• শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭  |   ২১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

শ্রীপুরে সড়কের বেহাল অবস্থা, ভেঙে পড়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা

  গাজীপুর প্রতিনিধি

২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৯:২৫
একটু বৃষ্টিতেই পানি জমে যাই সড়কে (ছবি : দৈনিক অধিকার)

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের এমসি বাজারের সুফিয়া কটন মিলের সাথে ধনুয়া সড়কের সংযুক্ত সড়কটি ব্যবহার করেন কয়েকটি শিল্পকারখানার হাজারো শ্রমিক। এই সড়কটির গুরুত্ব বিবেচনায় বিগত ১৯৯৮ সালে জেলা পরিষদ এইচবিবির মাধ্যমে উন্নয়ন করেছিল। পরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এই সড়কটি কার্পেটিং করার উদ্যোগ নেন ২০১৮ সালে। সড়ক খোড়াখুড়ি করার একপর্যায়ে কাজ বন্ধ হয়ে যায়। সড়ক ব্যবহার বন্ধ হয়ে যাওয়াই ভোগান্তিতে পড়েন হাজারো মানুষ।

একইভাবে প্রতিদিন হাজারো শিল্পকারখানার মানুষ একই মহাসড়কের রঙিলাবাজার-পিয়ারআলী কলেজ সড়ক ব্যবহার করেন। এই সড়কটি কয়েকবছর ধরেই হেঁটে চলাও যেন দায়। একই অবস্থা শিল্প এলাকাসমৃদ্ধ চেয়ারম্যান বাড়ী মোড়-ইলিমবাড়ী সড়ক,মাওনা চৌরাস্তার কাঁচাবাজার সড়ক। ছোট ছোট এই সড়কগুলোয় দীর্ঘদিন ধরে উন্নয়ন না হওয়ায় বড় ধরনের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে স্থানীয়দের।

চলাচলকারী লোকজন জানান,বেশ কয়েকবছর ধরে শ্রীপুরের গ্রামীণ সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। আর কর্তৃপক্ষ শুধু আশ্বাসেই দিন কাটাচ্ছে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অফিস শ্রীপুরের দেয়া তথ্য মতে, শিল্পকারখানা সমৃদ্ধ শ্রীপুরে মোট গ্রামীণ সড়ক রয়েছে ১৫২০ কিলোমিটার। এর মধ্যে পাকা সড়ক রয়েছে ৪৫০কিলোমিটার, এইচবিবি রয়েছে ৬১কিলোমিটার সড়ক। আর বাকি ১০০৯ কিলোমিটার সড়ক রয়েছে কাঁচা। ক্রমবর্ধমান শিল্পায়নের কারণে শ্রীপুরের অধিকাংশ এলাকায় গড়ে উঠেছে শিল্পকারখানা। পরিকল্পনা অনুযায়ী সড়কগুলোর উন্নয়ন কোথাও সংস্কার না হওয়ায় স্থানীয়দের ভোগান্তি বাড়ছে।

মাওনা উত্তরপাড়া এলাকার সাদিকুল ইসলাম ফরহাদ বলেন, সুফিয়া কটন মিলসের সংলগ্ন সড়কটি দীর্ঘ দুই বছর ধরে অচল হয়ে থাকলেও কেউ কোন উদ্যোগ নিচ্ছেন। অল্প সড়কের এই ভোগান্তির কারণে দুই, তিন কিলোমিটার সড়ক ঘুরে চলতে হয়।আসলে আমাদের দুর্ভোগ দেখার কেউ নেই।

মুলাইদ গ্রামের আব্দুল আজিজ বলেন, গ্রামীণ সড়কগুলো এখন জনদুর্ভোগের অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। উন্নয়নের কথা বললে এক দপ্তর অন্য দপ্তরকে দেখিয়ে দেন। আসলে এই দায়িত্বটা যে কার এটাই খোঁজে পাচ্ছি না।

তেলিহাটি ইউনিয়ন পরিষদের ৭নং ওয়ার্ড সদস্য মোবারক হোসেন বলেন, আমার ওয়ার্ডেই অর্ধশত বড়, ছোট, মাঝারী শিল্প কারখানা রয়েছে। লক্ষাধিক লোকের বাস এখানে। অথচ রাস্তাঘাট বলে কিছুই নেই। যানবাহন তো দূরের কথা এসব সড়ক ধরেই হেটেও চলা যায় না। জনগণের কাছে আমাদের নানাভাবে জবাবদিহিতার পাল্লায় পড়তে হয়। জবাব দেয়ার ভাষা আমাদের নেই। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে বললে শুধু হবে বলে আশ্বাস দেয়।

শ্রীপুর উপজেলা প্রকৌশল অফিসের উপসহকারী প্রকৌশলী মাসুদুল ইসলাম বলেন, শ্রীপুরের বিভিন্ন সড়কের উন্নয়ন ও সংস্কার চলছে। শিল্পকারখানার ভারি যানবাহন চলা ও বর্ষার কারণে অনেক সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে বেহাল হয়ে পড়েছে। বেহাল সড়কের উন্নয়নের লক্ষে প্রকল্প তৈরি করা হচ্ছে। শীঘ্রই কাজ শুরু করা যাবে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801703790747, +8801721978664, 02-9110584 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড