• বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন

সন্তানের জন্য সারা বছর রোজা রাখেন এই ‘মা’

  শাহরিয়ার রহমান রকি, ঝিনাইদহ ১৩ মে ২০১৯, ২১:৪২

সন্তানের জন্য রোজা
এই মা ৪৪ বছর ধরে সন্তানের জন্য রোজা রাখছেন (ছবি- দৈনিক অধিকার)

‘মা’ কথাটি খুব ছোট, অথচ ওই শব্দই পৃথিবীর সবচেয়ে মধুরতম শব্দ। মায়ের অকৃত্রিম ভালোবাসা ও স্নেহের অন্য কোনো সম্পর্কের তুলনা হয় না। সন্তানের জন্য মমতাময়ী এক মা ৪৪ বছর রোজা পালন করে, ভালোবাসার এক অনন্য নজির সৃষ্টি করেছেন। এই মায়ের নাম সুখিরন নেছা। তিনি আমৃত্যু সন্তানের জন্য রোজা পালন করবেন এটা তার প্রতিজ্ঞা। তবে বয়সের ভারে দিন দিন অসুস্থ হয়ে পড়ছেন এই মা। তারপরও রোজা পালন বন্ধ নেই তার।

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার মধুহাটী ইউনিয়নের বাজারগোপালপুর গ্রামের প্রয়াত আবুল খায়েরের স্ত্রী সুখিরন নেছা। সন্তানের জন্য বছরের বারো মাসই রোজা রাখেন তিনি।

জানা যায়, ওই মা সন্তানের জন্য ১৯৭৫ সাল থেকে ১২ মাস রোজা পালন করে যাচ্ছেন। কারণ তার বড় ছেলে শহিদুল ইসলাম ১১ বছর বয়সে হারিয়ে যান। দীর্ঘদিন সন্তানকে খুঁজে না পাওয়ায় চিন্তায় ব্যাকুল মা সুখিরন নেছা প্রায় পাগলের মতো হয়ে যান। পরে তিনি মনস্থির করেন ছেলে ফিরে এলে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য বারো মাস রোজা রাখবেন। হারানোর দেড় মাস পর ফিরে পান ছেলেকে।তারপর থেকেই রোজা রাখা শুরু করেন মমতাময়ী এই মা।

সুখিরন নেছা জানান, সারা বছর রোজা রাখতে কোন কষ্টই হয় না। মহান আল্লাহর অশেষ রহমতে আমি আমার সন্তানকে ফিরে পেয়েছি, এটাই আমার বড় পাওয়া।

হারিয়ে যাওয়ার পর ফিরে পাওয়া সেই বড় ছেলে শহিদুল ইসলাম জানান, আমার জন্য মা কষ্ট করে রোজা রাখেন। আমি রোজা রাখতে নিষেধ করলেও তিনি শোনেন না। অসুখ-বিসুখ হলেও তিনি রোজা ভাঙেন না। আমি বাড়িতে ফিরে আসার পর থেকেই মা সারা জীবন রোজা রাখেন।

স্থানীয়রা জানান, অনেক মা দেখেছি কিন্তু এমন মা দেখিনি। যিনি সন্তানের কথা চিন্তা করে সারা জীবন রোজা রাখেন। অভাব অনটনে জীবনযাপন করলেও কখনো রোজা রাখা বন্ধ করেনি। যত কষ্টই হোক না কেন তিনি রোজা রাখেন। শুধু সন্তানকে ফিরে পেয়েছে তাই প্রতিজ্ঞা রক্ষার্থে তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত রোজা রেখে যাবেন। এ এক অনন্য দৃষ্টান্ত।

ওডি/এসএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড