• রোববার, ১৪ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মিছিল-শোডাউনে মনোনয়নপত্র জমা, উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধিও

  শুভংকর পোদ্দার, হরিরামপুর (মানিকগঞ্জ)

০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২০:৫৪
শোডাউন
নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘন করে শোডাউন নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার একটি মুহূর্ত। ছবি : অধিকার

মানিকগঞ্জের হরিরামপুরে নির্বাচনি আচরণবিধি অমান্য করে ইউপি নির্বাচনের মনোনয়ন ফরম জমা দিচ্ছেন প্রার্থীরা। গত কয়েকদিনে বেশ কয়েকজন চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনি আচরণবিধি অমান্য করে মিছিল ছাড়াও মোটরসাইকেল ও হ্যালোবাইকযোগে (স্থানীয় যান) শোডাউন করে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ওই সময় বেশিরভাগের মুখেই ছিল না মাস্ক। পাশাপাশি উপেক্ষিত হয়েছে স্বাস্থ্যবিধি।

বুধবার (৮ ডিসেম্বর) সরজমিনেও অন্তত পাঁচজন চেয়ারম্যান প্রার্থীকে আচরণবিধি ভেঙে স্লোগানসহ মিছিল ও মোটরসাইকেল শোডাউন করে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসারের নিকট মনোনয়ন ফরম জমা দিতে দেখা গেছে। তারা প্রত্যেকেই প্রায় দেড় থেকে তিন শতাধিক লোক নিয়ে মিছিল ও মোটরসাইকেল শোডাউন করে মনোনয়ন ফরম জমা দেন।

তবে নির্বাচন আচরণবিধি অনুযায়ী, কোনো প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় মিছিল-সমাবেশ ও মহড়া করতে পারবেন না। এ ছাড়া সর্বোচ্চ পাঁচজনকে সাথে নিয়ে প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন। পাশাপাশি নির্বাচনপূর্ব সময়ে প্রার্থী কোনো প্রকার মিছিল কিংবা শোডাউনও করতে পারবেন না।

এ দিকে, আচরণবিধি লঙ্ঘন করে মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) রিটার্নিং অফিসারের নিকট মনোনয়নপত্র জমা দেন বলড়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী তারিকুল ইসলাম তারেক বলেন। এ ব্যাপারে অধিকারকে তিনি বলেন, ‘আমি শুধু প্রস্তাবকারী এবং সমর্থনকারীকে সাথে নিয়ে গিয়েছিলাম। তবে ইচ্ছে করেই প্রায় একশত মোটরসাইকেল এবং ১১টি হ্যালোবাইক ভর্তি করে লোক গিয়েছিল আমার সাথে।’

অন্যদিকে, বুধবার প্রায় দুই শতাধিক কর্মী-সমর্থক নিয়ে মিছিল করে এবং হ্যান্ডমাইকে বিভিন্ন স্লোগান দিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন বলড়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী খোরশেদ আলম খান। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘জনগণ আমাকে ভালোবেসে স্বতঃস্ফূর্তভাবে আমার সাথে গিয়েছে। তারাই স্লোগান দিয়েছে।’

এ ছাড়া চালা ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী সামছুল আলম বিশ্বাস (শিরু) বিশাল মিছিল নিয়ে গিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন। তার দাবি- ‘আমার সাথে প্রায় ৩০০ জন লোক ছিলো। আমাকে ভালোবেসে সবাই আমার সাথে গিয়েছে।’

এ দিকে, গালা ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী সাব্বির হোসেনও মোটরসাইকেল শোডাউন ও মিছিল নিয়ে গিয়ে মনোনয়ন ফরম জমা দেন। তিনিও একই দাবি করে বলেন, ‘আমার সাথে প্রায় দুই শতাধিক লোক ছিলো। তারা আমাকে ভালোবেসে গিয়েছে।’

অন্যদিকে, বাল্লা ইউনিয়নের প্রার্থী কাজী রেজা মোটরসাইকেল শোডাউন করে মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তার এক সমর্থক অধিকারকে জানান, ‘তারা প্রায় পাঁচশত লোক কাজী রেজার সাথে এসেছেন। সাথে প্রায় ১৫০টি মোটরসাইকেল ছিল।’ তবে বিষয়টিতে প্রার্থী কাজী রেজার বক্তব্য জানতে তার মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

সার্বিক বিষয়ে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ কামরুজ্জামান অধিকারকে বলেন, ‘এ বিষয়ে ওসিকে জানানো হয়েছে। তিনি ব্যবস্থা নেবেন। ওসিকে জানানোর পর পুলিশ এসেছিল। পুলিশ হাজিরা দিয়ে গেছে আমার এখানে। বলেছে, বিষয়টি আমরা দেখছি।’

আরও পড়ুন : মানবতার দেয়ালের কাপড় সরিয়ে নৌকার ব্যানার

এ ব্যাপারে বক্তব্যের জন্য থানায় গিয়ে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ মিজানুর ইসলামকে পাওয়া যায়নি। এ সময় তার দাফতরিক মুঠোফোন নম্বরে একাধিকবার কল দিলেও বন্ধ পাওয়া যায়। তবে, মুঠোফোনে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. তৌহিদুল ইসলাম অধিকারকে বলেন, ‘ওসি স্যারের সাথে নির্বাচন কর্মকর্তার কথা হতে পারে। বিষয়টি আমার জানা নেই। কেউ লিখিত অভিযোগ দিলে আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পারি।’

ওডি/নিলয়

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড