• শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মদ খাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে হত্যা

  আব্দুল মালেক, স্টাফ রিপোর্টার (গাজীপুর)

০৫ অক্টোবর ২০২২, ১১:১৯
মদ খাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে হত্যা
গ্রেফতারকৃত আসামি (ছবি : অধিকার)

গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জের পানজোড়া এলাকায় মদ খাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বে বন্ধুর হাতে খুন হয় সবুজ বার্নাড গোছাল। এ ঘটনায় তার সহকর্মী এক বন্ধুকে গ্রেফতার করেছে গাজীপুর জেলা পিবিআই। খুলনা মেট্রোপলিটনের সোনাডাঙ্গা থানার সোনাডাঙ্গা বাস স্ট্যান্ড এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামি শাহীনুর রহমান শাহীন (৩২) সাতক্ষীরা জেলার তালা থানার বালিয়া এলাকার মোসলেম উদ্দিনের ছেলে। সে কালীগঞ্জের দক্ষিণ পানজোরা এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতো। আদালতে ১৬৪ ধারা জবান বন্দি দিয়েছে গ্রেফতারকৃত শাহীনুর রহমান শাহীন।

মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) দুপুরে পিবিআই গাজীপুর জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাকছুদের রহমান সাংবাদিকদের জানান, গাজীপুরের কালীগঞ্জ থানার নাগরী ভাষানিয়া এলাকার অমূল্য গনসালভেসের ছেলে ভিকটিম সবুজ বার্নাড গোছাল স্থানীয় পানজোরা এ্যাপারেল গার্মেন্টসে কিউসি পদে চাকুরি করতো।

একই সাথে চাকুরি করার কারণে শাহীনুর রহমান শাহীনের সাথে ভিকটিম সবুজ বার্নাড গোছালের ঘনিষ্ঠ বন্ধু হয়। এই সুবাদে ভিকটিম সবুজ বার্নাড তার বন্ধু শাহীনের ভাড়া বাসায় আসা-যাওয়া করতো। শাহীনের স্ত্রী জেসমিন আক্তারকে (৩২) ভিকটিম মাঝে মধ্যেই প্রেম ও বিয়ের প্রস্তাব দিত।

জেসমিন প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে বিষয় গুলো তার স্বামী শাহীনকে জানিয়ে দিত। এতে করে শাহীনের মনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

ঘটনার দিন ভিকটিমের সাথে অভিযুক্ত শাহীনের কালীগঞ্জ পানজোড়া এলাকায় দেখা হয়। পরে অভিযুক্ত শাহীন নতুন চাকুরি পাওয়ার সুবাদে ভিকটিম সবুজ বার্নাড খাওয়ানোর কথা বললে রাজি হয়ে এক হাজার টাকা নিয়ে ভিকটিমকে মদ আনতে দেয়। ভিকটিম মদ নিয়ে এলে শাহীনের স্ত্রীর অনুপস্থিতিতে ঘরে মদসহ বিভিন্ন জিনিস তারা দুজনে খায়।

শাহীন মদ সেবন করার পর মুখে তেতো লাগার কারণে ভিকটিমকে বলে, এত টাকা দিয়ে তোতা মদ এনেছো কেন? এ বিষয়টি কেন্দ্র করে উভয়ের মধ্যে ঘরের ভেতর ঝগড়াঝাঁটি ও মারামারি হয়। এক পর্যায়ে ভিকটিম সবুজ বার্নাডকে অভিযুক্ত শাহীন স্বজোরে বুকে ঘুষি মারলে ঘটনাস্থলে ভিকটিমের মৃত্যু হয়। লাশ গুম করার জন্য কয়েকটি টুকরা বস্তায় ভরে খাটের নিচেই রেখে দেয়। পর দিন শাহীনের স্ত্রী গার্মেন্টসে যাওয়ার পর এক একটি অংশ বস্তায় ভরে কালীগঞ্জে পানজোড়া এলাকার বিভিন্ন স্থানে ফেলে দিয়ে স্ত্রীকে কর্মস্থলে যাওয়ার কথা বলে তার নিজ বাড়ি সাতক্ষীরা পালিয়ে যায়।

গত ২৮ সেপ্টেম্বর (বুধবার) বিকাল থেকে নিখোঁজ থাকায় পরিবারের সদস্যরা ভিকটিমের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তাদের নিকট পনের লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। পরে গেল ২৯ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) বাবা অমূল্য গন সালভেস কালীগঞ্জ থানায় নিখোঁজ ডায়রি করেন।

পরে ১লা অক্টোবর সকাল নয়টার দিকে সবুজ বার্নাড গোছালের কর্মস্থল পানজোড়ার পূর্বাচল এ্যাপারেল গার্মেন্টস লিমিটেড ফ্যাক্টরির পাশের একটি বসত বাড়ীর দক্ষিণ-পূর্বে শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন মানুষের দুইটি হাত উদ্ধার করে পুলিশ। পরে একটি পুকুর থেকে সবুজ বার্নাড গোছাল এর পরিহিত জিন্স প্যান্ট, একটি ডোবা হতে কোমর হাঁটু পর্যন্ত অংশ, বাম পায়ের দুইটি খণ্ডিত অংশ ও প্লাস্টিকের পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় গলা হতে বিচ্ছিন্ন মাথা, মনিকোগ্রাপের গেইটের সামনে ড্রেনের উপর বাজারের ব্যাগে মোড়ানো কোমর হতে গলার অংশ উদ্ধার করা হয়। পরে ২ অক্টোবর রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে অভিযুক্ত শাহীনকে তার গ্রামের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়। এবিষয়ে ভিকটিমের বাবা অমূল্য গনসালভেস বাদী হয়ে কালীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

তিনি আরও জানান, গ্রেফতারকৃত শাহীন প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় ভিকটিম সবুজ বার্নাড গোছাল হত্যাকাণ্ডে জড়িত কথা স্বীকার করে। এছাড়াও মামলার ভিকটিম সবুজ বার্নাড গোছাল এর দেহ টুকরা টুকরা করতে ব্যবহৃত বটি, ভিকটিমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, উদ্ধার করা হয়েছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড