• সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ক্রিকেট ব্যাটের গ্রাম

  শহিদুল ইসলাম মিলন, যশোর

১৪ জুন ২০১৯, ১১:০৮
যশোর
ব্যাট তৈরিতে কাজ করছে নারী শ্রমিক

যশোর সদরের নরেন্দ্রপুর এলাকার মিস্ত্রিপাড়ায় দীর্ঘদিন ধরে তৈরি হচ্ছে ক্রিকেট ব্যাট। তাই মিস্ত্রিপাড়া নামটাই বদলে গেছে, সবাই চেনে ‘ব্যাটের গ্রাম’ হিসেবে। সদর উপজেলার ১৪ নম্বর নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের নরেন্দ্রপুর গ্রামের মিস্ত্রিপাড়া, বটতলা, মহাজেরপাড়া, রূপদিয়াসহ কয়েকটি গ্রামে এখন তৈরি হচ্ছে ক্রিকেট ব্যাট। দেশের বিভিন্ন জেলায় পাঠানো হয় এই ব্যাট।

ব্যাট প্রস্তুতকারক গৌরাঙ্গ মজুমদার দৈনিক অধিকারকে বলেন, প্রায় পাঁচ বছর ধরে ব্যাট তৈরি ও বিক্রির কাজ করছি। আমার কারখানায় ৭ থেকে ৮ প্রকারের ব্যাট তৈরি হয়। প্রতিদিন ন্যূনতম একশটি ব্যাট তৈরি সম্ভব।

তিনি আরও বলেন, ‘উইলো কাঠ’ পাওয়া গেলে আমরাও ভারত-পাকিস্তানের মতো আন্তর্জাতিক মানের ব্যাট তৈরি করতে পারব।’

এক সময় মাঠে কামলা (জন) দেওয়া গৌরাঙ্গ এখন অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী। ৫ থেকে ৬ জন কর্মী কাজ করেন তার কারখানায়। তৈরি করেছেন একটা পাকা বাড়িও। কোথা থেকে শিখলেন ব্যাট তৈরির কাজ- এমন প্রশ্নের জবাবে গৌরাঙ্গ মজুমদার দৈনিক অধিকারকে বলেন, ‘এ অঞ্চলে কেবল আমি একা নই, প্রায় সবাই ব্যাট তৈরির কাজ শিখেছেন সঞ্জিত মজুমদারের কাছে।’

এই পাড়ার নাম যিনি বদলে দিয়েছেন তার নাম সঞ্জিত মজুমদার, যিনি এই ব্যাট তৈরির উদ্যোক্তা। সঞ্জিত ১৯৮৪ সালে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে তার দিদি বাড়িতে যান। সেখানে কাঠের তৈরি নানা শিল্পকর্ম দেখে মাথায় আসে নতুন কিছু করার। এরপর দেশে ফিরে ভাতিজা উত্তম মজুমদারকে সঙ্গে নিয়ে ক্রিকেট ব্যাট তৈরির পদ্ধতি শেখেন। ১৯৮৬ সালে ব্যাট তৈরি ও তা বিক্রি শুরু করেন স্থানীয় বাজারে। সেই থেকে শুরু। তার দেখাদেখি আস্তে আস্তে আরও অনেকে জড়িয়ে পড়েন এই  পেশায়।

দৈনিক অধিকার

ব্যাট তৈরির কারখানা

সঞ্জিত মজুমদারের দুই ছেলে তপন ও সুমন মজুমদার এখন ব্যাট তৈরির কাজ করছেন। তপন জানান, উত্তরবঙ্গের জেলাগুলো মূলত তাদের বাজার। দেশের ৩২টি জেলায় যশোরের তৈরি এসব ব্যাট বাজারজাত করা হয়। বাজার মূলত অগ্রহায়ণ থেকে বৈশাখ পর্যন্ত। এখন বেশিরভাগ কাঁচামাল তৈরি করে ঘরে রাখতে হচ্ছে।

জানতে চাইলে সঞ্জিত মজুমদার বলেন, যশোর শহরের ঘোপ এলাকার বাবু ভাইয়ের (লিডিং স্পোর্টস) অনুপ্রেরণায় ১৯৮৬ সালে প্রথম ব্যাট তৈরি করি। সেগুলো প্রথমে যশোরে বিক্রি হতো।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অর্থনৈতিক টানাপড়েনের কারণে ব্যবসায় কিছুটা মন্দা যাচ্ছে। তবে ফরিদপুর অঞ্চলে ‘বইন্যে কাঠ’ নামে একটি গাছের সন্ধান পেয়েছি। খালপাড়ে স্যাঁতস্যাঁতে জায়গায় হয়। হালকা কিন্তু টেকসই। এই কাঠ দিয়ে আন্তর্জাতিক মানের ব্যাট তৈরির ইচ্ছে আছে আমার। সেক্ষেত্রে আরেকটি উন্নতমানের মেশিন হলেই হবে।

তিনি জানান, শুরুতে সব কাজ হাতে করা হলেও এখন তা মেশিনে করা হয়। এতে কাজের গতি বেড়েছে। এসব কারখানায় মাসে ৫০ থেকে ৬০ হাজার ব্যাট তৈরি হচ্ছে।

একই এলাকার মহাজেরপাড়ায় কারখানা দিয়েছেন এক সময়ের ফার্নিচার মিস্ত্রি তরিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, রোজার কারণে কাজ প্রায় বন্ধ ছিল। সেই সময় ব্যাট পুডিং, ঘষামাজা, রং আর প্যাকেটজাতের কাজ করছেন দুজন নারী শ্রমিক। একশ ব্যাটে তারা পাবেন ৮০ টাকা।’ নতুন করে আবার কাজ শুরু হয়েছে।

এই এলাকায় প্রায় ১৪ বছর ধরে ক্রিকেট ব্যাট তৈরির কাজ করছেন ওমর আলী। তিনি জানান, প্রকারভেদে ব্যাট প্রতি খরচ ১৫ থেকে ১৫০ টাকা। বিক্রি হয় ৩০ থেকে ২৫০ টাকা। তার অধীনে ছয়জন কাজ করেন। শ্রমিক মজুরি (ব্যাটের ধরন অনুযায়ী) প্রতি পিস ৬ টাকা থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত। তাদের তৈরি ব্যাট যশোরের বাজার ছাড়াও বগুড়া, দিনাজপুর, সিরাজগঞ্জ, নওগাঁ, রংপুর অঞ্চলের ব্যবসায়ীরা নিয়ে যান।

দৈনিক অধিকার

ব্যাটে স্টিকার লাগাচ্ছেন এক নারী শ্রমিক

ব্যাট তৈরিতে ব্যবহার করা হয় নিমবুত, পুয়ো, ছাতিম, কদম, নিম, জীবন, পিঠেগড়া, আমড়াসহ বিভিন্ন প্রকার দেশি কাঠ। শ্রমিকদের পাশাপাশি বাড়ির বউ-ছেলেমেয়েরাও ব্যাটে পুডিং লাগানো, ঘষামাজা, রঙ করা, স্টিকার লাগানো, প্যাকেটজাত করা ইত্যাদি টুকটাক কাজ করেন।

ব্যাট নির্মাণ কাজে নিয়োজিত শ্রমিকরা জানান, একশ ব্যাট বানিয়ে দিলে তারা এক থেকে দেড় হাজার টাকা মজুরি পান। তাদের পক্ষে সপ্তাহে চারশ ব্যাট তৈরি করা সম্ভব। ব্যাটে পুডিং, স্টিকার লাগানোসহ পালিশের কাজ করেন অন্যরা।

নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য সুজিত বিশ্বাস দৈনিক অধিকারকে বলেন, ‘শুধুমাত্র মিস্ত্রিপাড়ায় ব্যাট তৈরির কারখানা রয়েছে ২০টিরও বেশি। তাদের একমাত্র সমস্যা হচ্ছে রাস্তাটি কাঁচা। আমরা চেষ্টা করছি খুব শিগগির যাতে এ পাড়ার ছোট ছোট রাস্তাগুলো পাকা হয়।’

নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোদাচ্ছের আলী দৈনিক অধিকারকে বলেন, আমাদের পক্ষ থেকে যা যা করা সম্ভব তা আমরা সব সময়ই করি। তাদের যেভাবে সহযোগিতা করা যায় আমরা তা করি। ব্যাটের কারণে সারা দেশে আমাদের এলাকার নাম ছড়িয়ে পড়েছে।

ওডি/আরবি

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড