• শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ১৬ কার্তিক ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বড় ছেলের মৃত্যুর কিছু সময় পরই ছোট ছেলের জন্ম

  যশোর প্রতিনিধি

২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২২:০৩
নবজাতক
বড় ছেলের মৃত্যুর কিছু সময় পরই ছোট ছেলের জন্ম (ছবি : দৈনিক অধিকার)

পাঁচ বছরের ছেলের মৃত্যুর কিছু সময় পর যশোরে আরেক ছেলে সন্তানের জন্ম দিয়েছেন বাসন্তি বিশ্বাস (২৫) নামে এক গৃহবধূ।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। তবে সদ্য ভূমিষ্ঠ ছেলে কোলজুড়ে থাকলেও হারানো ছেলের ব্যথায় চোখের জ্বলে বালিশ ভিজছে বাসন্তির। কোনোভাবেই মনকে সান্ত্বনা দিতে পারছেন না তিনি।

বাসন্তি শার্শা উপজেলার লক্ষণপুর খালপাড়া এলাকার জুগল বিশ্বাসের স্ত্রী।

বাসন্তির শ্বশুর গোসত বিশ্বাস জানান, গত ১৩ সেপ্টেম্বর বেলা ১১টার দিকে বাড়ির পাশের আম গাছ থেকে পড়ে ডান হাত ভেঙ্গে যায় সূর্য বিশ্বাসের (৫)। পরে বাগআঁচড়ার একটি ক্লিনিক থেকে হাত ব্যান্ডেজ করে তাকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর রবিবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকালে সূর্যের খেঁচুনি উঠলে রাত ১২টার দিকে তাকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। এ সময় জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে ভর্তি করে চিকিৎসার জন্য শিশু সার্জারি ওয়ার্ডে পাঠিয়ে দেন। সেখানে চিকিৎসক ডায়রিয়ার লক্ষণ দেখে পরে সূর্যকে ডায়রিয়া ওয়ার্ডে রেফার্ড করেন। এরপর সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় সূর্যকে মৃত ঘোষণা করেন ইন্টার্ন চিকিৎসক মারুফা আক্তার।

স্বজনরা জানান, সূর্যের মৃতদেহ নিয়ে তার মা বাসন্তি বিশ্বাসসহ অন্যরা বাড়ি ফেরার উদ্দেশ্যে ওয়ার্ডের নিচে আসেন। এ সময় অন্তঃসত্ত্বা মা বাসন্তির প্রসব যন্ত্রণা শুরু হয়। পরে অবস্থা গুরুতর দেখে তাকে জরুরি বিভাগে নেওয়া হয়। এরপর চিকিৎসক তাকে ভর্তি করে পাঠিয়ে দেন প্রসূতি ওয়ার্ডে। একপর্যায়ে রাত পৌনে ৮টার দিকে ছেলে সন্তান প্রসব করেন বাসন্তি বিশ্বাস।

আরও পড়ুন : বিলের পানিতে মিলল অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ

সরেজমিনে প্রসূতি ওয়ার্ড ঘুরে দেখা যায়, চুপচাপ শুয়ে আছেন বাসন্তি। মুখে নেই হাসি। শুধু চোখের জলে বালিশ ভিজে যাচ্ছে তার। যখন নবজাতককে মায়ের কোলে দেওয়া হয়, তখন মা সব ব্যথার কথা ভুলে যান। সন্তানকে দুই হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরে হাসি দেন। কিন্তু উল্টোটা হয়েছে বাসন্তির জীবনে। কেননা সন্তান প্রসবের কিছু সময় আগেই তিনি আরেক সন্তান সূর্যকে হারিয়েছেন। যাকে তিনি দীর্ঘ ৫ বছর লালন পালন করেছেন। তাই সদ্য ভূমিষ্ঠ সন্তানকে কাছে পেয়েও তার মুখে হাসি নেই। ভুলতে পারছেন না হারানো ছেলেকে ঘিরে জীবনের স্মৃতিগুলো।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে বাসন্তি বিশ্বাস দৈনিক অধিকারকে বলেন, মায়ের কাছে সন্তানের মৃত্যু যে কী কষ্টের তা বলে বোঝানো যায় না। কোনো কিছুতে তা ভুলার নয়।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801703790747, +8801721978664, 02-9110584 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড