• রোববার, ০৫ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ

অপ্রতিরোধ্য লিভারপুলের বাধা আজ অ্যাতলেটিকো

  ক্রীড়া ডেস্ক

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১:১১
উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ
চ্যাম্পিয়নস লিগে আজ মুখোমুখি লিভারপুল-অ্যাতলেটিকো (ছবি : সংগৃহীত)

গেল মৌসুমে টটেনহ্যামকে হারিয়ে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা জিতেছে লিভারপুল। এবার ইউরোপসেরা লড়াইয়ে রাউন্ড অব সিক্সটিনের ম্যাচে স্প্যানিশ ক্লাব অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে খেলবে তারা। ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানোতে মঙ্গলবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) প্রথম লেগের ম্যাচ হবে। বাংলাদেশ সময় রাত ২টায় শুরু হবে জমজমাট এই লড়াই; ম্যাচটি সরাসরি দেখা যাবে সনি টেন-২ তে। 

আট মাস আগে অ্যাতলেটিকোর এই মাঠে টটেনহ্যামকে হারিয়ে ইউরোপের শ্রেষ্ঠত্বের শিরোপা উঁচিয়ে ধরেছিল অলরেডরা। এরপর থেকেই যেন আরও অদম্য তারা। বড়সড় নাটক না হলে, ৩০ বছরের লিগ শিরোপাখরাও ঘুচছে লিভারপুলের। আপাতত লিভারপুলকে ইউরোপের সবচেয়ে শক্তিশালী দল বললে দ্বিমত করার লোক খুঁজে পাওয়া যাবে না। চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা ধরে রাখতে পারলে ক্লপের দল এবার অমরত্বের পথে যাত্রা শুরু করবে।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ টেবিলের এক নম্বরে দুর্দমনীয়ভাবে জায়গা করে নেওয়া দলটির পক্ষে বাজি ধরার লোক অনেক পাওয়া যাবে। কিন্তু দলটির কোচ ক্লপ এই দলে নেই। ইউরোপিয়ান শ্রেষ্ঠত্বের মঞ্চে লিভারপুলকে ফেবারিট মনে করছেন না ক্লাবের জার্মান কোচ! 

অ্যাতলেটিকোর মাঠে নামার আগে একাধিক দলকে ফেভারিট বলছেন ক্লপ। ২০১৫ সালের ফাইনাল খেলা ইতালির ক্লাব জুভেন্তাসকে এগিয়ে রাখছেন লিভারপুল কোচ। এছাড়া তার চোখে এবার ফেভারিট জার্মান ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখ, ফরাসি ক্লাব পিএসজি ও স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনা। 

২০১৬ সালে সেভিয়ার কাছে ক্লপের দল ইউরোপা লিগের ফাইনাল ও তার দুই বছর পর রিয়াল মাদ্রিদের কাছে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে পরাজিত হয়েছে। গত বছর স্প্যানিশ রাজধানীতে ইউরোপ সেরার ট্রফিটা উঁচিয়ে ধরে লিভারপুল। ক্লপ বলেন, ‘আবারও চ্যাম্পিয়নস লিগ জয় করতে পারব কি না, সে সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। কিন্তু আমাদের অবশ্যই সে ব্যপারে প্রস্তুত থাকতে হবে। তবে গত বছর আমরা যা করেছি তাতে প্রমাণ হয়েছে বিশ্বের সেরা দলকে পরাজিত করার ক্ষমতা আমাদের আছে।’

অবশ্য যে মাঠে আজ লিভারপুলের খেলা এই ওয়ান্ডায় মাঠভরা দর্শক থাকবে সালাহ-মানেদের প্রতিপক্ষ। ডাগআউটে ক্লপের প্রতিপক্ষ আর্জেন্টাইন ডিয়েগো সিমিওনে। ওয়ান্ডার ভরা গ্যালারি সঙ্গী করে যিনি তাতিয়ে তুলতে পারেন পুরো দলকে। ‘এল চলো’ তখন হয়ে যান ওয়ান্ডার ঈশ্বর। আর ওই অ্যাতলেটিকো তখন হয়ে যায় ফুটবলের বিস্ময়।

তবে সেই আজ যাই হোক; লিভারপুলকে হারানো যে সহজ হবে না সেটি খুব ভালো করেই জানেন সিমিওনে। ফলে যা করার নিজেদের মাঠেই করে ফেলতে হবে। আসল কাজ অ্যানফিল্ডের (ফিরতে লেগের ম্যাচ) জন্য ফেলে রাখলে হবে না! ওয়ান্ডায় একটা ভরসাও আছে সিমিওনের। চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ১৩ অ্যাওয়ে ম্যাচে মাত্র ৭টিতে জিতেছে লিভারপুল। আর ঘরের মাঠে ১২ বার ইংলিশ প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলে অ্যাতলেটিকো হেরেছে মাত্র একবার। ঘরের মাঠের সুবিধা কাজে লাগাতে না পারলে অ্যানফিল্ডে অ্যাতলেটিকোর সম্ভাবনাটা কমই।  

দুদলের দেখা হয়েছে একবার; তবে সেটি অডি কাপে। ২০১৭ সালের ৩ আগস্টের সেই দেখায় জয়টা কিন্তু অ্যাতলেটিকোর; নির্ধারিত সময়ের খেলা ১-১ গোলের ড্র হয় পরবর্তীকালে ম্যাচের সমাপ্তি ঘটেছে পেনাল্টি শুটআউটে; যেখানে ৫-৪ এ জয় পেয়েছে অ্যাতলেটিকো। 

আরও পড়ুন : মাত্র ১৫ দিন, হন্যে হয়ে স্ট্রাইকার খুঁজছে বার্সা

অতীত আর বর্তমান তো এক নয়। চোট জর্জরিত সিমিওনের অ্যাতলেটিকো রীতিমতো চলতি মৌসুমে ধুঁকছে, শেষ ৭ ম্যাচে পেয়েছে মোটে এক জয়। লিভারপুলের কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার পথে অ্যাতলেটিকো কতটা বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে সেটাই এখন প্রশ্ন। 

ওডি/এএপি 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড