• সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ২৯ চৈত্র ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

চীনে মার্কিন দূতাবাসের টুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধ

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২১ জানুয়ারি ২০২১, ১৪:৩০
চীনে মার্কিন দূতাবাসের টুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধ
চীনে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাস (ছবি : সিনহুয়া)

এশিয়ার পরাশক্তি চীনে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাসের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে টুইটার কর্তৃপক্ষ। জিনজিয়াং প্রদেশের উইঘুর মুসলিমদের প্রতি চীনের নীতিকে সমর্থন করে দূতাবাস একটি পোস্ট দেওয়ায় টুইটার এই পদক্ষেপ নেয়। খবর আল-জাজিরার।

চলতি মাসে দূতাবাস একটি টুইট করে যেখানে চীনের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পত্রিকা চায়না ডেইলির বরাতে বলা হয়, উইঘুরের নারীরা এখন আর ‘শিশু তৈরির যন্ত্র’ নয়। টুইটার কর্তৃপক্ষ টুইটটি মুছে দিয়ে সেখানে ‘এটি আর পাওয়া যাচ্ছে না’ উল্লেখ করে একটি লেবেল সেঁটে দিয়েছে।

বিদায় নেওয়ার কয়েক ঘণ্টা আগে ট্রাম্প প্রশাসন চীনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে, জিনজিয়াংয়ে গণহত্যা চালাচ্ছে চীন। এই দাবির পরের দিনই এই চীনের মার্কিন দূতাবাসের বিরুদ্ধে এই পদক্ষেপ নিল টুইটার। নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসনও ট্রাম্প প্রশাসনের এই দাবির পক্ষে সমর্থন জানিয়েছে।

তবে টুইটারের এই নিষেধাজ্ঞার প্রসঙ্গে তাৎক্ষনিকভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি মার্কিন সরকারের নতুন প্রশাসন। এ দিকে ওয়াশিংটনে অবস্থিত চীনা দূতাবাসও টুইটারের এই পদক্ষেপের ব্যাপারে এখনো কোনো মন্তব্য করেনি।

আরও পড়ুন : যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট কে এই বাইডেন?

নিষেধাজ্ঞার প্রসঙ্গে টুইটারের এক মুখপাত্র বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) বলেন, মানবতা বিরোধী আচরণের বিরুদ্ধে আমাদের যে নীতি তা ভঙ্গ করায় আমরা এই পদক্ষেপ নিয়েছি। কোনো গোষ্ঠীর ধর্ম, বংশ, বয়স, অক্ষমতা, অসুস্থতা, জাতীয়তা, বর্ণ বা জাতিগত উৎসের কারণে তাদের প্রতি মানবতা বিরোধী আচরণের বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান।

চীনে টুইটার ব্যবহার অনেক আগে থেকেই বন্ধ। তবে চীনা কূটনীতিক ও রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম এই প্লাটফর্মটি প্রচুর ব্যবহার করে থাকে। চীনে ‘ওয়েইবো’ নামে টুইটারের মতোই একটি মাইক্রোব্লগিং ওয়েবসাইট আছে যেখানে ৪০ কোটিরও বেশি সক্রিয় ব্যবহারকারী রয়েছে। তবে সাইটটি রাষ্ট্রের কঠোর পর্যবেক্ষণে থাকে।

আরও পড়ুন : এক নজরে ডোনাল্ড ট্রাম্পের শাসনামল

উইঘুরের মুসলিমদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ বরাবরই অস্বীকার করে আসছে চীন। জাতিসংঘের তরফ থেকে বলে হয়েছে, অন্তত ১০ লাখ উইঘুর মুসলিম ও অন্যান্য মুসলিমদের ক্যাম্পে বন্দি করে রাখা হয়েছে। তবে ক্যাম্পগুলোর অস্তিত্ব স্বীকার করে চীনের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, চরমপন্থা ঠেকাতে সেখানে ‘কারিগরি প্রশিক্ষণের’ দরকার রয়েছে।

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড