• শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯, ৯ চৈত্র ১৪২৫  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

জন্মান্ধ হয়েও করেননি ভিক্ষা, জীবন ঝুঁকিতে করছেন ব্যবসা

  ইমরান ভুঁইয়া আপন ১৪ মার্চ ২০১৯, ১০:০১

অন্ধ ফেরিওয়ালা মোঃ আব্দুল মান্নান
অন্ধ ফেরিওয়ালা মোঃ আব্দুল মান্নান

একজন অন্ধ ফেরিওয়ালা মোঃ আব্দুল মান্নান। জন্ম থেকেই অন্ধ তিনি। পৃথিবীটা দেখতে কেমন, তা তার জানা নেই। তবুও থেমে থাকেনি তার জীবন। দরিদ্র এই ব্যক্তিটি জীবনের তাগিদে স্বল্প মূল্যের বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ফেরি করে বেড়ান। একজন জন্মান্ধ হয়েও বেছে নেন নি ভিক্ষাবৃত্তি। তিনি জানান, ছোট বেলায় শিক্ষকদের কাছ থেকে জেনেছি, আমাদের নবী করীম (সা.) ভিক্ষা করা পছন্দ করতেন না। তাই ভিক্ষাবৃত্তি বেছে না নিয়ে বেছে নিয়েছি ব্যবসা।

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি তার স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে ঢাকার কামরাঙ্গীর চর থাকেন। দুই সন্তানকেই পড়ালেখা করাচ্ছেন। ছেলে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে এবং মেয়ে ১ম শ্রেণিতে পড়াশোনা করছে। তিনি চান তার সন্তানেরা পড়াশোনা করে মানুষের মতো মানুষ হোক।

তিনি একজন অন্ধ হয়েও নিজ সুবিধার্থে কখনো ছেলে-মেয়েকে সাথে নিয়ে ফেরি করেন না। কারণ এতে তাদের পড়াশোনায় ব্যাঘাত ঘটবে। এমনকি স্ত্রীকেও কোথাও কাজ করতে দেন না। যাতে সন্তানদের সে দেখাশোনা ও পড়াশোনা করাতে পারে।

অন্ধ হয়েও তিনি আল্লাহ্’র উপর অসন্তুষ্ট নন। সকল কাজে তিনি আল্লাহ্’র উপর আস্থা রাখেন। ফেরি করে খুব বেশি একটা আয় করতে পারেন না। প্রতিদিন ২৫০-৩০০ টাকার মত উপার্জন করতে পারেন তিনি। আর তা দিয়েই সংসার চালাতে হয় তার। এই সামান্য রোজগারে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ছাড়াও সন্তানদের লেখাপড়ার খরচ চালাতে হিমশিম খেতে হয় তাকে। এত কষ্টে জীবনযাপন করেও কারও কাছে হাত পাততে রাজি নন তিনি।

প্রতিদিন জীবন ঝুঁকি নিয়ে একাই বাসা থেকে বের হয়ে যান ফেরি করতে। গুলিস্তান গোলাপ শাহের মাজারের আশেপাশেই ফেরি করে বেড়ান তিনি। বেশ কয়েকটি দুর্ঘটনার কবলেও পড়েছিলেন। আর সেখান থেকে বেঁচে যাওয়ার অভিজ্ঞতাও বর্ননা করেন। 

স্ত্রী ও সন্তানদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তিনি চান না আর এভাবে জীবন ঝুঁকি নিয়ে রাস্তায় রাস্তায় ফেরি করে বেড়াতে। তার ইচ্ছা একটি ছোট স্থায়ী দোকান দিয়ে বাসার কাছেই ব্যবসা করার। কিন্তু পুঁজির অভাবে সে ইচ্ছাটাও এখন অপূর্ণ। আর তাই তিনি সরকার ও সমাজের বিত্তবান, দানশীল ব্যক্তিদের সহযোগিতা কামনা করে বলেন, আমি চাই না পড়াশোনা বন্ধ করে আমার সন্তানদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে যাক। যদি আপনাদের সহযোগিতা পাই তাহলে আমি একটা ছোট দোকান দিয়ে ব্যবসা চালিয়ে যেতে চাই।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড