• মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২১, ১২ মাঘ ১৪২৭  |   ২৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পাকিস্তানের টিম ম্যানেজম্যান্ট নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য আমিরের

  ক্রীড়া ডেস্ক

০১ ডিসেম্বর ২০২০, ২০:৩৫
আমির
মোহাম্মদ আমির (ছবি : সংগৃহীত)

পাকিস্তানি বোলার মোহাম্মদ আমিরের ক্যারিয়ার ঘটনাবহুল। প্রতিভাবান এ পেসার শুরুটা করেছিলেন দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দিয়ে। এরপর ফিক্সিং কাণ্ডে পাঁচ বছরের জন্য থেমে যায় তার ক্যারিয়ার। নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষে আবারও ফেরেন ক্রিকেটে। ফেরার পর মাত্র ২৭ বছর বয়সে সাদা পোশাক আর লাল বলের ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়ে আবারও জন্ম দেন আলোচনার। একসময় মাঠ কাঁপানো সেই আমির অবশ্য এখন সীমিত ওভারের ম্যাচেও জাতীয় দলের জার্সিতে নিয়মিত নন।

ক্যারিয়ার ঝুঁকিতে থাকা আমির এবার মুখ খুলে বসলেন। পাকিস্তানের টিম ম্যানেজম্যান্ট নিয়ে নানা অসন্তোষ গণমাধ্যমের সামনে নিয়ে আসলেন বাঁহাতি এই পেসার। কথা বললেন, টেস্ট থেকে অবসর প্রসঙ্গেও।

আধুনিক ক্রিকেটে শুধু শারীরিক ধকল নয়, মানসিক চাপের কারণেও অনেকে বিশ্রাম নিয়ে থাকেন। কিন্তু এই সংস্কৃতিটা পাকিস্তানের ক্রিকেটে নেই বলে টিম ম্যানেজম্যান্টের ওপর ক্ষোভ ঝাড়লেন আমির।

‘নিউজ ওয়ান’ চ্যানেলের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে আমির বলেন, ‘সমস্যা হলো, পাকিস্তান ক্রিকেটে যদি কোনো খেলোয়াড় সাহস করে বলে ফেলেন যে তিনি বিশ্রাম নিতে চান, তবে তাকে বাদ পড়তে হয়। ফলে খেলোয়াড়রা টিম ম্যানেজম্যান্টের কাছে এসব নিয়ে কথা বলতে ভয় পায়।’

পাকিস্তানি পেসার যোগ করেন, ‘পাকিস্তান ক্রিকেটে একটা প্রবণতা তৈরি হয়ে গেছে, যেখানে খেলোয়াড়রা দল থেকে বাদ পড়ার ভয়ে থাকে। আমার মনে হয় খেলোয়াড় এবং টিম ম্যানেজম্যান্টের মধ্যে এই কমিউনিকেশন গ্যাপটা দূর করা উচিত। যখন একজন খেলোয়াড় বিরতি নিতে চায়, তার এটা বলতে পারা উচিত। ম্যানেজম্যান্টেরও উচিত তাকে বাদ না দিয়ে ব্যাপারটা বোঝা।’

চলতি নিউজিল্যান্ড সফরে দলে জায়গা হয়নি আমিরের। গত বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরে যাওয়া এই পেসার মনে করছেন, তার টেস্ট অবসর নিয়েও যে ধরনের বিতর্ক তৈরি হয়েছে, সেটি হওয়ার কথা ছিল না।

আমির বলেন, ‘মিকি আর্থার আমাদের হেড কোচ ছিলেন। যে কেউই তাকে এটা বলতে পারে। আমি তাকে ২০১৭ সালে বলি যে, ওয়ার্কলোডটা নিতে পারছি না। আমার টেস্ট ছেড়ে দিতে হবে। এই সিদ্ধান্তটা যখন আমি নেই, ছয় মাস কেউই কিছু বলেনি। কিন্তু বিতর্ক শুরু হলো কখন, যখন আমরা অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে হেরে গেলাম।’

কিছুটা ক্ষোভ নিয়ে পাকিস্তানি পেসার বলেন, ‘মানুষের একটা স্বাভাবিক ব্যাপার তো বোঝা উচিত, পাঁচ বছর নিষিদ্ধ থেকে ক্রিকেটে ফেরার পর আমার অবস্থাটা কেমন। আমার চোখ, হাঁটু, কাঁধে কি ধরনের সমস্যা হয়েছে, টিম ফিজিওকে জিজ্ঞাসা করে দেখুন। কিন্তু কেউ আমার কথা শুনেনি। বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচের কথা মনে আছে। পেইন কিলার নিয়ে খেলায় আমার খিঁচুনি হয়েছিল।’

ফিক্সিং করে ভুল করেছেন, তার জন্য সাজাও পেয়েছেন। এত কিছুর পরও এটা নিয়ে এখনও কথা শুনতে হয়, বিষয়টা কষ্ট দেয় আমিরকে। তার কথা, ‘হ্যাঁ, আমি ২০১০ সালে যা করেছি সেটি ভুল ছিল। আমি কিন্তু তার শাস্তি পেয়েছি। পাঁচটি বছর ক্রিকেটের বাইরে ছিলাম, এমনকি ক্লাব ম্যাচও খেলতে পারিনি। কিন্তু মানুষ এখনও আমাকে ওই অতীত নিয়েই কথা শোনায়, বর্তমান নিয়ে তারা বলে না।’

আমির যোগ করেন, ‘শুধু আল্লাহই পারেন এর ফায়সালা করতে। আমি শুধু জানি, যদি নীতি ঠিক থাকে সব ঠিক। কিন্তু পাকিস্তান ক্রিকেটে ইতিবাচকতার থেকে নেতিবাচকতা বেশি।’

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড