• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮  |  
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ব্যাটিং ব্যর্থতায় ১২৪ রানেই থামল বাংলাদেশ

  ক্রীড়া ডেস্ক

২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৫৪
বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড ম্যাচ
বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড ম্যাচ। (ছবি: সংগৃহীত)

বলা হয়, ‘সকালের সূর্য দেখে দিন কেমন যাবে বুঝা যায়।’ আক্ষরিক অর্থেই কথাটা ফলে গেল বাংলাদেশ বনাম ইংল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচের বাংলাদেশ ইনিংসে।

প্রথম ওভারে ইংলিশ ‘পার্টটাইম’ অফ স্পিনার মঈন আলীর প্রথম বলটা যেভাবে অফ স্টাম্পের বেশ বাইরে পড়ে স্টাম্পের ভেতরে টার্ন করল, সেটি ভালো বার্তা দিল না একেবারেই। মঈন আলীর এক ওভারেই দুই ওপেনারকে হারিয়ে বসে বাংলাদেশ দল, পুরো ম্যাচেই আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি টাইগাররা।

দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক পেসার ডেল স্টেইন পিচ নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে ম্যাচের আগে জানান, স্পিনাররা বাজিমাত করবে আবুধাবিতে এই উইকেটে। সুপার টুয়েলভ পর্বে ইংল্যান্ড বনাম বাংলাদেশের ম্যাচে সেই প্রভাব দৃশ্যমান। ম্যাচে আগে ব্যাট করে বড় সংগ্রহ করতে পারেনি বাংলাদেশ দল। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দলের সংগ্রহ ১২৪ রান।

আগের ম্যাচের মতোই একাদশে ৩ স্পিনার নিয়ে খেলতে নেমেছে বাংলাদেশ। পরিবর্তন বলতে ইনজুরির কারণে স্কোয়াড থেকে ছিটকে যাওয়া মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের জায়গা নিয়েছেন বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম।

ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নামে টাইগাররা। তবে বরাবরের মতো আজও ব্যর্থ ওপেনিং জুটি। ‘সমালোচিত’ লিটন দাস ভালো শুরুর আভাস দিলেও উইকেটে থিতু হতে পারেননি। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে মঈন আলীর বলে আউট হন ৮ বলে ৯ রান করে। পরের বলেই সজঘরে নাঈম শেখ। তার ব্যাট থেকে আসে ৭ বলে ৫ রান। পাওয়ার-প্লের শেষ ওভারে সাকিব আল হাসান আউট হন ক্রিস ওকসকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে। চোখ ধাঁধানো এক ক্যাচ নেন আলিদ রশিদ।

সাকিব ৭ বলে ৪ রান করে বিদায় হলে পাওয়ার-প্লের ৬ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ দলের সংগ্রহ দাঁড়ায় মাত্র ২৭ রান। সেখান থেকে দলকে টেনে তোলার চেষ্টা করেন মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। মুশফিক ব্যক্তিগত ৯ রানে একবার জীবন না পেলে চতুর্থ উইকেটে তাদের ৩৭ রান পার্টনারশিপটা আরো আগেই শেষ হয়ে যেট।

মন্থর উইকেটের ফায়দা নিতে আরেক পার্টটাইমার লিভিংস্টনকে অ্যাটাকে আনেন ইংলিশ অধিনায়ক মরগ্যান। নিজের প্রথম ওভার হাত ঘোরাতে এসেই সফল লিভিংস্টন। উইকেটে থিতু হয়ে যাওয়া মুশফিককে লেগ বিফোরের ফাদে ফেলে ফেরান তিনি। ৩০ বলে খেলে ২৯ রানেই থামতে হয় মুশফিককে। ‘বিতর্কিত’ রিভার্সসুইপে নিজের উইকেট বিসর্জন দেন তিনি।

সম্প্রতিকালে নিজেকে হারিয়ে খোজা আফিফ হোসেন এ ম্যাচেও ব্যর্থ। তবে তার ৫ রানের ইনিংসটি বড় হতে পারতো মাহমুদউল্লাহ ডেকে এনে রান আউটের ফাদে না ফেললে। পরে ধৈর্য হারালেন মাহমুদউল্লাহ, যেখানে দায়িত্ব নিয়ে ইনিংস শেষ করে আসার প্রয়োজন ছিল অধিনায়কের, সেখানে আগ্রাসী হতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দিলেন সেই লিভিংস্টনের বলে। মাহমুদউল্লাহ ফিরলেন ২৪ বল খেলে ১৯ রানে। ৮৩ রানে ৬ উইকেট হারানো দলটির সংগ্রহ তখন একশর কোটা ছোঁয়া চ্যালেঞ্জিং।

শেষদিকে ছোট হলেও বেশ কার্যকারী ইনিংস খেলেন নাসুম আহমেদ। ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন নাসুম। আলিদ রশিদের করা ইনিংসের ১৯তম ওভারে ২টি ছয়ের সঙ্গে ১ চার মারেন তিনি। শেষ ওভারে আসে ৫ রান। এতে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে ১২৪ রানের সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ দল। সোহান ১১ রানে আউটন হন। অপরাজিত নাসুমের ব্যাট থেকে আসে ৯ বলে ১৯ রান।

বাংলাদেশ দলের বড় স্কোর করতে না পারার পিছনে বড় নিরামক ছিল ডট বল। ১২০ বলের ইনিংসে টাইগার ব্যাটসম্যানরা ডট দিয়েছেন ৪৬টি।

ওডি/জেআই

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড