• শনিবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২২, ১৫ মাঘ ১৪২৮  |   ১৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

দলের পেসারদের ‘কমন সেন্স’ নিয়ে সন্দিহান সুজন

  ক্রীড়া প্রতিবেদক

০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২১:০৮
খালেদ মাহমুদ সুজন (ছবি: সংগৃহীত)

ভালো মানের পেস বোলারদের অভাবে দীর্ঘদিনের আক্ষেপ বাংলাদেশের। এই আক্ষেপ এক প্রকার হতাশায় রূপ নেয় টেস্ট সংস্করণে। ক্রিকেটের লঙ্গার ভার্সনে ধারাবাহিকতার অভাব স্পষ্ট। ঘণ্টায় ১৪০ কিঃমিঃ গতিতে বল করলেও সুবিধা আদায় করতে পারেন না দেশীয় পেসাররা। মন্থর উইকেট হোক বা পেস বান্ধব, কোনো জায়গাতেই ম্যাচ জেতার মতো পারফরম্যান্স করতে পারছেন না পেসাররা। এই দৈন্যতা ফুটে উঠেছে পাকিস্তানের বিপক্ষে চলমান সিরিজেও। পেসারদের এমন অবস্থার জন্য তাদের ‘কমন সেন্স’ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন খালেদ মাহমুদ সুজন।

আজ মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) মিরপুরে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন বাংলাদেশের টিম ডিরেক্টর সুজন। তিনি বলেন, ‘এটা (টেস্টে ভালো মানের পেসার) যেদিন আল্লাহ দেয়। এ ছাড়া আর কী বলবো। প্রচুর অনুশীলন করে, ৬ ফিট লম্বা, ১৪০ গতিতে বল করে কিন্তু কোচ তো কাউকে গুলিয়ে খাইয়ে দিতে পারবে না। এটা কমন সেন্সের বিষয়। কোচরা অনুশীলন করায় কিন্তু খাইতে তো হবে আপনার। চিবাইতেতো হবে আপনার। আপনি যদি চিবাতে না পারেন! মাশরাফি কীভাবে উইকেট পেয়েছে? তাপস বৈশ্য কীভাবে উইকেট পেতো?’

বাংলাদেশের উইকেট পেসারদের জন্য নিষ্প্রাণ হলেও একই কন্ডিশনে বাজিমাত করে চলেছেন পাকিস্তানি পেসাররা। তিন ম্যাচ টি-টুয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশে হারানো ২১ উইকেটের ১৩টিই পেসারদের দখলে। দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে সফরকারী পেসাররা নিয়েছেন ১৬ উইকেট। অথচ উল্টো চিত্র বাংলাদেশি পেসারদের বেলায়। চট্টগ্রাম টেস্টে মাত্র দুই উইকেট পেয়েছেন পেসাররা। ঢাকা টেস্টে আবহাওয়া অনুকূলে পেয়েও সুবিধা করতে পারেননি এবাদত হোসেন ও খালেদ আহমেদরা।

পেসারসের উপর হতাশা প্রকাশ করতে গিয়ে অতীতে ফিরে গেলেন খালেদ মাহমুদ, ‘তখন তো আমরা আরও পারতাম না, আরও জানতাম না। এখন তো আমাদের বোলিং কোচ আলাদা, এই কোচ, ঐ কোচ আলাদা। এটা বোলিং কোচের কাছে প্রশ্ন করলে ভালো হতো। বোলারদের ভুলটা হলো কমন সেন্স। এই উইকেটে কীভাবে বল করতে হবে, উইকেটে বল ধরতেছিলো কিন্তু এরপরও আমরা পিছে পিছে বল করেছি। এটাতো বোলিং কোচ উত্তর দিবে। বোলিং কোচের পরিকল্পনা যদি প্রয়োগ করতে না পারে তাহলে কোচকে জিজ্ঞেস করবে। ওদের শক্তির জায়গা কোনটা দুর্বল জায়গা কোনটা তারা জানবে।’

তিনি বলেন, ‘আমি একটা ম্যাচের কথা বলি জাস্টিন ল্যাঙ্গার ও ম্যাথু হেইডেন ব্যাট করছিলেন অস্ট্রেলিয়াতে, আমি তখন অধিনায়ক। ডেভ হোয়াটমোর পরিকল্পনা দিয়েছে আমাদের যেন ওদের শক্তির জায়গায় বল না করি, এ জন্য আমরা বাইরে বাইরে বল করে গেছি। আমার কথা হলো আমি জোরে বল করি কিন্তু স্কিল একটা ভিন্ন জিনিস।’

ওডি/কেএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড