• রোববার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ২২ চৈত্র ১৪২৬  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ইবিতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, গুরুতর আহত ১

  ইবি প্রতিনিধি

২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০১:০১
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়
ইবি ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ (ছবি : দৈনিক অধিকার)

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে মধ্যরাতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জিয়া হল মোড় এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

জুনিয়র কর্তৃক সিনিয়রকে মারধরের ঘটনায় ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এতে গুরুতর আহত হয়েছেন ১জন। এছাড়াও উভয় গ্রুপের প্রায় ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। 

আহতদের বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে হিসাব বিজ্ঞান ও তথ্য পদ্ধতি বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র হিমেল চাকমা নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী গুরুতর আহত হয়েছেন।

মেডিকেল সেন্টারের দায়িত্বরত চিকিৎসক ড. রবিউল ইসলাম বলেন, ‘ছেলেটি মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দিয়েছি। মাথায় ইনজুরি তাই ৭২ ঘণ্টা অবজারভেশনে রাখতে হবে।’

সংঘর্ষে গুরুতর আহত শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে (ছবি : দৈনিক অধিকার)

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার সন্ধ্যায় আইন বিভাগের ২য় বর্ষের (১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষ) শিক্ষার্থী কামাল হোসেন, মার্কেটিং বিভাগের ১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী জেভিয়ারকে বন্ধু বলে সম্বোধন করে। জেভিয়ার সিনিয়র পরিচয় দিলে কামাল ক্ষমা চায়। তবে জেভিয়ার ক্ষমা গ্রহণ না করলে কথা কাটাকাটি হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে কামাল দলবল নিয়ে জেভিয়ারকে মারধর করে। পরে সিনিয়র নেতা ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত, বিপুল, অনিক বিষয়টি মীমাংসা করে দিলেও ক্যাম্পাসে থমথমে অবস্থা বিরাজ করে।

একপর্যায়ে জেভিয়ার সমর্থকরা হলের রুমে রুমে গিয়া কামালকে খুঁজতে থাকে। এ সময় তারা জিয়াউর রহমান হলের বেশ কয়েকটি রুমে ভাংচুর চালায় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। খবর পেয়ে সাদ্দাম হোসেন হল থেকে মোশাররফ হোসেন নীল এবং হিমেল চাকমার নেতৃত্বে লাঠিসোঁটা, হকিস্টিক, লোহার রড, পাইপ নিয়ে অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী ছুটে আসলে জিয়াউর রহমান হলের মসজিদের সামনে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বাঁধে। ঘণ্টাব্যাপী চলা এ সংঘর্ষে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। 

এদের মধ্যে গুরুতর আহত ছাত্রলীগ কর্মী হিমেল চাকমাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। হিমেল চাকমা হিসাব বিজ্ঞান ও তথ্য পদ্ধতি বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

সংঘর্ষের সময় জিয়াউর রহমান হলের দুটি কক্ষে ভাংচুর এবং হলের সামনের বৈদ্যুতিক লাইটগুলো ভেঙে ফেলা হয়েছে বলে জানা গেছে। সংঘর্ষে লিপ্ত হওয়া দুই গ্রুপের সবাই ছাত্রলীগের বিদ্রোহী ও পদপ্রত্যাশী নেতা ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাতের কর্মী বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে প্রক্টর অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্ম্মন বলেন, ‘সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বের কারণে এ ঘটনা ঘটেছে। তবে বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ শান্ত রয়েছে।’

ওডি/জেআই/এমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড