• শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

আগামী ৫০ বছর ঢাকা শহরে আওয়ামী লীগের একক রাজনীতি প্রতিষ্ঠিত থাকবে: মন্নাফী

  বিশেষ প্রতিনিধি:

০৪ জুলাই ২০২২, ১৯:৩৯
মন্নাফি
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযাদ্ধা আলহাজ্ব আবু আহমেদ মন্নাফী। ছবি: সম্পাদিত

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ সবসময়ই বাংলাদেশের রাজনীতিতে একটি বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শাখা হিসেবে গুরুত্ব দেওয়া হয় ঢাকা মহানগরকে। বর্তমানে সংগঠনটি ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ শাখায় বিভক্ত। অবিভক্ত ঢাকা মহানগর থেকে বর্তমান পর্যন্ত দীর্ঘদিনে ছিলো সম্মেলনের জট। বছরের পর বছর কোন কমিটি হতো না। সভাপতি সাধারণ সম্পাদক দিয়ে পাড় করেছে সাংগঠনিক কার্যক্রম যা এক যুগের বেশি সময়। ২০১৬ সালের ১০ এপ্রিল ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগকে উত্তর ও দক্ষিণে বিভক্ত করে কমিটি ঘোষণা করা হয়। একই দিন ৪৯টি থানা ও ১০৩টি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। এর ৬ মাস পর ১২ সেপ্টেম্বর দুই ইউনিটের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা হয়। কিন্তু ৬ বছরে থানা ও ওয়ার্ডে পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি। প্রায় ১ হাজার ৪০০ ইউনিটে হয়নি কোনো কমিটি। হানিফ-মায়ার আমলে যে কমিটি হয়েছিল তা দিয়েই চলছিল এসব ইউনিটের সাংগঠনিক কার্যক্রম।ফলে নতুনরা নেতৃত্বে আসার সুযোগ পায়নি।দলের সক্রিয়কর্মী হয়েও পরিচয় দেয়ার মতো ছিল না তাদের কোনো পদ। নেতাকর্মীদের মধ্যে ছিল ক্ষোভ-অভিমান। সাংগঠনিকভাবে সংগঠনও খুব একটা শক্তিশালী ছিল না। সংগঠনকে গতিশীল করতে বিগত (হাসনাত-মুরাদ)কমিটির তেমন কোন গতিশীল কার্যক্রমের উদ্যোগ নেয়নি।

২০১৯ সালের ৩০ নভেম্বর আবু আহমেদ মন্নাফী কে সভাপতি ও হুমায়ুন কবিরকে সাধারণ সম্পাদক করে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ এবং শেখ বজলুর রহমানকে সভাপতি ও এস এম মান্নান কচিকে সাধারণ সম্পাদক করে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়। এর ১ বছর পর ২০২০ সালের ১৯ নভেম্বর পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করে ইউনিট দুটি। বর্তমানে দুই মহানগরীতে থানা ও ওয়ার্ডের সংখ্যা বেড়েছে। থানার সংখ্যা ৫০টি। আর ওয়ার্ডের সংখ্যা ১৩৯টি। আর ইউনিট সংখ্যা ১ হাজার ৪৫২টি। দক্ষিণে ২৪টি থানা, ৭৫টি ওয়ার্ড এবং প্রায় ১১০০টি ইউনিট আছে। উত্তরে ২৬টি থানা, ৬৪টি ওয়ার্ড এবং ৮০২টি ইউনিট আছে। করোনা মহামারি কাটিয়ে ঢাকা মহানগর উত্তর আর দক্ষিণ ইউনিটের সব কমিটি ঢেলে সাজানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। প্রতিটি ইউনিটে সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি করা করা হচ্ছে। কেন্দ্রীয়, মহানগর ও থানা, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগসহ স্থানীয় সংসদ সদস্যরা এসব সম্মেলনে উপস্থিত থাকছেন। সবার মতামতের ভিত্তিতেই কমিটিগুলো করা হচ্ছে।

এ সম্পর্কে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযাদ্ধা আলহাজ্ব আবু আহমেদ মন্নাফী বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ইতিহাসে যা কখন হয়নি তা দলের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার পরামর্শে আমরা করতে সক্ষম হয়েছি। ইউনিট কমিটি সম্মেলনের মাধ্যমে জাতীয়,কেন্দ্রীয় নেতা, স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও সুধী জনদের উপস্থিতিতে উৎসবমুখর পরিবেশে আমরা সুসম্পন্ন করেছি যা আগে কখনো হয়নি। যে ১১০০ টি ইউনিট সম্মেলন সম্পন্ন করলাম সেসকল ইউনিটে ১০ উপদেষ্টা ৩৭ জন কর্মকর্তা সহ মোট ৫১৭০০ জন পদধারী নেতা তৈরি হবে। আগামী ৩০ তারিখের মধ্যে আমাদের ৮ টিমের সাংগঠনিক নেতারা ইউনিট কমিটি গঠনের কাজ সম্পন্ন করে আমাদের কাছে কমিটি জমা দিবেন।

মূলত পুরান ঢাকাটাই দক্ষিণের আওতাধীন। ঢাকা মহানগর দক্ষিণে প্রায় ১১০০ টি ইউনিট আছে।ইতোমধ্যে সম্মেলন সম্পন্ন করা হয়েছে,৩০ তারিখের মধ্যে কমিটি গঠন শেষ করা হবে। প্রায় ১১০০ টি ইউনিটের প্রত্যেকটিতে ৩৭ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হবে। এতে মোট পদ পেয়েছেন ২৪ হাজার ৫০ জন দলীয় কর্মী। এছাড়া ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের থানা-ওয়ার্ডে পদ পাবেন আরো সাড়ে ১২ হাজার কর্মী। নির্ভরযোগ্যসূত্র নিশ্চিত করেছে জুলাই থেকে ২৪টি থানা ও ৭৫টি ওয়ার্ডে সম্মেলন শুরু করবে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ। সেপ্টেম্বরের মধ্যে এসব থানা ও ওয়ার্ড ইউনিটের সম্মেলন শেষ করার টার্গেট নিয়েছে আওয়ামী লীগ।সম্মেলনে প্রার্থীদের তালিকা দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পাঠানো হবে। তার সম্মতি পেলেই পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হবে। মহানগরীর প্রতিটি থানা কমিটি ৭১ সদস্যের। দক্ষিণের ২৪টি থানায় পদ পাবেন ১ হাজার ৭০৪ জন দলীয় কর্মী। আর ওয়ার্ড কমিটির সদস্য সংখ্যা হবে ৬৯ জন। ৭৫টি ওয়ার্ডে দলীয় পদ পাবেন ৫ হাজার ১৭৫ জন। সেপ্টেম্বরে সব সম্মেলন শেষ করতে পারলে ওই মাসের শেষ অথবা অক্টোবর মাসে নতুন কমিটি পাবে মহানগর দক্ষিণের থানা ও ওয়ার্ড।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণের ৮টি নির্বাচনী আসনে মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাদের সমন্বয়ে ৮টি সাংগঠনিক টিম গঠন করা হয়েছে। সংগঠন গোছাতে রীতিমতো মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন সাংগঠনিক টিম। দফায় দফায় স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে বসে সম্মেলন আয়োজনের কাজ করছে সাংগঠনিক টিমের নেতৃবৃন্দ। পদপ্রত্যাশীদের জীবন বৃত্তান্ত যাচাইবাছাই করে কমিটি গঠনের কাজ এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে । এসব টিমের নেতৃত্বে যারা আছেন, তারা ওই এলাকার সংসদ সদস্য, থানা ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারন সম্পাদক ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলরদের সমন্বয়ে ইউনিট কমিটিগুলো করা হয়েছে।

সাংগঠনিক টিমের কার্যক্রমের গতিশীলতা নিয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এবং ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক টিম ঢাকা -৫ (ডেমরা- যাত্রাবাড়ি) এর অন্যতম সদস্য এফ এম শরিফুল ইসলাম শরিফ বলেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ ইউনিট ফলে যেকোনো কমিটি করা একটা বড় চ্যালেঞ্জ। সততা ও দক্ষতার সঙ্গে সংগঠনের দায়িত্বশীল নেতৃবৃন্দ কাজটি করে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী আরও বলেন, আমাদের একঝাঁক বিজ্ঞ এবং অভিজ্ঞ সাবেক ছাত্রনেতারা ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে রয়েছে যাদের দিয়ে সাংগঠনিক টিম সাজিয়েছি। তারা দায়িত্ব প্রাপ্ত এলাকায় প্রকৃত মুজিব আদর্শের সৈনিক খুঁজে খুঁজে নেতৃত্বে নিয়ে আসছে সাংগঠনিক টিম ফলে তারা আগামী ৫০ বছর ঢাকা শহরের একক আওয়ামী লীগের রাজনীতি প্রতিষ্ঠিত করবে। তবে এর মধ্যে ও যদি জাতীয়তাবাদি শক্তি,যুদ্ধাপরাধীদের আত্নীয় স্বজন,মাদকের সাথে জড়িত চাঁদা বাজ ও দখলবাজি করে এমন কেউ এসে থাকে তাদেরকে অভিযোগ সাপেক্ষে দল থেকে বহিস্কার করা হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড