• বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

কাশ্মীরের ৫০ হাজার ল্যান্ডলাইন চালু, আংশিকভাবে সচল টুজি ইন্টারনেট

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৭ আগস্ট ২০১৯, ১৩:২২
জম্মু-কাশ্মীর
ছবি : নিউজ১৮

অবরুদ্ধ করে বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেওয়ার দুই সপ্তাহ পরে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরতে শুরু করেছে ভারত শাসিত জম্মু ও কাশ্মীর। শনিবার (১৭ আগস্ট) সকালে কাশ্মীর উপত্যকায় ৫০ হাজারেরও বেশি ল্যান্ডলাইন সংযোগসহ পুনরুদ্ধার করা হয়েছে বলে সেখানকার কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে জানায় ভারতের সংবাদ সংস্থা পিটিআই।

জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদার অবলুপ্তির বিষয়ে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকারের ঐতিহাসিক পদক্ষেপের আগেই জম্মু ও কাশ্মীরে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়, তার প্রায় দুই সপ্তাহ পরে কাশ্মীরের ফোন লাইনগুলো আংশিকভাবে চালু হলো। এর আগে কিছুটা স্বাভাবিক হয় জম্মুর পরিস্থিতি। কাশ্মীরে প্রায় শতাধিক টেলিফোন এক্সচেঞ্জের মধ্যে সতেরোটি চালু করা হয়েছে শনিবার। 

মধ্য কাশ্মীরের বদগাম, সোনামার্গ এবং মণিগাম অঞ্চলে ল্যান্ডলাইন পরিষেবাগুলো পুনরুদ্ধার করা হয়েছে। উত্তর কাশ্মীরের গুরেজ, টাঙ্গমার্গ, উরি কেরান কর্নাহ এবং তাংধর অঞ্চলে পরিষেবাগুলো পুনরুদ্ধার করা হয়েছে। শ্রীনগরের, নাগরিকদের বসবাসের স্থান, ক্যান্টনমেন্ট এলাকা এবং বিমানবন্দর এলাকায় ল্যান্ডলাইনগুলো ফের চালু হয়েছে।

ইতোমধ্যে জম্মু অঞ্চলের পাঁচটি জেলায় মোবাইল ইন্টারনেট সংযোগ পুনরুদ্ধার করা হয়েছে। এই অঞ্চলের জম্মু, রিয়াসি, সাম্বা, কাঠুয়া এবং উধমপুর জেলাগুলোতে টু জি মোবাইল ইন্টারনেট পরিষেবা ফিরে এসেছে।

জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদার অবলুপ্তির বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের ঐতিহাসিক পদক্ষেপের আগেই গত ৪ অগাস্ট থেকে জম্মু ও কাশ্মীরে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। তখন থেকেই অভূতপূর্ব সুরক্ষার আওতায় রয়েছে গোটা উপত্যকা অঞ্চল। কেন্দ্রীয় সরকার ঘোষণা করে যে ওই রাজ্যের বিশেষ মর্যাদা অবলুপ্তি করে রাজ্যটিকে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করা হবে।

বিধিনিষেধ কমিয়ে আনার জন্য প্রশাসনের নেওয়া পদক্ষেপগুলোর ফলে রাজ্যের সরকারি দপ্তরগুলো ধীরে ধীরে চালু হচ্ছে। শুক্রবার মুখ্য সচিব বিভিআর সুব্রহ্মণ্যম জানিয়েছেন, আগামী সপ্তাহ থেকেই সেখানকার স্কুলগুলো 'অঞ্চল অনুযায়ী' চালু হবে এবং পর্যায়ক্রমে টেলিফোন পরিষেবাও পুনরুদ্ধার করা হবে। শুক্রবার দেশটির সুপ্রিম কোর্টকে কেন্দ্র জানায় যে প্রতিদিন জম্মু ও কাশ্মীরের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করা হচ্ছে।

এর আগে নিরাপত্তা বজায় রাখার স্বার্থে কাশ্মীর উপত্যকায় ফোন পরিষেবা এবং ইন্টারনেট সংযোগগুলো স্থগিত করা হয় এবং কারফিউয়ের মতো বিধিনিষেধ চালু করা হয়। কাশ্মীর উপত্যকার প্রায় ৪০০ জন রাজনৈতিক নেতা এখনো আটক রয়েছেন। পাশাপাশি দুই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী- মেহবুবা মুফতি ও ওমর আবদুল্লাকে গ্রেফতারও করা হয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড