• মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ঝুলন্ত সেতু খুলে দেয়ায় রাঙ্গামাটি যাচ্ছেন পর্যটক

  রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি

০৯ আগস্ট ২০২০, ০৯:৫৯
রাঙ্গামাটি
খোলে দেয়ায় রাঙ্গামাটি ঝুলন্ত সেতুতে পর্যটকদের পদচারণ

দীর্ঘ প্রায় চার মাস পর ঝুলন্ত সেতু খুলে দেয়ায় অনেক পর্যটক বেড়াতে যাচ্ছেন রাঙ্গামাটি। হয়েছে, রাঙ্গামাটির পর্যটন কেন্দ্র ও স্পটগুলো। খুলে দেয়া হয়েছে, সরকারি পর্যটন কেন্দ্র। এখন সরকারি ছুটির দিনে যথেষ্ট পর্যটকের সমাগম ঘটছে। বহু পর্যটক গেছেন রাঙ্গামাটি ঝুলন্ত সেতুতে। রাঙ্গামাটির পর্যটন খাতে শুরু হয়েছে অর্থনৈতিক আয়। খোঁজ নিয়ে এসব তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, করোনার কারণে দীর্ঘ তিন মাস ২৭ দিন বন্ধ ছিল রাঙ্গামাটি সরকারি পর্যটন কেন্দ্রের মনোরম ঝুলন্ত সেতুটি। বাধা ছিল পর্যটন কমপ্লেক্সে প্রবেশে। ৪ আগস্ট পর্যটন কমপ্লেক্সসহ আকর্ষণীয় ঝুলন্ত সেতুটি খুলে দেয়ায় পর্যটকরা যাচ্ছেন সেখানে। সরকারি ছুটির দিন শুক্র ও শনিবারে বহু পর্যটকের সমাগম ঘটেছে রাঙ্গামাটি ঝুলন্ত সেতুতে। তবে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হলে করোনা সংক্রমণে ঝুঁকির আশঙ্কাও করা হচ্ছে।

রাঙ্গামাটি পর্যটন কমপ্লেক্সের কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ঝুলন্ত সেতুতে প্রবেশে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যবাধকতা। সেতুতে প্রবেশে মাস্ক না পরলে কারও কাছে টিকিট বিক্রি করছে না কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে ঝুঁকি এড়াতে স্বাস্থ্যবিধি মানতে আরও করারোপের দাবি জানিয়েছেন অনেক পর্যটক।

শুক্র ও শনিবার রাঙ্গামাটি ঝুলন্ত সেতু গিয়ে দেখা যায়, সেখানে বহু পর্যটক ঘুরতে গেছেন। দল বেঁধে স্বজন, পরিজন নিয়ে অনেক পর্যটক গেছেন ঘুরতে। ঘুরতে যাচ্ছেন স্থানীয়রাও। দীর্ঘদিন বদ্ধ থাকার পর আনন্দে ঘুরছেন প্রকৃতি প্রেমীরা। আবার স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হচ্ছে বলেও দাবি অনেকের। এতে করোনা সংক্রমণ নিয়ে ঝুঁকির আশঙ্কা করছেন তারা।

রাঙ্গামাটি ঝুলন্ত সেতুতে ঘুরতে যাওয়া কয়েক পর্যটক বলেন, করোনার কারণে দীর্ঘদিনের ঘরবন্দি স্বাভাবিক জীবনকে দুর্বিষহ করেছে। পর্যটনের ঝুলন্ত সেতু খোলে দেয়ায় ছুটিতে রাঙ্গামাটি ঘুরতে এলাম। এখন মনে হচ্ছে, প্রাণভরে শ্বাস নিতে পারছি। অনেকের অভিযোগ, সেতুতে প্রবেশে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক হলেও কিছু মানুষ ভেতরে ঢুকে মাস্ক পরছে না। সামাজিক দূরত্বও মানছে না। স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হচ্ছে। এতে করোনা সংক্রমণে ঝুঁকির আশঙ্কা রয়েছে। তাই কর্তৃপক্ষের নজরদারি আরও করা উচিত। স্বাস্থ্যবিধির সুরক্ষা না হলে ব্যাপক ঝুঁকির আশঙ্কা আছে।

পর্যটন কর্তৃপক্ষের স্থানীয় টুরিস্ট বোট চালক সহিদ বলেন, টানা চার মাস ধরেই আমরা বেকার বসেছিলাম। পরিবার-পরিজন নিয়ে কীভাবে কষ্টে জীবিকানির্বাহ করেছি তা অবর্ণনীয়। এখন পর্যটন খোলার কারণে পর্যটক আসলে কিছুটা আয়-রোজগারের আশা জেগেছে। ঝুলন্ত সেতু খুলে দেয়ায় শুক্রবার ২৫টির মতো ট্যুরিস্টবোট সুবলং ঝরনা ঘুরে এসেছে। স্বাভাবিক মৌসুমে সরকারি ছুটির দিনে ২৫০-৩০০ ট্যুরিস্টবোট কাপ্তাই হ্রদে নৌভ্রমণে যেত। দেখা যায়, রাঙ্গামাটি ঝুলন্ত সেতুটি খুলে দেয়ায় প্রাণচাঞ্চল্য ফিরেছে পর্যটন এলাকায়। কর্মচঞ্চল এসেছে পর্যটনশ্লিষ্ট বিক্রেতা, টুরিস্ট বোট চালক থেকে শুরু করে কর্মজীবী সবার।

রাঙ্গামাটি পর্যটন মোটেল ও হলিডে কমপ্লেক্সের ব্যবস্থাপক সৃজন বিকাশ বড়ুয়া বলেন, বুকিং এখনও তেমন নেই বললে চলে। ইদের পরে সীমিত আকারে প্রাইভেট গাড়ি নিয়ে কিছু লোকজন আসছেন। ব্যাপকহারে পর্যটক নেই। পর্যটন ব্যবসা স্বাভাবিক হবে, যদি পরিস্থিতির উন্নতি হয়। স্বাস্থ্যবিধি রক্ষায় বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801721978664

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড