• শুক্রবার, ০৫ জুন ২০২০, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বুটেক্সের ‘অটো’ রোগ!

  মুহাম্মাদ আব্দুল্লাহ আইএআর, বুটেক্স প্রতিনিধি

১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩:৫৯
বুটেক্স
বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় (ছবি : সংগৃহীত)

অটো শব্দটা শুনলে অনেকের চোখে ভেসে ওঠে তিন চাকার গাড়ি কিংবা স্বয়ংক্রিয়ভাবে চলা কোনো ডিভাইসের কথা। কিন্তু, বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুটেক্স) শিক্ষার্থীদের কাছে এর অর্থ একেবারেই ভিন্ন। অমুক দিন তমুক বিভাগ কিংবা ব্যাচের ‘অটো’ মানে হলো, ওইদিন শিক্ষার্থীরা অঘোষিত ছুটি কাটাবে। যা সম্পূর্ণ আনঅফিশিয়াল।

আনঅফিশিয়াল হলেও দুইপক্ষের সমঝোতায় অটো হয় এখানে। এক পক্ষ ক্লাসের একাংশ কিংবা সকল শিক্ষার্থীর পক্ষে ক্লাস রিপ্রেজেনটেটিভ, অন্য পক্ষ কোর্সের জন্য মনোনীত শিক্ষকগণ। ফলশ্রুতিতে সেমিস্টারের শুরুর দিকে ক্লাস তেমন হয় না বলে সেমিস্টারের শেষের দিকে ক্লাসের চাপ বাড়ে।

কখনও কখনও অটো একদিনের জায়গায় সপ্তাহ জুড়ে বিস্তার করে। এ ক্ষেত্রে অধিক কার্যকরী ভূমিকা পালন করে ঈদ, পূজা কিংবা বড় কোনো উপলক্ষ। অনেক সময় দেখা যায়, ছুটি শুরু হওয়ার আগে এক সপ্তাহ অটো এবং পরের এক সপ্তাহও অটো! যার ফলে ছুটির আগে পরে দুই সপ্তাহ অনেক বিভাগে কোনো ক্লাস হয় না।

অটো শুধু যে শিক্ষার্থী ও ক্লাস ফাঁকি দিতে ভালো লাগা হাতেগোনা শিক্ষকদের জন্য হয়, বিষয়টি পুরোপুরি তা না। সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন বলে হাতেগোনা কিছু শিক্ষকের কারণেও মাঝে মাঝে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়। বিষয়টি এরকম, একজন অধ্যাপক কিংবা প্রভাষক সিদ্ধান্ত নিলেন যে অমুক দিন ক্লাস টেস্ট নেবেন। এবং তিনি আগেই বলে দিলেন, ছুটির পর এ দিন পরীক্ষা হবে। আর কেউ অনুপস্থিত থাকলে পরবর্তীকালে তার পরীক্ষা নেওয়া হবে না। দেখা গেল, সত্য সত্যই অনেকে চেষ্টা করে বাসের বা ট্রেনের টিকেট পায় নি কিংবা অসুস্থতা বা অন্য কোনো যৌক্তিক কারণে পরীক্ষাটা দিতে পারবে না।

স্যার যেহেতু নির্ধারিত সময়ে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেবেন না, তাই আবার অটোর আহ্বান কিংবা অনুরোধ আসে। ‘বিপদে বন্ধুর পরিচয়’ বলে আবার অটোর জন্য শুরু হয় দৌড়ঝাঁপ।

আরও পড়ুন : যবিপ্রবিতে ন্যানো প্রযুক্তির ব্যবহার বিষয়ক সেমিনার

বুটেক্স বর্তমানে বাংলাদেশের একমাত্র টেক্সটাইল বিশেষায়িত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। আয়তনের দিক থেকে দেশের সবচেয়ে ছোট পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এটি। পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা ও আশানুরূপ বড় পরিসরের ক্যাম্পাস না থাকা সত্ত্বেও টেক্সটাইল সেক্টরের উন্নয়নে শামিল হতে হাজির হন দেশ সেরা মেধাবী শিক্ষার্থীরা। চার বছরে স্নাতক শেষ হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে আসলেও অটোসহ বিভিন্ন কারণে ৩ মাসের সেশনজটে ভুগছে বুটেক্স। এ নিয়ে অনেকেই হতাশ। তবে শিক্ষার্থীদের আশা শিগগিরই এই অটো সমস্যা দূর হয়ে শিক্ষা কার্যক্রম স্বাভাবিক পর্যায়ে ফিরে আসবে।

ওডি/এমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড