সামনের যে রাস্তা
বসে থাকতে না পেরে কিছু দূর এগিয়ে 
গলিতে মিশেছে আর অসময়ে ফোটা 
ফুল নিয়ে মস্ত ঝামেলায় পড়েছে উঠানের
দুটো বকুল গাছ।
এখন যদিও কার্তিক মাস।
তোমার বিরহে কিছু শিশির মাখানো 
ধান ঝরে গেছে আজই সন্ধ্যার খানিক আগে।
আমার উঠানের ধূলোরাও কেমন
ভিজেছে বেদনায়। কাছ ছাড়া স্বজন তবে তুমি! 

 

আরও পড়ুন- চিতার ঘাসগুলো কেন বড্ড সবুজ

দৈনিক অধিকার

কবি : কবি তসলিম হাসান

লেখক পরিচিতি :

কবি তসলিম হাসান। যিনি নিভৃতে করে যাচ্ছেন সাহিত্য চর্চা নিজ আনন্দে। যার কবিতায় পাবেন সময়-সংসার এবং দ্রোহের কথা। তিনি একজন গীতিকবিও। লিখছেন, সুর করছেন আপন মনে। শুধু তাই নয় রদিফ কাফিয়ার দৃঢ় বাঁধনে গজল রচনাকে সম্ভব করে তুলেছেন তিনি।

তসলিম হাসান ৩০ জানুয়ারি ১৯৯১ সালে পাবনায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শেষ করেন। বর্তমানে তিনি গবেষণা করছেন বাংলা কাব্য ও সঙ্গীত: সম্বন্ধ ও বিচ্ছেদের সূত্রসন্ধান নিয়ে।
 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড