• বুধবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২২, ১২ মাঘ ১৪২৮  |   ২০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

নিজ নামে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়েই অবহেলিত বেগম রোকেয়া

  আবু সাঈদ জনি, বেরোবি প্রতিনিধি

০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:৫৩
বেরোবি
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (ফাইল ছবি)

বাংলার নারী জাগরণের অগ্রদূত বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন। তার স্বপ্ন ছিল সমাজে নারী-পুরুষ সমান মর্যাদা আর অধিকার নিয়ে বাঁচবে। সারা জীবন তিনি তার সেই স্বপ্নের কথা বলে গেছেন, লিখে গেছেন তার গল্প-উপন্যাস-প্রবন্ধগুলোতে। যা আজও দিকনির্দেশনা হিসেবে সামনে রয়েছে। বেগম রোকেয়ার জীবন আচরণ ও নারী শিক্ষার প্রসারে তার কাজ স্মরণীয়। তিনি এই লড়াই চালিয়ে গেছেন আমৃত্যু।

কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রায় ১৪ বছর পেরিয়ে গেলেও তার নামে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়েই তিনি অবহেলিত। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নেই বেগম রোকেয়ার কোনো স্মৃতি চিহ্ন, নেই দৃষ্টিনন্দন ম্যুরাল বা প্রতিকৃতি, এমনকি নেই রোকেয়া বিষয়ক চর্চার কোনো সুব্যবস্থা।

জানা যায়, ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত রংপুর বিশ্ববিদ্যালয় পরবর্তীতে ২০০৯ সালে বেগম রোকেয়ার নামকরণে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় করা হয়। তবে প্রতিষ্ঠাকালীন থেকে নানান কারণেই এই বিশ্ববিদ্যালয়ে কদর নেই ‘রোকেয়ার’। অনেকটা নামেই কেবল বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়।

৯ ডিসেম্বর ‘রোকেয়া দিবস’ আসলেই নামমাত্র র‌্যালি এবং আলোচনা সভাতেই সীমাবদ্ধ থাকে সকল কার্যক্রম। তার আদর্শ চর্চার বিষয়ে তেমন গুরুত্ব ও ব্যবস্থা নেই।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও রোকেয়া স্টাডিজ নামে সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. আব্দুল জলিল মিয়ার আমলে একটি ১০০ নম্বরের পাঠ্য বিষয় প্রতিটি বিভাগের শিক্ষার্থীদের পড়ার জন্য বাধ্যতামূলক করে, যা সিন্ডিকেট সভায় গৃহীত হয়।

কিন্তু তৎকালীন উপাচার্য দুর্নীতির দায়ে অপসারিত হওয়ার পর বিষয়টি চালুর কোনো পদক্ষেপই গ্রহণ করা হয়নি। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. একে এম নূর-উন-নবীর চার বছরের মেয়াদে রোকেয়া স্টাডিজ চালুর বিষয়ে কোনও উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ উপাচার্য হিসেবে অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর যোগদানের এক বছরের মাথায় উপাচার্যের সভাপতিত্বে ডিনস কমিটির সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১টি বিভাগের সকল শিক্ষার্থীর জন্য এবং ২০১৭-১৮ সেশনে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের দ্বিতীয় সেমিস্টার থেকে এই কোর্সটি পড়ানোর জন্য ননক্রেডিট এবং বাধ্যতামূলক ‘রোকেয়া স্টাডিজ’ কোর্সটি ক্লাসে পড়ানোর এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হলেও এখন অবধি তা বাস্তবায়ন হয়নি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হাসিবুর রশিদ বলেন, ক্যাম্পাসে খুব দ্রুত বেগম রোকেয়ার ম্যুরাল বা প্রতিকৃতি স্থাপন করা হবে। এবং প্রতিবছর রোকেয়া দিবসে বেগম রোকেয়ার জীবনী নিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, লেখক এবং সাংবাদিকদের লেখা প্রকাশ করা হবে।

ওডি/নিমি

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড