• বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন

সর্বশেষ :

ক্যাসিনোর মালিক যুবলীগ নেতা খালেদসহ আটক ১৪২  ||বিমানের উন্নতির জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টার প্রতিশ্রুতি মোকাব্বিরের ||আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা, প্রতিবাদে ঢাবিতে বিক্ষোভ  ||সৌদিতে হামলার সঙ্গে ইরান জড়িত নয় : জাপান||পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ফোনালাপ, যা বললেন আবদুল মোমেন||ছাত্রদলের কাউন্সিলরদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বসছেন তারেক||হংকংয়ে শান্তি ফেরাতে আবারও সংলাপ চান ক্যারি ল্যাম||বাংলাদেশে মানুষ পাঠানোর ষড়যন্ত্র করছে ভারত : মওদুদ||জাতিসংঘে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বিশ্বের জোরালো ভূমিকা চাইবেন প্রধানমন্ত্রী ||ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে ফিলিস্তিনি নারীর নির্মম মৃত্যু (ভিডিও)

থানায় ধর্ষকের সঙ্গে বিয়ে, ওসি ক্লোজড, এসআই বরখাস্ত

  পাবনা প্রতিনিধি

১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৩:৩০
পাবনা সদর থানা
পাবনা সদর থানার ওসি ওবাইদুল হক (ছবি : দৈনিক অধিকার)

পাবনায় গৃহবধূকে গণধর্ষণ ও থানায় বিয়ের ঘটনায় পাবনা সদর থানার ওসি ওবাইদুল হককে প্রত্যাহার ও এসআই একরামুল হককে বরখাস্ত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) তাদের বিরুদ্ধে এই রায় দেন পুলিশ কর্তৃপক্ষ। এছাড়া এ ঘটনায় পুলিশ আরও দুইজনকে গ্রেফতার করেছে। এ নিয়ে মোট পাঁচ আসামির মধ্যে চারজনকে গ্রেফতার করা হলো। 

পাবনা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইবনে মিজান এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে ক্লোজড করা হয়েছে। এর আগে জেলা পুলিশরে উদ্যোগে ঘটনা তদন্ত করা হয় এবং তাদের শোকজ করা হয়েছিল বলেও তিনি জানান। 

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইবনে মিজান আরও জানান, এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার হোসেন আলী ও সঞ্জুকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে এ মামলার অন্যতম আসামি রাসেল আহমেদ ও শরিফুল ইসলাম ঘন্টুকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এর মধ্যে এ মামলার প্রধান আসামি রাসেল আহমেদ বৃহস্পতিবার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে পুলিশ জানায়। 

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২৯ আগস্ট রাতে পাবনা সদর উপজেলার সাহাপুর যশোদল গ্রামের আকবর আলীর ছেলে রাসেল আহমেদ ও তার চার সহযোগীকে নিয়ে একই গ্রামের এক গৃহবধূকে কৌশলে অপহরণ করে নিয়ে যায়। অপহরণের পর টানা চার দিন অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখে পালাক্রমে ওই নারীকে ধর্ষণ করে গ্রেফতারকৃত আসামিরা।

এ সময় নির্যাতিতা গৃহবধূ কৌশলে পালিয়ে স্বজনদের বিষয়টি জানালে তারা চলতি মাসের ৫ সেপ্টেম্বর ভুক্তভোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করেন। মেডিকেল পরীক্ষায় ধর্ষণের আলামতও মেলে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী গৃহবধূ নিজেই বাদী হয়ে পাবনা সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে পুলিশ রাসেলকে আটক করে। মামলা নথিভুক্ত না করে স্থানীয় একটি চক্রের মধ্যস্থতায় পূর্বের স্বামীকে তালাক ও অভিযুক্ত রাসেলের সঙ্গে বিয়ে দিয়ে ঘটনার মীমাংসা করে দেন কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা। 

এ ব্যাপারে রবিবার (৮ সেপ্টেম্বর) বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে পুলিশ কর্তৃপক্ষ ওসি ওবায়দুল হককে কারণ দর্শাতে বলে। এছাড়া ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে পরে থানায় মামলা নেওয়া হয়। ঘটনা তদন্তের জন্য তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে পুলিশ। 

ওডি/এএসএল

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড