• শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

লকডাউনের মাঝে শ্রীলঙ্কায় আটকা পড়েছেন পাকিস্তানী খেলোয়াড়রা

  ক্রীড়া ডেস্ক

২৮ এপ্রিল ২০২০, ১২:১৬
করোনাভাইরাস
ছবি : সংগৃহীত

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে দেয়া লকডাউনে শ্রীলঙ্কায় আটকা পড়েছেন পাকিস্তান ১২ জন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটার এবং ৩ জন টেনিস খেলোয়াড়। যেহেতু সবধরনের আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ রয়েছে শ্রীলঙ্কায়, তাই এই ১৫ খেলোয়াড় ফিরতে পারেননি নিজেদের দেশে।

মূলত দেশের বাইরে গিয়ে খেলাধুলার মাধ্যমে কিছু আয় করার লক্ষ্যেই গত ডিসেম্বরে শ্রীলঙ্কায় গিয়েছিলেন এসব খেলোয়াড়েরা। কিন্তু সারা বিশ্বজুড়ে চলমান লকডাউনের কারণে এখন বেশ কঠিন সময়ের মুখেই পড়েছেন তারা।

আটকা পড়া ১২ ক্রিকেটারের মধ্যে একজন ২৯ বছর বয়সী ডানহাতি মিডিয়াম পেসার আজহার আত্তারি। পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটের পরিচিত মুখ তিনি। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ৭৬ ম্যাচে শিকার করেছেন ২৪৫ উইকেট। বর্তমানে আরও ১১ ক্রিকেটারকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষায় রয়েছে আত্তারি।

যুক্তরাজ্যে পাকাপোক্তভাবে ক্রিকেট খেলার ব্যবস্থা করতেই মূলত প্রাথমিকভাবে শ্রীলঙ্কার ঘরোয়া ক্রিকেটে নাম লিখিয়েছিলেন আত্তারি ও বাকি ১১ জন। সাম্প্রতিক সময়ে প্রথম শ্রেণির দলের সংখ্যা কমিয়ে ছয়ে নামিয়ে এনেছে পাকিস্তান।

ফলে অনেক খেলোয়াড়ই ঘরোয়া ক্রিকেটের সর্বোচ্চ পর্যায়ে খেলার সুযোগ হারিয়েছে। তাই যুক্তরাজ্যে খেলোয়াড়ি ভিসা পাওয়ার জন্য আগে শ্রীলঙ্কায় বিদেশি খেলোয়াড় হিসেবে খেলার অভিজ্ঞতা অর্জন করতে গিয়েছিল তারা। কিন্তু আটকা পড়ে গেছে করোনার কারণে।

আটকা পড়া ক্রিকেটারদের মধ্যে আরেকজন হলেন ২৪ বছর বয়সী পেসার আবিদ হাসান। তিনি জানিয়েছেন, স্থানীয় ক্লাবের পক্ষ থেকে থাকার ব্যবস্থা করে দেয়া হয়েছে। তবে বাকি সব খরচ বহন করতে হচ্ছে নিজেদের।

লকডাউনের কারণে কোন আয় না থাকা এবং নিজেদের সব খরচ নিজেরাই চালাতে গিয়ে হাতও খালি হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন আবিদ। তাই তিনি হাই কমিশনের কাছে অনুরোধ করছেন একটি চার্টার্ড ফ্লাইটের মাধ্যমে আটকা পড়া খেলোয়াড়দের দেশে ফিরিয়ে নিতে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড