• বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন

মুন্সীগঞ্জে এইচএসসি ও সমমানে পাসের হার ৬৯.৪৪%, ৫৭টি জিপিএ-৫ 

  মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি:

১৮ জুলাই ২০১৯, ০১:০২
এইচএসসি পরীক্ষা
এইচএসসি পরীক্ষায় পাশ করা শিক্ষার্থীদের উচ্ছ্বাস। (ছবি : দৈনিক অধিকার)

মুন্সীগঞ্জে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় মোট পাসের হার ৬৯ দশমিক ৪৪ শতাংশ ও মোট জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৫৭ জন শিক্ষার্থী। এ বছর এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় জেলায় ৯ হাজার ১১৭ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করলে উত্তীর্ণ হয় ৬ হাজার ৩৩১ জন।

জেলা শিক্ষা অফিসের তথ্য মতে, এইচএসসি পরীক্ষায় ৬৭ দশমিক ৪৫ শতাংশ পাসের হার ও জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৫৬ জন। আলিম পরীক্ষায় (মাদ্রাসা বোর্ড) পাসের হার ৯৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ ও জিপিএ-৫ পেয়েছেন একজন এবং এইচএসসি (কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে) পরীক্ষায় ৯০ দশমিক ২৭ শতাংশ পাসের হার হলেও জিপিএ-৫ পায়নি কোনো শিক্ষার্থী। 

এ বছর এইচএসসি পরীক্ষায় জেলার ২৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৮ হাজার ৭৬০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করলে কৃতকার্য হয় ৫ হাজার ৯০৯ জন শিক্ষার্থী। যার মধ্যে শতভাগ পাসের হার ও ৮টি জিপিএ-৫ নিয়ে মুন্সীগঞ্জ জেলায় বরাবরের মত প্রথম স্থান অর্জন করেছে প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজ। যেখানে ৯৪ দশমিক ৩২ শতাংশ পাসের হার ও একটি জিপিএ-৫ নিয়ে জেলায় দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে মুন্সীগঞ্জ কলেজ।

৯০ দশমিক ১৮ শতাংশ পাসের হার ও দুইটি জিপিএ-৫ নিয়ে আদর্শ কলেজ তৃতীয় এবং ৮৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ পাসের হারে জেলায় চতুর্থ স্থান অর্জন করেছেন সেরাজাবাদ রানা শফিউল্লাহ কলেজ।

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা : 

সদর উপজেলার ৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৩ হাজার ২১৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা অংশগ্রহণ করেন; যেখানে কৃতকার্য হয় ২ হাজার ৩৫১ জন। পাসের হার ৭৩ দশমিক ১২ শতাংশ ও জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৩১ জন। যার মধ্যে প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজ শতভাগ শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয় ও জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮ জন। 

মুন্সীগঞ্জ কলেজ ৯৪ দশমিক ৩২ শতাংশ পাসের হার ও একজন জিপিএ-৫ পেয়েছেন। মির কাদিম হাজী আমজাদ আলী কলেজ ৭৬ দশমিক ৪৩ শতাংশ পাসের হার ও একজন জিপিএ-৫ পেয়েছেন, সরকারি হরগঙ্গা কলেজ ৭৩ দশমিক ৯২ শতাংশ পাসের হার ও জিপিএ৫ পেয়েছেন ১৯জন। তাছাড়া রামপাল কলেজ ৬২ দশমিক ৭৪ শতাংশ পাসের হার ও জিপিএ৫ পেয়েছেন দুইজন, মুন্সীগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ ৫৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ পাসের হার।

সিরাজদিখান উপজেলা :

উপজেলার ৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এক হাজার ২৩ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা অংশগ্রহণ করেন; যেখানে ৭৫৩ জন শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়। পাসের হার ৭৩ দশমিক ৫০ শতাংশ ও জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৮ শিক্ষার্থী। যার মধ্যে চিত্রকোট মডেল স্কুল এন্ড কলেজ ৯৩ দশমিক ১৮ শতাংশ পাসের হার ও ১টি জিপিএ-৫, বিক্রমপুর আদর্শ কলেজ ৭৯ দশমিক ৪৫ শতাংশ পাসের হার, মালখানগর কলেজ ৭৯ দশমিক ৪৩ শতাংশ পাসের হার ও ২টি জিপিএ-৫, আলী আজগর এন্ড আব্দুল্লাহ কলেজ ৬৯ দশমিক ০৭ শতাংশ পাসের হার ও জিপিএ৫ পেয়েছে ৩টি, বিক্রমপুর কে.বি কলেজ ৬৮ দশমিক ৬৭ শতাংশ পাসের হার ও ২টি জিপিএ-৫। 

টংগিবাড়ী উপজেলা :

উপজেলার ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৮০২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা অংশগ্রহণ করলে ৫৬৩ জন শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়। পাসের হার ৭০ দশমিক ১৯ শতাংশ ও জিপিএ৫ পেয়েছেন একজন শিক্ষার্থী। যার মধ্যে সেরাজাবাদ রানা শফিউল্লাহ কলেজ ৮৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ পাসের হার, বালিখাঁও আমজাদ আলী কলেজ ৬৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ পাসের হার, বিক্রমপুর-টংগিবাড়ী কলেজ ৬৪ দশমিক ৪৭ শতাংশ পাসের হার ও জিপিএ৫ একটি।

গজারিয়া উপজেলা :

উপজেলার ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৮৫৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা অংশগ্রহণ করে ৩৬২ জন শিক্ষার্থী কৃতকার্য হয়। পাসের হার ৪২ দশমিক ৩৩ শতাংশ ও জিপিএ-৫ পেয়েছেন দুইজন শিক্ষার্থী। যার মধ্যে বালুকান্দি ডা. আব্দুল গফফার; ফার স্কুল এন্ড কলেজ ৪৮ শতাংশ পাসের হার, সরকারি গজারিয়া কলেজ ৪৪ দশমিক ৬৭ শতাংশ পাসের হার, গজারিয়া কালিমউল্লাহ কলেজ ৩৯ দশমিক ৩০ শতাংশ পাসের হার ও জিপিএ-৫ দুইটি।

লৌহজং উপজেলা :

উপজেলার দুইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৬৫৩ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা অংশগ্রহণ করে এতে ৫১৯ জন শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়। পাসের হার ৭৯ দশমিক ৪৭ শতাংশ ও জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৭ শিক্ষার্থী। যার মধ্যে লৌহজং কলেজ ৮০ দশমিক ৭২ শতাংশ পাসের হার ও জিপিএ-৫ ৭টি, মেদিনীমন্ডল গার্লস কলেজ শতভাগ অকৃতকার্য হয়েছে (পরীক্ষার্থী ১০ জন)।

শ্রীনগর উপজেলা :

উপজেলার সাতটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ২ হাজার ২১২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা অংশগ্রহণ করলে ১ হাজার ১৮৭ জন শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়। পাসের হার ৫৩ দশমিক ৬৬ শতাংশ ও জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৭ শিক্ষার্থী। যার মধ্যে আদর্শ কলেজ ৯০ দশমিক ১৮ শতাংশ পাসের হার ও জিপিএ-৫ দুইটি, ভাগ্যকুল হরেন্দ্র লাল স্কুল এন্ড কলেজ ৫৬ দশমিক ২৫ শতাংশ পাসের হার, শ্রীনগর সরকারী কলেজ ৫৪ দশমিক ৯৩ শতাংশ পাসের হার ও ৫টি জিপিএ-৫, স্যার জেসিবোস কলেজ ৩২ দশমিক ৬৩ শতাংশ পাসের হার, হাসাড়া কালী কিশোর স্কুল এন্ড কলেজ ২৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ পাসের হার, শ্রীনগর পাইলট স্কুল এন্ড কলেজ ১৭ দশমিক ৪৩ শতাংশ পাসের হার, বাড়ৈগাঁও ইসলামিয়া স্কুল এন্ড কলেজ ১১ দশমিক ১১ শতাংশ পাসের হার।

এইচএসসি (কারিগরি) :

এইচএসসি (কারিগরি) পরীক্ষায় ৫টি প্রতিষ্ঠানের মোট পাসের হার ৯০ দশমিক ২৭ শতাংশ তবে জিপিএ-৫ নেই। কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে ১৮৫ শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করলে উত্তীর্ণ হন ১৬৭ জন। যার মধ্যে মুন্সীগঞ্জ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ও সমসপুর বিজনেস ম্যানেজম্যান্ট ইন্সটিটিউট শতভাগ পাসের হার রয়েছে। বিক্রমপুর কেবি ডিগ্রি মহাবিদ্যালয় পাসের হার ৯০ শতাংশ, মালখানগর কলেজ পাসের হার ৮৭ দশমিক ৫০ শতাংশ, টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ পাশের হার ৮৪ দশমিক ২১ শতাংশ।

আলিম পরীক্ষা (মাদ্রাসায়) :

চলতি বছর মুন্সীগঞ্জের ৬টি উপজেলায় আলিম পরীক্ষায় ১৩টি মাদ্রাসার ২৭২ জন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করলে ২৫৫ জন উত্তীর্ণ হয়। যেখানে পাসের হার ৯৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ ও জিপিএ-৫ পেয়েছে একজন। যার মধ্যে মাথাভাঙ্গা মহিলা আলিম মাদ্রাসা শতভাগ পাসের হার ও একটি জিপিএ-৫। তাছাড়া ইসলামপুর কালিম মাদ্রাসা, লস্করপুর এইচ কে ইউ. সিনিয়র মাদ্রাসা, গজারিয়া বাতেনিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা ও পয়সা কারাঃ ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা শতভাগ পাসের হার রয়েছে। 

পঞ্চসার আলিম মাদ্রাসা ৯৭ দশমিক ৫০ শতাংশ পাসের হার, শিমুলিয়া সিদ্দিকিয়া সিনিয়র মাদ্রাসায় পাসের হার ৯৫ দশমিক ২৪ শতাংশ, মুন্সীগঞ্জ আদর্শ আলিম মাদ্রাসা ৯৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ পাসের হার, ধীপুর ইসলামিয় ফাজিল মাদ্রাসা ৮৮ দশমিক ৮৯ শতাংশ পাসের হার , কামারগাঁও আল আমীন ইসলামিয়া মাদ্রাসা ৮৭ দশমিক ৫০ শতাংশ পাসের হার, বাসুদিয়া ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা ৭৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ পাসের হার, জলিল জাব্বার আলিম মাদ্রাসা ৬০ শতাংশ পাসের হার, মসদগাও ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা ৫০ শতাংশ পাসের হার।

আরও পড়ুন :- পরীক্ষায় ফেল করায় শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

উল্লেখ্য, গত ১ এপ্রিল দেশব্যাপী এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়। যার তত্ত্বীয় পরীক্ষা চলে গত ১১ মে পর্যন্ত। পরবর্তীতে গত ১২ থেকে ২১ মের মধ্যে অনুষ্ঠিত হয় সকল ব্যবহারিক পরীক্ষা।

ওডি/কেএইচআর

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড