• রবিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন

অর্থের অভাবে অপূর্ণ ‘সেতুর স্বপ্ন’

  আফসার খাঁন বিপুল, কালিয়াকৈর

০৯ মে ২০১৯, ২১:১৪
সেতু
গ্রামবাসীর অর্থায়নে এ সেতুর নির্মাণ মাঝপথেই থমকে গেছে (ছবি- দৈনিক অধিকার)

বংশাই নদী নদীর বুকে এই একটি সেতু নির্মাণ সম্পূর্ণ হলে লাঘব হবে কয়েক গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ। তবে অর্থের অভাবে অপূর্ণ থেকে যাচ্ছে স্থানীয়দের সেতুর স্বপ্ন। গ্রামবাসীর অর্থায়নে এ সেতুর নির্মাণ মাঝপথেই থমকে গেছে।   

সরেজমিনে দেখা যায়, গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার সূত্রাপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ হিজলতলী গ্রামকে পাশের ইউনিয়ন ও উপজেলা সদর থেকে পৃথক করেছে বংশাই নদী। নদীর এক পারে নেই কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ফলে ৫ কিলোমিটার রাস্তা ঘুরে চলাচল করছে ৩ শতাধিক শিক্ষার্থীসহ আশপাশের গ্রামের মানুষ। নয়তো নদীর বিভিন্ন স্থানে নির্মিত বাঁশের সাঁকো দিয়ে পার হতে হয় স্থানীয়দের। এতে প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা।

সেতু নির্মাণ কমিটির সভাপতি গৌড়াঙ্গ চক্রবর্তী ও সাধারণ সম্পাদক কনক সরকার বলেন, দক্ষিণ হিজলতলীসহ আশপাশের কয়েকটি গ্রাম খুব অবহেলিত। এসব গ্রামকে উপজেলা সদর থেকে পৃথক করে রেখেছে বংশাই নদী। খুব কষ্টে চলাচল করতে হচ্ছে স্থানীয়দের। দক্ষিণ হিজলতী এলাকায় সেতুটির নির্মাণ শেষ হলে এখানকার মানুষের চলাচল সহজ হবে। সেতুর কাজ শেষ করতে সংশ্লিষ্টমহ সকল পেশা-শ্রেণির মানুষের সহযোগিতা প্রয়োজন।

উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা (বিআরডিবি) মো. আব্দুস সাত্তার জানান, ওই এলাকার যাতায়াত ব্যবস্থা নদী থাকার কারণে বিঘ্নিত হচ্ছে। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে রোগী নিয়ে চলাচল বেশি কষ্টকর। সেটা বিবেচনা করে গ্রাম উন্নয়ন কমিটি ও গ্রামবাসীর সঙ্গে বসে একটি কাঠের সাঁকোর চিন্তা করা হয়। এজন্য বিআরডিবি অংশীদারিত্ব প্রকল্পের মাধ্যমে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ ও গ্রামবাসীর সহযোগিতায় ১ লাখ টাকার প্রকল্পটি হাতে নেওয়া হয়। তবে বর্তমানে যে সেতুটি করা হচ্ছে এ টাকায় তার কাজ সম্পূর্ণ করা সম্ভব নয়। সেজন্য গ্রামবাসী সাধ্যমতো চেষ্টা করে তাদের অর্থায়নে সেতুটি নির্মিত হচ্ছে। এটি নির্মাণ হলে তাদের কষ্ট লাঘব হবে।

ওডি/এসএ 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড