• বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০২০, ১৯ চৈত্র ১৪২৬  |   ৩৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

রোদেলা হত্যার ৩ বছরেও গ্রেপ্তার হয়নি ঘাতক স্বামী

  ফরিদপুর প্রতিনিধি

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৪:৩১
রোদেলা
নিহত কলেজছাত্রী সাজিয়া আফরিন রোদেলা ও ঘাতক স্বামী সোহানুর রহমান সোহন (ছবি : দৈনিক অধিকার)

ফরিদপুরে বিয়ের মাত্র দেড় মাস না যেতেই স্বামীর বাড়িতে নির্যাতনে নিহত কলেজছাত্রী সাজিয়া আফরিন রোদেলা (১৮) হত্যাকাণ্ডের তিন বছরেও গ্রেপ্তার হয়নি অভিযুক্ত স্বামী সোহানুর রহমান সোহন (৩১)। প্রধান এই আসামির অনুপস্থিতিতে আদালতে রোদেলা হত্যার বিচার কার্যক্রমও এখনো শুরু হয়নি। 

২০১৭ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি নিহত হন শহরের আলিপুর খাঁ মহল্লার শওকত হোসেন খান ওরফে শকার একমাত্র মেয়ে রোদেলা। সে সরকারি সারদা সুন্দরী মহিলা কলেজে ইংরেজিতে অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিল।

২০১৭ সালের ১৩ জানুয়ারি গোয়ালচামট এলাকার নতুন বাজার মহল্লার জনৈক মমিনুর রহমান সেন্টুর ছেলে বিদেশ প্রবাসী সোহানুর রহমান সোহানের সঙ্গে রোদেলার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই রোদেলাকে উঠতে-বসতে নানা কারণে মানসিক নির্যাতন করা হতো বলে তার পরিবার থেকে অভিযোগ করা হয়। একপর্যায়ে স্বামী যৌতুকের জন্য তার ওপর শারীরিক নির্যাতনও চালায়। 

মামলা সূত্রে জানা যায়, বিয়ের পর ১০ লাখ টাকা যৌতুকের জন্য রোদেলাকে চাপ দিতে থাকে তার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা। এজন্য তাকে নানাভাবে মানসিক নির্যাতন করত। একপর্যায়ে রাতের বেলা স্বামী, শাশুড়ি ও ননদ মিলে পরিকল্পিতভাবে শ্বাসরোধ করে রোদেলাকে হত্যা করে। ফরিদপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে বর্তমানে এ মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে। 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার এসআই গাফফার জানান, রোদেলার মৃতদেহের ভিসেরা রিপোর্টে শ্বাসরোধ করে হত্যার আলামত পাওয়া গেছে। ব্যাপক তদন্ত শেষে স্বামী সোহানসহ আটজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট প্রদান করা হয়েছে। 

মামলার অন্য আসামিরা হলো- রোদেলার ননদ সুমি বেগম (৪০), শাশুড়ি আনোয়ারা বেগম (৫৫), ভাসুর মো. সুমন (৩৬), ভাসুরের স্ত্রী রেখা বেগম (২৫), শ্বশুর মোমিনুর রহমান সেন্টু (৬৫), ননদের স্বামী মো. হাফিজ (৪৫), ও সোহানের মামাতো ভাই সাজিদ (৪২)। এ মামলায় ১৭ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে। 

এ ব্যাপারে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল, ফরিদপুরের সরকারি কৌঁসুলি (এপিপি) স্বপন কুমার পাল বলেন, প্রধান আসামি রোদেলার স্বামী ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে। তাকে আদালতে হাজির হওয়ার জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হবে। এরপর মামলাটির বিচারিক কার্যক্রম দ্রুতই শুরু হবে। 

রোদেলার বাবা শওকত হোসেন খান বলেন, রোদেলাকে নৃশংসভাবে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। হত্যাকাণ্ডকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার অপচেষ্টাও করা হয়। 

তিনি বলেন, গত তিনটি বছর মেয়ের হত্যার বিচারের আশায় আদালতের বারান্দায় ঘুরছি। এখনো রোদেলার ঘাতক স্বামী গ্রেপ্তার হয়নি। মামলাটিকে দীর্ঘায়িত করতে নানাভাবে অপচেষ্টা করছে প্রভাবশালী আসামিরা। আমরা এই হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু বিচার চাই। একই সঙ্গে মামলার প্রধান আসামি সোহানকে গ্রেপ্তারের জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি। 

আরও পড়ুন : ফেনীতে স্বর্ণ প্রতারক চক্রের ৫ সদস্য গ্রেপ্তার

ফরিদপুরের কোতোয়ালি থানার এসআই বেলাল হোসেন বলেন, এ মামলার প্রধান আসামি সোহানুর রহমান সোহানকে গ্রেপ্তারে পুলিশ জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। 

ওডি/এএসএল

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড