• শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

অপুর দুর্দান্ত বোলিংয়ের পর বিজয়ের ব্যাটে সিলেটের জয়

  ক্রীড়া প্রতিবেদক

২৫ জানুয়ারি ২০২২, ১৫:৪৯
মিনিস্টার ঢাকার বিপক্ষে ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে ম্যাচসেরা সিলেটের নাজমুল ইসলাম অপু (ছবি: সংগৃহীত)

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) সপ্তম ম্যাচে মিনিস্টার ঢাকার বিপক্ষে ৭ উইকেটের জয় তুলে নিয়েছে সিলেট সানরাইজার্স। আসরে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে এসে প্রথম জয়ের দেখা পেল সিলেট। অন্যদিকে চার ম্যাচ খেলে এ নিয়ে তৃতীয়বার হারের মুখ দেখল ঢাকা।

আজ মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) মিরপুরে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে ঢাকা। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ৩৩, শুভাগত হোমের ২১ ও রুবেল হোসেনের ১২ রানের ইনিংসে টেনেটুনে ১০০ রান তোলে দলটি। জবাবে এনামুল হকের ৪৫ ও কলিন ইনগ্রামের অপরাজিত ২১ রানে ভর করে ১৮ বল বাকি থাকতেই জয় তুলে নেয় সিলেট।

জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দলীয় ২১ রানে লেন্ডল সিমন্সকে হারিয়ে ফেলে সিলেট। বিদায় নেওয়ার আগে ২১ বলে ১৬ করেন ক্যারিবীয় তারকা। ৪০২ দিন পর খেলতে নেমে নিজের দ্বিতীয় ওভারে সিমন্সকে শিকার করেন মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা। সিমন্সের বিদায়ে দলের হাল ধরেন এনামুল হক বিজয়।

ভালোর ইঙ্গিত দিয়ে ১৫ বলে ১৭ রান করে মোহাম্মদ মিঠুন আউট হলে উইকেটে আসেন কলিন ইনগ্রাম। আগের ম্যাচে ওপেনারের ভূমিকায় থাকলেও এদিন নামেন চারে। ৫৯ রানে দ্বিতীয় উইকেটের পতনের পর আর কোনো উইকেট না হারিয়েই জেতার সুযোগ ছিল সিলেটের সামনে।

তবে দলের যখন ২ রান প্রয়োজন, তখন ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে তামিম ইকবালের হাতে ধরা পড়েন বিজয়। তার আগে ৪টি চার ও ১টি ছক্কায় ৪৫ বলে ৪৫ রান করেন এই ডানহাতি ব্যাটারে। সিমন্সের পর বিজয়কেও নিজরে শিকার বানান মাশরাফি।

শেষপর্যন্ত ১৭ ওভারে ৭ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় সিলেট। ব্যাট হাতে ১৯ বলে ২১ রান করে অপরাজিত থাকেন একটি করে চার-ছক্কা হাঁকানো ইনগ্রাম। ১ রানে অপরাজিত থাকেন রবি বোপারা। ঢাকার পক্ষে ৪ ওভার বল করে ২১ রানের খরচায় মাশরাফির শিকার দুই উইকেট। অন্তত ৩ ওভার বল করা বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে মিতব্যয়ী ছিলেন তিনি। বাকি উইকেটটি নেন হাসান মুরাদ।

এর আগে টসে হেরে শুরুতে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপর্যয়ে পড়ে ঢাকা। আম্পায়ারের বিতর্কিত সিদ্ধান্ত ছাপিয়ে দলকে সাফল্য এনে দেন সিলেটের বোলাররা।

ঢাকার ইনিংসে মোহাম্মদ শাহজাদ (৭ বলে ৫) ও তামিম ইকবাল (৫ বলে ৩) সাজঘরে ফেরার পর ধীরগতিতে খেলতে থাকেন নাঈম শেখ ও জহুরুল ইসলাম। জহরুলের (১০ বলে ৪) বিদায়ের পর উইকেটে এসে রান তুলতে থাকেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

কিন্তু কচ্ছপ গতিতে এগোচ্ছিলেন অপর প্রান্তের নাঈম। সাজঘরে ফেরার আগে ৩০ বলের মোকাবেলায় মাত্র ১৫ রান করেন তিনি। একই ওভারে নাজমুল ইসলাম অপুর বলে ঢাকা হারায় আন্দ্রে রাসেলকেও। রানের খাতাই খুলতে পারেননি এই ক্যারিবীয়। যদিও আম্পায়ারের দেওয়া দুটি সিদ্ধান্তই ছিল বিতর্কিত। ৩টি চারে সাজানো রিয়াদের ২৬ বলে ৩৩ রানের ইনিংসও থামলে খেই হারিয়ে ফেলে ঢাকা।

শেষদিকে শুভাগত হোমের ১৬ বলে ২১ ও রুবেল হোসেনের ৬ বলে ১২ রানের ইনিংসে ৩ অঙ্কের রানের দেখা পায় দলটি। ইনিংসের ৮ বল বাকি থাকতেই অলআউট হয়ে যায় তারা।

এদিন ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ফিগারের দেখা পান নাজমুল ইসলাম অপু। মাত্র ১৮ রানের খরচায় ৪ উইকেট শিকার করেন এই বাঁহাতি স্পিনার। এছাড়া তাসকিন আহমেদ ২২ রানের খরচায় তিনটি ও ১৭ রানের খরচায় দুটি উইকেট শিকার করেন সোহাগ গাজী। সংক্ষিপ্ত স্কোর টস : সিলেট সানরাইজার্স

মিনিস্টার ঢাকা : ১০০/১০ (১৮.৪ ওভার) রিয়াদ ৩৩, শুভাগত ২১ অপু ১৮/৪, তাসকিন ২২/৩, গাজী ১৭/২

সিলেট সানরাইজার্স : ১০১/৩ (১৭ ওভার) বিজয় ৪৫, ইনগ্রাম ২১*, মিঠুন ১৭, সিমন্স ১৬ মাশরাফি ২১/২, মুরাদ ৩১/১

ফল : সিলেট সানরাইজার্স ৭ উইকেটে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ নাজমুল ইসলাম অপু।

ওডি/কেএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড