• বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কিছুক্ষণ পরেই রায়, মিন্নিসহ সবার ফাঁসি চায় রিফাতের পরিবার

  অধিকার ডেস্ক

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৫৭
আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি
আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি (ছবি : সংগৃহীত)

দেশজুড়ে আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির সবার মৃত্যুদণ্ড চান রিফাতের বাবা-মা। অন্যদিকে মিন্নি বেকসুর খালাস পাবেন বলে আশা তার পরিবার ও আইনজীবীর।

কিছুক্ষণ পরেই চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলায় প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির রায় ঘোষণা করা হবে। বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ মো. আছাদুজ্জামান এ মামলার রায় ঘোষণা করবেন।

১৫ মাস আগে নৃশংসভাবে রিফাতকে কুপিয়ে হত্যার বহুল আলোচিত এই মামলায় পুলিশ যে ২৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিয়েছিল, তাদের মধ্যে ১০ জনের বিচার চলছে জজ আদালতে। বাকি ১৪ জন অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় আলাদাভাবে তাদের বিচার চলছে বরগুনার শিশু আদালতে।

এ মামলার ১ নম্বর আসামি রাকিবুল হাসান ওরফে রিফাত ফরাজী (২৩) বরগুনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেনের ভায়রার ছেলে। আর নিহত রিফাতের স্ত্রী মিন্নি (১৯) অভিযোগপত্রের ৭ নম্বর আসামি, যার নাম এ মামলার এজাহারে ছিল এক নম্বর সাক্ষী হিসেবে।

প্রাপ্তবয়স্ক বাকি আট আসামিরা হলেন- আল কাইয়ুম ওরফে রাব্বি আকন (২১), মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত (১৯), রেজোয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয় (২২), হাসান (১৯), মুসা (২২), রাফিউল ইসলাম রাব্বি (২০), সাগর (১৯) ও কামরুল হাসান সায়মুন (২১)।

এদের মধ্যে মুসা পলাতক, আর মিন্নি আছেন জামিনে। বাকিরা গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছেন।

ইতোমধ্যেই আইনজীবীর জিম্মায় বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরের মোটরসাইকেলে করে আদালতে পৌঁছেছেন মিন্নি। অন্য আসামিদেরও কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়েছে।

মামলার বাদী রিফাতের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ বলেন, মিন্নিসহ সব আসামির শাস্তি চাই আমরা। আদালত রিফাতের খুনের সঙ্গে জড়িতদের এমন শাস্তি দিক যাতে আমরা স্বস্তি পাই।

এ দিকে, সব আসামির ফাঁসি চেয়েছেন রিফাতের মা ডেইজি আক্তার।

তিনি বলেন, আমি সব আসামির ফাঁসি চাই। এমন জঘন্য হত্যাকাণ্ড যেন দেশ আর না হয়। আমার মতো আর কোনো মায়ের বুক যেন খালি না হয়।

ভাইকে হারিয়ে শোকাহত রিফাতের একমাত্র বোন ইসরাত জাহান মৌ বলেন, ভাই ছিল কলিজার টুকরা। ভাই ছিল আমার সাহস ও ভরসা। ভাইকে হারিয়ে আজ আমরা নিঃস্ব। ভাইকে তো আর ফিরে পাব না। মিন্নিসহ সব খুনির দৃষ্টান্তমূলক সাজা হলে কিছুটা শান্তি পাব। ভাইয়ার আত্মাও শান্তি পাবে। ভাইয়ের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।

অন্যদিকে নিহত রিফাতের স্ত্রী মিন্নিকে নির্দোষ দাবি করছে তার বাবা-মা। মিন্নি অভিযোগপত্রের ৭ নম্বর আসামি, যার নাম এ মামলার এজাহারে ছিল এক নম্বর সাক্ষী হিসেবে। পরে পুলিশের তদন্তের পর তাকে আসামি করা হয়।

আরও পড়ুন : বিষণ্ণ মনে বাবার মোটরসাইকেলে চেপে আদালতে মিন্নি

মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর বলেন, আমরা হয়রানির শিকার। জীবন বাজি রেখে মিন্নি তার স্বামীকে বাঁচানোর আপ্রাণ চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। অথচ মিন্নি প্রধান সাক্ষী থেকে এখন আসামির কাঠগড়ায়। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। মিন্নি বেকসুর খালাস পাবে বলে আমরা আশা করি।

এর আগে গত বছরের ২৬ জুন রিফাত হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হয়। হত্যাকাণ্ডের একদিন পর ১২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ৫ থেকে ৬ জনকে আসামি করে বরগুনা সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহত রিফাতের বাবা। এই মামলায় মিন্নিকে প্রধান সাক্ষী করেন নিহত রিফাতর বাবা দুলাল শরীফ।

পরে হত্যাকাণ্ডের ২০ দিন পর গত বছরের ১৬ জুলাই মিন্নিকে তার বাবার বাসা থেকে বরগুনা পুলিশ লাইন্সে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। এরপর জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ওইদিন রাতেই মিন্নিকে গ্রেপ্তার দেখায় পুলিশ।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801703790747, +8801721978664, 02-9110584 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড