• মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২২, ১১ মাঘ ১৪২৮  |   ১৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সেঞ্চুরিতে রাঙানো খাওয়াজার প্রত্যাবর্তন, ব্রডের পাঁচ উইকেট

  ক্রীড়া ডেস্ক

০৬ জানুয়ারি ২০২২, ১৫:০০
উসমান খাওয়াজা (ছবি: সংগৃহীত)

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সিডনি টেস্টে খেলছেন না ট্র্যাভিস হেড। তার জায়গায় সুযোগ মেলে উসমান খাওয়াজার। ২০১৯ সালের আগস্টে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত অ্যাশেজের পর প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নেমে চমৎকার সেঞ্চুরি হাঁকালেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। প্রায় আড়াই বছর পর অস্ট্রেলিয়ার জার্সিতে প্রত্যাবর্তন রাঙালেন ১৩৭ রানের ঝকঝকে ইনিংস দিয়ে।

খাওয়াজার স্মরণীয় প্রত্যাবর্তনের দিন রাঙান ইংল্যান্ডের পেসার স্টুয়ার্ট ব্রডও। চলতি অ্যাশেজ সিরিজে সিডনিতে নিজের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে নেমে স্বাগতিকদের ৫ উইকেট নেন তিনি। এ নিয়ে ১৯তম বার ইনিংসে পাঁচ উইকেট পেলেন ডানহাতি পেসার।

অবশ্য ব্রডের দুর্দান্ত বোলিং ছাপিয়ে দ্বিতীয় দিনের নায়ক খাওয়াজাই। সিডনিতে প্রথম দিন ছিল বৃষ্টির উৎপাত। খেলা হয়নি পঞ্চাশ ওভারও। ১১৭ রানের মধ্যে ডেভিড ওয়ার্নার, মার্কাস হ্যারিস ও মার্নাস লাবুশেনকে হারিয়ে দিন শেষ করে অজিরা। ৩ উইকেটে ১২৬ রানে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু হয়। স্মিথ ৬ ও ৪ রান নিয়ে ব্যাটিং শুরু করেন খাওয়াজা।

উইকেটে অপরাজিত থেকে মধ্যাহ্ন বিরতিতে যান দুজন। দ্বিতীয় সেশনের শুরুতেই ব্রেক-থ্রু আনেন ব্রড। ১৪১ বলে ৫ চারে ৬৭ রান করে পেছনে জস বাটলারের গ্লাভসে ধরা পড়েন স্মিথ। এরপর বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি ক্যামেরন গ্রিন (৫) ও অ্যালেক্স ক্যারি (১৩)।

প্যাট কামিন্সের সঙ্গে সপ্তম উইকেট জুটিতে ২০১ বলে সিডনিতে দ্বিতীয় ও ক্যারিয়ারের নবম সেঞ্চুরি করেন খাওয়াজা। চা বিরতির পর মাঠে নেমে আগ্রাসী হয়ে ওঠেন কামিন্স। কিন্তু ব্রডের শিকার হন তিনি। অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ককে বাটলারের ক্যাচ বানান ব্রড। আম্পায়ার আউট না দিলেও রিভিউ নিয়ে সফল হয় ইংল্যান্ড। ব্যক্তিগত ২৪ রানে বিদায় নেন কামিন্স। তাকে ফিরিয়ে বব উইলিসকে (১২৩) পেছনে ফেলে ইংল্যান্ডের হয়ে দ্বিতীয় সর্বাধিক অ্যাশেজ উইকেট শিকারে কীর্তি গড়েন ব্রড। সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ৩ হাজার টেস্ট রানের মাইলফলক ছুঁয়ে ফেলেন খাওয়াজা। মিচেল স্টার্কের সঙ্গে পঞ্চাশ ছাড়ানো জুটিতে অস্ট্রেলিয়ার স্কোরবোর্ডে চারশ তোলার পথে ছিলেন ৩৫ বছর বয়সী ব্যাটসম্যান। কিন্তু পারেননি, ১৩তম চার মারার পরের বলে ব্রডের পঞ্চম শিকার হন খাওয়াজা। ২৬০ বলে সাজানো ছিল তার ঝলমলে ইনিংস। অস্ট্রেলিয়ায় দ্বিতীয়বার ও অ্যাশেজে অষ্টম ফাইফার নেন ব্রড। রিচার্ড হ্যাডলির পর সবচেয়ে বয়স্ক সফরকারী পেসার হিসেবে অস্ট্রেলিয়ায় ইনিংসে পাঁচ উইকেট নিলেন তিনি।

নাথান লিয়নের সঙ্গে অপরাজিত ১৮ রানের জুটিতে দলীয় স্কোর চারশ পার করেন স্টার্ক। তারপরই ৮ উইকেটে ৪১৬ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে অস্ট্রেলিয়া। ৩৪ রানে অপরাজিত ছিলেন স্টার্ক, ২ চার ও ১ ছয়ে সাজানো ছিল লিয়নের ৭ বলে ১৬ রানের ইনিংস। ব্রড ২৯ ওভারে ৫ মেডেনসহ ১০১ রান দিয়ে নেন ৫ উইকেট। একটি করে পান জেমস অ্যান্ডারসন, মার্ক উড ও জো রুট।

বড় ইনিংসের জবাব দিতে নেমে চতুর্থ ওভারেই উইকেট হারাতে বসেছিল ইংল্যান্ড। শূন্য রানে ডেভিড ওয়ার্নারকে ক্যাচ দেন জ্যাক ক্রলি । কিন্তু ক্যামেরায় ধরা পড়ে স্টার্কের বলটি ছিল ফ্রন্ট ফুটের নো। শেষমেষ ২ রানে অপরাজিত থেকে দিন শেষ করেছেন বেঁচে যাওয়া ক্রলি। সমান রান করে টিকে ছিলেন হাসিব হামিদ। দ্বিতীয় দিন শেষে বিনা উইকেটে তাদের সংগ্রহ ১৩ রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ইংল্যান্ড: প্রথম ইনিংস ১৩/০

অস্ট্রেলিয়া: প্রথম ইনিংস ৪১৬/৮ ডিক্লে.

দ্বিতীয় দিন শেষে: ইংল্যান্ড ৪০৩ রানে পিছিয়ে।

ওডি/কেএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড