• সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সিরাজদিখানে কুমারখালী সড়কের বেহাল দশা, হাজারো মানুষের ভোগান্তি

  সিরাজদিখান প্রতিনিধি,মুন্সীগঞ্জ

২০ জুলাই ২০২০, ১২:১০
চলাচলের অনুপোযোগী রাস্তা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার বয়রাগাদী ইউনিয়নের কুমারখালী গ্রামে যাতায়াতের প্রধান রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। রাস্তাটিতে ইটের সলিং না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতেই কাদা মাটিতে পরিণত হয়ে যাতায়াতের প্রধান বাধা হিসেবে দাড়ায়। এতে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে ওই এলাকার হাজারো মানুষ।

রাস্তটির বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট একাধিকবার বলেও সংস্কার করাতে ব্যর্থ হয় বলে অভিযোগ তোলেন স্থানীয়রা। গত বছর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক রাস্তটি ইট সলিংয়ের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বরাদ্দ অনুযায়ী রাস্তাটির আংশিক ইট সলিংয়ে কাজ সম্পন্ন করলেও বাকি রাস্তার ইট সলিংয়ে কাজ অসম্পূর্ণই রয়ে যায়।

রবিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কুমারখালী আমজাদ মিয়ার বাড়ী থেকে কুমারখালী কবরস্থান পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার এ রাস্তাটি দিয়ে কুমারখালী গ্রামসহ আশপাশের বেশ কয়েকটি গ্রামের হাজারো মানুষ চলাচল করে। সংস্কারের অভাবে রাস্তাটির বিভিন্ন স্থানে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়ে কাদা মাটিতে পরিনত হয়ে আছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই ওইসব গর্তে পানি জমে থাকে। আর এ কারণে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে স্থানীয় এলাকাবাসী।

এছাড়া রাস্তাটি খানাখন্দ থাকার কারণে ছোট বড় দূর্ঘটনাও ঘটছে প্রতিনিয়ত। অপরদিকে রাস্তটি দিয়ে রিক্সা, ভ্যান, মোটর বাইক চলাচলেও ঘটছে বিঘ্নতা।

এলাকাবাসী জানায়, আমাদের গ্রামের প্রবেশের প্রধান রাস্তাটিই এখনো পর্যন্ত কাঁচা। গত বছর এই রাস্তাটির কিছু অংশে ইট সলিং করা হয়। এরপর কাজ বন্ধ হয়ে যায়। চেয়ারম্যান সাহেবকে রাস্তাটির কাজের বিষয়ে বলা হলে তিনি আমাদের শুধু আশ্বাসই দিয়ে যাচ্ছেন। তিনি কোন উদ্যোগ না নেওয়ায় আমাদের রাস্তাটি কাঁচাই রয়ে গেল। এই দিয়ে গর্ভবতী মহিলা ও ইমারজেন্সি রোগী হাসপাতালে নেওয়ার মত কোন উপায় নেই। অ্যাম্বুল্যান্স ঢুকবে দূরের কথা একটা রিক্সা ঠিকমত চলাচল করতে পারে না এই রাস্তা দিয়ে।

এলাকাবাসীদের মধ্যে অনেকেই আক্ষেপ করে বলেন, চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা নির্বাচনের সময় আমাদের কাছে আসে ভোট নিতে। অনেকেই প্রতিশ্রুতি দেয়, আমাদের যাতায়াতের রাস্তা-ঘাট ঠিক ঠাক করে দিবে। কিন্তু নির্বাচনের পর আমাদের ভোটে জিতে কেউ আর আমাদের খবর নেয় না।

বয়রাগাদী ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড সদস্য মো. তাহের আলী বলেন, চেয়ারম্যান সাহেব রাস্তাটি ইট সলিং করার জন্য বরাদ্দ চেয়েছে। কিন্তু করোনার কারণে বরাদ্দ দিচ্ছে না। এর আগে সোহরাব চেয়ারম্যানের লোকজন রাস্তাটির ইট সলিংয়ের কাজ করে। কদিন পর রাস্তার কাজ বন্ধ রাখায় আমি জিজ্ঞেস করি কাজ বন্ধ করলেন কেন? তারা বলে বরাদ্দ যা আসছে সে অনুযায়ী কাজ হয়েছে। আবার বরাদ্দ আসলে কাজ চালু হবে।

বয়রাগাদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গাজী আলাউদ্দিন বলেন, এমপি মহোদয়ের কাছে রাস্তাটির জন্য বরাদ্দ চেয়েছি। জেলা পরিষদের কাছ থেকে বরাদ্দ চেয়েছি। এডিবির কাছে চেয়েছি৷ কিন্তু কোন বরাদ্দ পাইনি। অবশেষে এডিবি থেকে রাস্তাটির ১ কিলোমিটার ইট সলিংয়ের কাজের বরাদ্দ পেয়েছি।

উপজেলা প্রকৌশলী শোয়াইব বিন আজাদ বলেন, গত বছর কুমারখালী স্কুল পর্যন্ত রাস্তাটির ইট সলিংয়ের কাজ করা হয়েছে। সে সময় সম্পূর্ণ বরাদ্দ না আসায় রাস্তাটি পুরোপুরিভাবে ইট সলিং করা সম্ভব হয়নি। বাকি কাজের বরাদ্দের জন্য আবেদন করা হয়েছে কিনা বা বরাদ্দ এসেছে কিনা দেখে বলতে পারবো।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড