• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কেন পড়বেন লোকপ্রশাসন?

  আহমেদ ইউসুফ, কুবি প্রতিনিধি

০১ নভেম্বর ২০১৯, ১৪:২৫
শোকপ্রশাসন
ছবি : প্রতীকী (ইনসেটে ড. মশিউর রহমান)

ইতিহাস, বিজ্ঞান, সাহিত্য, প্রকৌশল, কত রকম সাবজেক্ট রয়েছে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে। আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোও চালু করছে নতুন নতুন কোর্স। কিন্তু এতসব বিষয়ের মধ্যেও শিক্ষার্থীরা তাদের ভবিষ্যত নির্ধারণে বিশ্ববিদ্যালয়ে উত্তীর্ণ হওয়ার পরে বিষয় নির্বাচনে দ্বিধাদ্বন্দ্বে পড়তে দেখা যায়।

আবার কখনো মেধাতালিকার প্রথম দিকে থাকা সত্ত্বেও পছন্দের বিষয় সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণার অভাবে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে ব্যর্থ হতে হন। তবে ইদানিংকালে শিক্ষার্থীদের মধ্যে লোকপ্রশাসন বিষয়ে পড়বার আগ্রহ লক্ষ করা যাচ্ছে।

তাই সমাগত বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা পরবর্তী যে সকল শিক্ষার্থীরা লোকপ্রশাসন বিষয়ে পড়তে আগ্রহী তাদের ভোগান্তি লাঘব করতে লোক প্রশাসন বিষয় সম্পর্কে দৈনিক অধিকারের সঙ্গে কথা বলেছেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) লোকপ্রশাসন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমান। জানিয়েছেন কেন লোক প্রশাসন বিষয়ে পড়বেন? ভবিষ্যৎ নির্ধারণে কতটুকু আধুনিক এই বিষয়টি। সর্বোপরি এই বিষয়ে পড়তে গেলে কীভাবে পড়লে বহির্বিশ্বে আপনি নিজেকে পাল্লা দেওয়ার জন্য তৈরি করে নিতে পারবেন।

শিক্ষার্থীদের লোকপ্রশাসন বিষয়কে পছন্দ করার কারণ কী?

ড. মশিউর রহমান : বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ক্ষেত্রে বেশিরভাগই দেখা যায় শিক্ষার্থীরা মেধাতালিকার ভিত্তিতে যে বিষয়টি বরাদ্দ পাচ্ছেন সেটিতে ভর্তি হচ্ছে। তবে কিছু সংখ্যাক শিক্ষার্থী রয়েছেন যারা বিশেষভাবে লোকপ্রশাসন বিষয়ে পড়তে আগ্রহী। এর কারণ মূলত বিশ্বব্যাপী সাবজেক্টটির পরিধি এবং ব্যবহারিক কর্মক্ষেত্র।

কেন শিক্ষার্থীরা লোকপ্রশাসন বিষয়ে পড়বেন?

ড. মশিউর রহমান : লোকপ্রশাসন একটি আধুনিক এবং উচ্চমূল্যের সাবজেক্ট। উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতে কর্মমুখী শিক্ষাব্যবস্থা থাকার ফলে সেখানে শিক্ষার্থীরা হতাশাগ্রস্ত হয় না। বাংলাদেশে সে তুলনায় লোকপ্রশাসন একটি ব্যবহারিক বিষয়। তাই সামঞ্জস্যতার ক্ষেত্রে বহির্বিশ্বে সাবজেক্টটির চাহিদা অনেক বেশি। এছাড়াও বিসিএস পরীক্ষায় বিভিন্ন ক্যাডারগুলোতে লোকপ্রশাসনের ছাত্ররা বিশেষ অগ্রাধিকার পেয়ে থাকেন। কাজেই লোক প্রশাসনে ভর্তি হওয়ার সিদ্ধান্ত বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

আধুনিক বিশ্বে লোকপ্রশাসন কতটুকু সামঞ্জস্যপূর্ণ?

ড. মশিউর রহমান : আধুনিক বিশ্বে নেতৃত্ব একটি বড় দক্ষতার বিষয়। এখানে যার দক্ষতা যত বেশি সে ততটা অগ্রনায়ক। লোকপ্রশাসন এমনই একটি সাবজেক্ট যেখানে এর শিক্ষার্থীরা একইসঙ্গে লিডারশিপ, ব্যবস্থাপনা, কর্মী ব্যবস্থাপনা, অর্থনীতি, সামাজিক বিজ্ঞান, প্রশাসনিক বিভিন্ন বিষয়ে ডিগ্রি নিয়ে থাকেন। তাই এ সকল বিষয়ে তাদের দক্ষতা অসাধারণ। যেটি তাদেরকে বাংলাদেশ কিংবা বহির্বিশ্বে সমুন্নত ক্যারিয়ার গড়তে অধিক সহায়তা করে থাকে।

লোকপ্রশাসনের শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ কী?

ড. মশিউর রহমান : সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে প্রায় প্রতিটি সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে প্রশাসনিক পদ থাকে। ব্যবস্থাপনা বিষয়ে ভালো বেতনের চাকরি থাকে। এছাড়াও গবেষণা সংক্রান্ত কয়েকটি কোর্স থাকায় এ বিভাগের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন গবেষণামূলক প্রতিষ্ঠানেও লোভনীয় সুবিধায় ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ পান। আবার এ সকল প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা লোকপ্রশাসন ব্যাকগ্রাউন্ড হওয়ায় এগিয়ে থাকার সুযোগ পান। এছাড়াও বিসিএস অ্যাডমিন ক্যাডার, পুলিশ ক্যাডারসহ বিভিন্ন ক্যাডারে লোকপ্রশাসনের শিক্ষার্থীরা বিশেষ অগ্রাধিকার পেয়ে থাকেন।

বাংলাদেশে লোক প্রশাসন নিয়ে পড়ে বহির্বিশ্বে মূল্যায়িত হওয়ার উপায় কী?

ড. মশিউর রহমান : উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতে মূল্যায়িত হওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয় জীবনেই বিশেষ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করে আগানো উচিত। এক্ষেত্রে ভাষাগত দক্ষতা, আচরণগত দক্ষতা, সাংগঠনিক দক্ষতাসহ পাঠ্য বহির্ভূত কাজে নিজেকে যুক্ত করা উচিত।

অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের জন্য আপনার পরামর্শ কী?

ড. মশিউর রহমান : অযথা কাজে সময় নষ্ট না করে বরং অ্যাকাডেমিক পড়াশোনার পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সংগঠনগুলোয় যুক্ত থাকা, বিভিন্ন গবেষণামূলক কাজে নিজেকে এখন থেকে যুক্ত করা, নেতৃত্বের দক্ষতা অর্জন করা, ইংলিশ স্পিকিং দক্ষতা অর্জন করা। এ বিষয়গুলোতে নিজেকে যুক্ত করতে পারলে এ বিভাগের শিক্ষার্থীরা সফলতা অর্জনে নিজেকে একধাপ এগিয়ে রাখতে সক্ষম হবেন। এছাড়াও বর্তমানে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে লোকপ্রশাসন বিষয়কে অন্তর্ভুক্তকরণে বিভিন্ন মানববন্ধন, সভা সেমিনার হতে দেখা গেছে। আমি বলব, লোক প্রশাসন বিষয়ের সাবেক শিক্ষার্থী যারা রয়েছেন তারা এ বিষয়ে প্রত্যেকে নিজের জায়গা থেকে এগিয়ে আসলে বড় সফলতা অর্জনের সম্ভাবনা রয়েছে। এতে করে এই বিভাগের শিক্ষার্থীরা শিক্ষা ক্যাডার নিশ্চিতকরণসহ কর্মক্ষেত্রে সম্প্রসারণের সুযোগ পাবেন।

ওডি/আরএআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড