• শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬  |   ১৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

দেশকে যুব বিশ্বকাপ জেতানো ১২ অধিনায়ক

  ক্রীড়া ডেস্ক

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৯:৩১
যুব বিশ্বকাপ
যুব বিশ্বকাপ ট্রফি হাতে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানের অধিনায়ক আকবর আলী, কোহলি ও সরফরাজ আহমেদ (ছবি : সংগৃহীত)

আকবর আলীর নেতৃত্বে প্রথমবারের মতো অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পেয়েছে বাংলাদেশ। এটি টুর্নামেন্টের ১২তম আসর। আকবর আলী ছাড়াও এর আগে আরও ৬ দেশের ১১ অধিনায়ক এ বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পেয়েছেন।

১৯৮৮ সালে শুরু হয় অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের যাত্রা। সে আসরের চ্যাম্পিয়ন হয় অস্ট্রেলিয়া। টুর্নামেন্টে অজিদের নেতৃত্ব দেন জিওফ পার্কার। অজিদের প্রথম বিশ্বকাপের স্বাদ দেওয়া এ অধিনায়ক অবশ্য জাতীয় দলের জার্সিতে খেলার সুযোগ পাননি কখনো। তবে একই টুর্নামেন্টের রানার্সআপ পাকিস্তানের অধিনায়ক ইনজামাম উল হক তো পরে হয়েছেন দেশটির ইতিহাসের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার।

যুবাদের দ্বিতীয় বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয় প্রথমটির ১০ বছর পর। এ আসরের শিরোপা জিতে নেয় ইংল্যান্ড। ইংলিশ যুবাদের নেতৃত্ব দেন ওয়াইজ শাহ। এ ক্রিকেটার পরবর্তীতে ইংল্যান্ডের জার্সিতে ৭১টি ওয়ানডে, ১৭টি টি-টুয়েন্টি ও ৬টি টেস্ট খেলেছেন।

২০০০ সালে যুব বিশ্বকাপের তৃতীয় আসরে প্রথমবার শিরোপা জয়ের স্বাদ পায় ভারত। শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত সে বিশ্বকাপে ভারতকে নেতৃত্ব দেন মোহাম্মদ কাইফ। পরবর্তীতে ভারতের হয়ে তিনি ১৩টি টেস্ট ও ১২৫টি ওয়ানডে খেলেছেন।

২০০২ সালে চতুর্থ বিশ্বকাপে দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা জয়ের স্বাদ পায় অস্ট্রেলিয়া। আর অজিদের এ আসরে নেতৃত্ব দেন ক্যামেরন হোয়াইট। এ ক্রিকেটার অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ৪টি টেস্ট, ৯১টি ওয়ানডে ও ৪৭টি টি-টুয়েন্টি খেলেছেন।

২০০৪ সালে খালিদ লতিফের নেতৃত্বে প্রথমবার যুব বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পায় পাকিস্তান। তবে যুব দলের এ অধিনায়ক পরবর্তীতে জাতীয় দলের হয়ে সফল হতে পারেননি। পাকিস্তানের জার্সিতে তিনি মাত্র ৫টি ওয়ানডে ও ১৩টি টি-টুয়েন্টি খেলার সুযোগ পেয়েছেন।

২০০৬ সালে টানা দ্বিতীয়বারের মতো অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জিতে নেয় পাকিস্তান। এ আসরে দলটিকে নেতৃত্ব দেন সরফরাজ আহমেদ। পরবর্তীতে তিনি পাকিস্তানের জাতীয় দলকেও নেতৃত্ব দেন। তার নেতৃত্বে পাকিস্তান সর্বশেষ চ্যাম্পিয়ন ট্রফি জিতে নিয়েছে। পাকিস্তানের সদ্য সাবেক এ অধিনায়ক এখন পর্যন্ত খেলেছেন ৪৯ টেস্ট, ১১৬ ওয়ানডে ও ৫৮ টি-টুয়েন্টি। 

মালয়েশিয়াতে অনুষ্ঠিত ২০০৮ সালের আসরে চ্যাম্পিয়ন হয় ভারত। চ্যাম্পিয়ন ভারতকে নেতৃত্ব দেন বিরাট কোহলি। বর্তমান সময়ের সেরা ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজেকে ইতোমধ্যেই প্রতিষ্ঠিত করেছেন তিনি। যুব বিশ্বকাপ জেতানো এ অধিনায়ক ভারতের জাতীয় দলের বর্তমান অধিনায়কও।

২০১০ সালে মিশেল মার্শের নেতৃত্বে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জেতে অস্ট্রেলিয়া। এটি তাদের তৃতীয় শিরোপা। শন মার্শের ছোট ভাই মিশেল মার্শ অস্ট্রেলিয়ার জার্সিতে এখন পর্যন্ত খেলেছেন ৩২ টেস্ট, ৫৩ ওয়ানডে ও ১১ টি-টুয়েন্টি।

২০১২ সালে আবারও শিরোপা জয়ের স্বাদ পায় ভারত। এ বিশ্বকাপে ভারতকে নেতৃত্ব দেন উন্মুক্ত চাঁদ। ভারতের জার্সিতে এখনো খেলার সুযোগ পাননি তিনি।

এখন পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকার সিনিয়ররা বিশ্বকাপ না জিতলেও যুব বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পেয়েছে জুনিয়ররা। ২০১৪ সালে মারকারামের নেতৃত্বে বিশ্বকাপ জেতে তারা। ইতোমধ্যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন মারকারাম। দক্ষিণ আফ্রিকার জার্সিতে ২০ টেস্ট, ২৬ ওয়ানডে ও ২ টি-টুয়েন্টি খেলেছেন তিনি।

২০১৬ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের আসর বসে বাংলাদেশে। টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দলকে নেতৃত্ব দেন শিমরান হেটমায়ার। এ ক্রিকেটার বর্তমানে মারমুখী ব্যাটসম্যান হিসেবে উইন্ডিজ জাতীয় দলে নিজের অবস্থান পোক্ত করেছেন। তিনি এখন পর্যন্ত ১৬টি টেস্ট, ৪৫টি ওয়ানডে ও ২৩টি টি-টুয়েন্টি খেলেছেন। 

২০১৮ সালে চ্যাম্পিয়ন হয় ভারত। এ আসরে ভারতের অধিনায়ক ছিলেন পৃথ্বী শ। তিনি ভারতের জার্সিতে এখন পর্যন্ত ৩টি টেস্ট ও ২টি ওয়ানডে খেলেছেন। 

ওডি/এমএমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড