• রোববার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ৫ বৈশাখ ১৪২৮  |   ৩৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

হাওরে কৃষকের আর্তনাদ, ছুটে গেল কৃষি মন্ত্রণালয়

  সহিদ, কিশোরগঞ্জ

০৭ এপ্রিল ২০২১, ১৮:৩০
দুর্ভাগা কৃষক
নষ্ট হয়ে যাওয়া ধান হাতে দুর্ভাগা কৃষক (ছবি : দৈনিক অধিকার)

হাওরের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের দুঃখ কষ্ট শোনতে ও তাদেরকে শান্তনা দিতে বুধবার (৭ এপ্রিল) সকাল থেকেইে কিশোরগঞ্জের ক্ষতিগ্রস্ত ধানের মাঠ পরিদর্শন করছেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক মো. আসাদুল্লাহ। তার সফরসঙ্গী হিসেবে রয়েছেন, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মেজবাউল ইসলাম, অতিরিক্ত সচিব (ঢাকা অঞ্চল) মো. বশির আহম্মদ সরকার ও বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট এর মহাপরিচালক মো. শাহ্ জাহান কবির।

উল্লেখ্য যে, গত রোববার ৪ এপ্রিল সন্ধ্যা থেকে রাত ১১টার মধ্যে হঠাৎ করে গরম বাতাস প্রবাহিত হওয়ায় জমির ফসল পুড়ে গেছে কিশোরগঞ্জের জেলাসদরসহ হাওরাঞ্চলের ২৬ হাজার হেক্টও জমির ধান। স্থানীয়রা এটিকে ‘লু হাওয়া’ বলে অভিহিত করলেও আবহাওয়া দপ্তর থেকে বলা হয়েছে, দেশে লু হাওয়া বয়ে যাওয়ার কোনো নজির এখন পর্যন্ত নেই। তাছাড়া বাংলাদেশের আবহাওয়ায় লু হাওয়া বয়ে যাওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হওয়ার কথা নয়।

কিশোরগঞ্জের ইটনা উপজেলার রায়টুটী ইউনিয়নের কৃষক পালন মিয়া বলেন, তিনি তার ছয় একর জমিতে বোরো ধান আবাদ করেছিলেন। তিনি আশা করছিলেন এতে পাঁচশত মন ধান পাবেন। কিন্তু সেই স্বপ্ন ধুলিসাৎ হয়ে গেছে। মাত্র ১০ মিনিটের গরম বাতাসে।

একই এলাকার তলার হাওরের কৃষক আ. হেকিম কান্নর সুরে বলেন, 'গতবছর ধানের দাম বেশি ফাইছি, হের লাইগ্যা এইবার আরো বেশি কইরে জমি করছি। জমির মইধ্যে ফসলও অইছিন বালা। কিন্তু গত রোববার রাইতেই ১০ মিনিটের একটা গরম বাতাসে সব পুইড়ে ছারকার কইরে দিসে। আমার সত্তর বছর বয়সে এমন বাতাস দেখছি না। সহালে ঘুমেত্তে উইট্টে জমিতে গিয়া দেহি আমার সব শেষ। ঋণ কইরে জমি করছিলাম তা কি কওে পরিশোধ করবো আর পুলাপাইন লইয়া কি খাবো জানিনা।'

করিমগঞ্জের কনিকপুর গ্রামের বড় হাওরের কৃষক মন্নাছ মিয়া বলেন, আমি ঋণ কওে এক একর জমি করেছিলাম। এখন একটি ধানও জমিতে নেই। আমার সংসার কি কওে চালাবো আর কোথায় থেকে ঋণ পরিশোধ করবো। এখন আমার মরন ছাড়া গতি নেই।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, জেলার ১৩টি উপজেলার হাওরে মাত্র ১০ মিনিটের গরম বাতাসে প্রায় ২৬ হাজার হেক্টর জমির ধান পুড়ে গেছে। বোরো ধানের জমি সম্পূর্ণ নষ্ট হয়েছে তিন হাজার ৪২৫ হেক্টর জমির। আর আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২২ হাজার ৪৭০ হেক্টর জমির ধান।

কৃষি বিভাগের প্রাথমিক হিসেবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ৩৫৯৫ হেক্টর, হোসেনপুর ২৩০ হেক্টর, পাকুন্দিয়ায় ৭৪০ হেক্টর, কটিয়াধীতে ২৩০৩ হেক্টর, করিমগঞ্জে ৩৮০০ হেক্টর, তাড়াইলে ১৩৯৫ হেক্টর, ইটনায় ৪৭৫০ হেক্টর, মিঠামইনে ১৯৪০ হেক্টর, নিকলীতে ২৬৩৫ হেক্টর, অষ্টগ্রামে ৪৪০ হেক্টর, বাজিতপুরে ২৪০ হেক্টর, কুলিয়ারচরে ১১২ হেক্টর ও ভৈরবে ২৯০ হেক্টর জমির বোরো ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ছাইফুল আলম জানান, ঘটনার পর দিনই আমি কয়েকটি হাওর পরিদর্শন করেছি। বৃষ্টিবিহীন ঝড়ো বাতাসে এই ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। হাওরের ধানের গাছগুলো এখন মিল্কিং স্টেজে (দুধ অবস্থায়) আছে। এই সময়ে প্রায় ৩৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার গরম বাতাসে ধান পুড়ে চিটা হয়ে গেছে। তবে সবচেয়ে বেশী ক্ষতি হয়েছে জেলার করিমগঞ্জ, তাড়াইল ও ইটনা উপজেলাতে। এ বছর জেলায় ১ লাখ ৬৬ হাজার ৯৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। আর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১০ লক্ষাধিক মেট্রিক টন ধান এবং ৭ লাখ ১১ হাজার ৫৮০ মেট্রিক টন চাল।

কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক বলেন, আমি কৃষি বিভাগকে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা তৈরির নির্দেশ দিয়েছি। তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। সম্পূর্ণ তালিকা হাতে পেলে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের সহায়তা চেয়ে মন্ত্রণালয়ে লিখিত আবেদন পাঠানো হবে।

ওডি/

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড