• বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

দুর্ঘটনা নয় নিছক হত্যা!

  মাহবুব নাহিদ

১৭ আগস্ট ২০২২, ১৫:৫৫
মাহবুব নাহিদ
মাহবুব নাহিদ

সব ঘটনাকে দুর্ঘটনা বলে চালিয়ে দেওয়া যায় না। কিছু ঘটনা জেনেশুনে ঘটে কিছু আবার না বুঝে ঘটে কিছু ঘটে অবহেলায়, অসচেতনতায়! আমাদের আশেপাশে প্রতিনিয়ত কত দুর্ঘটনাই তো ঘটে। আমরা কিছু কিছু ঘটনা নিয়ে খুব আলোচনা করি আবার কিছু কিছু ঘটনা নিয়ে কিছুদিন হাহাকার করি আবার ক্রমেই তা ভুলে যাই। আসলে একটার পর একটা ইস্যু এসে আমাদের সবকিছু ভুলিয়ে দেয়, ভুলে যেতে বাধ্য করে।

এখন কথা হচ্ছে, গতকাল উত্তরায় বিআরটির গার্ডার চাপায় দুমড়েমুচড়ে যায় একটি প্রাইভেট কার। সেখানে প্রাণ হারায় জলজ্যান্ত পাঁচটি মানুষ! সবচেয়ে দুঃখের বিষয় হচ্ছে সেখানে দুইটি শিশুও ছিল। আর ছিলেন এক নবদম্পতি। তাদের বিয়ের বৌভাত সেড়ে ফিরছিলেন তারা! এই দম্পতির আজীবন যে একটা অপ্রাপ্তি একটা হারানোর বেদনা থেকে যাবে তা দূর করতে পারবে না কেউ। বিয়েটা সকল মানুষের কাছেই স্মৃতিবিজড়িত, বিয়ের স্মৃতি মনে করে মানুষ আবেগে জড়ায় কিন্তু তারা তো কোনোদিনই তাদের বিয়ের কথা মনে করে ঠোঁটের কোণে এক চিলতে হাসি আনতে পারবে না বরং বারবার যখন মনে পড়বে তখনই কান্নার ফোয়ারায় ভেসে যাকে, চোখের জলের নদী শুকিয়ে হয়ে যাবে ধুধু মরুভূমি!

এক শিশু প্রাণ হারিয়েছে তার মায়ের কোলে। বাবার কাঁধে সন্তানের লাশ যতটা ভারী মায়ের কোলে সন্তানের লাশও অবশ্যই কম নয়। একটা জায়গায় আমাদের ঐক্যমতে আসতে হবে সেটা হচ্ছে এটা আসলে দুর্ঘটনা কিনা। সেটা বলতে অবশ্যই আইনীভাবে এর সকল দিক যাচাই বাছাই করতে হবে। রাস্তায় যান চলাচল করা অবস্থায় ক্রেন দিয়ে এভাবে গার্ডার সরানোর অনুমতি বা নিয়ম আছে কিনা তা জানা দরকার। আর একটা বিষয় জানা দরকার যে এই ক্রেনের ৪০-৪৫ টনের গার্ডার তোলার সামর্থ্য আছে কিনা তাও জেনে দেখতে হবে। তবে এই ধরনের ঘটনা কিন্তু এর আগেও ঘটেছে। তাই বিষয়ে সকলের সচেতন থাকা উচিত ছিল। দিনের বেলায় এমন কাজ করাটা মোটেও সমীচীন হয়নি।

এই ঘটনাকে ইসলাম ধর্মও কঠিনভাবে শাস্তি দেওয়ার কথা বলেছে। এখানে রক্তের দাম দেওয়ার কথা বলা হয়েছে যা প্রতি জনে ১ কোটি টাকার মতোও দেওয়া লাগতে পারে। কিন্তু দেশ ইসলামিক নিয়মে পরিচালিত হয় না, তবে প্রচলিত আইনের আওতায় এনে যতটুকু সম্ভব পরিবারের পাশে। হারিয়ে যাওয়া মানুষ তো আর ফিরে আসবে না। জীবন ফিরিয়ে না দিতে পারলে এর ক্ষতিপূরণ বাবদ ভালো অংকের টাকা নিতে হবে। আর যারা গাফেলতি করেছে তাদেরকেও শাস্তির আওতায় আনতে হবে।

শাস্তি না দিলে দিনদিন এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতেই থাকবে। একে একে হারাতে থাকবে অনেক লাশ! এত লাশের বোঝা কী বইতে পারবে বাংলাদেশ? এভাবে দিনে দুপুরে আমাদের দেশীয় সম্পদেই চাপা পড়ে আমাদের কোনো ভাই কিংবা বোন অকাতরে জীবন হারাবে এটা কাম্য নয়। অবশ্যই যেসব জায়গায় এই ধরনের ঘটনা যেন আর কোথাও না ঘটে সেটার দায় আমাদের সবার।

চলমান আলোচিত ঘটনা বা দৃষ্টি আকর্ষণযোগ্য সমসাময়িক বিষয়ে আপনার মতামত আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তাই, সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড