• শনিবার, ২০ আগস্ট ২০২২, ৫ ভাদ্র ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

আমেরিকাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি, নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও রাশিয়ান তেলের চাহিদা তুঙ্গে

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০১ জুলাই ২০২২, ২০:১২
রাশিয়া তেল

ইউক্রেন হামলার পর আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন-সহ অন্য শক্তিশালী দেশের রাষ্ট্রপ্রধানেরা মিলে পুতিনের বিরুদ্ধে নানা পদক্ষেপ নিয়েছিল। তাদের মধ্যে একটি ছিল রাশিয়া থেকে তেল আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা। কিন্তু সেই ফন্দি মুখ থুবড়ে পড়েছে বলেই দাবি একাধিক আন্তর্জাতিক সংবাদসংস্থার।

রাশিয়াকে শাস্তি দিতে সে দেশ থেকে পণ্য আমদানি করায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল। আমদানি বন্ধও করেছিল বহু দেশ। তারপরও রাশিয়ার জ্বালানি বিক্রি বেড়েছে বলে দাবি করেছে একাধিক সংবাদমাধ্যম।

অপরিশোধিত তেল উৎপাদনে রাশিয়া বিশ্বে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। যুদ্ধের আগে এই তেল রফতানিতেও তৃতীয় স্থানে ছিল রাশিয়া। একটি বেসরকারি অর্থনৈতিক নজরদার সংস্থা ভিজ্যুয়াল ক্যাপিটালিস্ট ডট কমের সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, রাশিয়া এই তেল রফতানি করেই সবচেয়ে বেশি আয় করেছে ইউক্রেন আক্রমণের পর থেকে। অপরিশোধিত তেল-সহ অন্যান্য জীবাশ্ম জ্বালানির রফতানিও বেড়েছে। ইউক্রেনে হামলার পরবর্তী ১০০ দিনে ৯ হাজার ৭৭০ কোটি ডলারের জীবাশ্ম জ্বালানি রফতানি করেছে রাশিয়া। অর্থাৎ গড়ে প্রতি দিন প্রায় ৯৮ কোটি ডলারের জ্বালানি অন্য দেশে রফতানি করেছে পুতিনের দেশ।

রাশিয়া থেকে জ্বালানি আমদানি করার অর্থ যেখানে পরোক্ষে আমেরিকার বিরোধিতা বোঝায় এবং একই সঙ্গে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেনের প্রতি সহমর্মিতা না জানানোর প্রতি ইঙ্গিত করে, তা স্পষ্ট করে দেওয়ার পরও সেই নিষেধাজ্ঞা মানছে না কিছু দেশ। এই তালিকায় সবার আগে রয়েছে চিন, তারপরেই জার্মানি এবং ভারত। রয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত দেশগুলিও।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত দেশগুলি বরাবরই তাদের প্রাকৃতিক গ্যাস আমদানির জন্য মূলত রাশিয়ার উপর নির্ভর করেছে। এই দেশগুলির প্রয়োজনের ৪১ শতাংশ প্রাকৃতিক গ্যাস আমদানি করা হয় রাশিয়া থেকেই।

বিস্ময়ের কথা হল, এই আমদানিকারী দেশগুলির তালিকায় রয়েছে জার্মানি, ইতালি, নেদারল্যান্ডসের মতো বহু নেটোভুক্ত দেশের নাম। রাশিয়ার সঙ্গে লড়ার জন্য যাদের সাহায্যপ্রার্থী ইউক্রেন। তবে এই সব দেশকে আমদানিতে টেক্কা দিয়েছে চিন।মে মাসে রাশিয়া থেকে গড়ে প্রতি দিন ২০ লক্ষ ব্যারেল তেল আমদানি করেছে চিন। যা আগের বছরের তুলনায় ৫৫ শতাংশ বেশি।

তবে সবাই যে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করেছে, তা নয়। রাশিয়া থেকে অপরিশোধিত তেল আমদানি করা পুরোপুরি বন্ধ করে দিয়েছে আমেরিকা এবং সুইডেন। মে মাসে তাদের আমদানি ১০০ শতাংশ থেকে ৯৯ শতাংশ পর্যন্ত কমানো হয়েছে। আমদানি অনেকটাই কমিয়েছে লিথুয়ানিয়া, মিশর, স্পেন, ফিনল্যান্ড, পোল্যান্ড, এস্তোনিয়া এবং জাপানের মতো দেশও।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড