উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

পীরগাছায় আলোচনার শীর্ষে ঢাবির সাবেক ছাত্র নেতা মাসুদ

প্রকাশ : ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৩:১৫

  আবু সালেহ শামীম

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর এবার উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে জোর গুঞ্জন, আলোচনা ও সমালোচনা চলছে। রংপুরের পীরগাছা উপজেলাতেও বইছে নির্বাচনি হাওয়া।

নির্বাচন কমিশনের আগাম আভাস পেয়ে নিজেদের প্রার্থিতা জানান দিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মেতে উঠেছে সম্ভাব্য প্রার্থীরা। জাতীয় পর্যায় সহ সবধরনের রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় রংপুর জেলার পীরগাছা উপজেলা কেন্দ্রের দিকে সবারই নজর থাকে।

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পীরগাছায় চেয়ারম্যান পদের লড়াইয়ে শক্ত অবস্থানে রয়েছেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মনোয়ারুল ইসলাম মাসুদ। এরই মধ্যে তিনি দলের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নির্বাচন কেন্দ্রিক মত বিনিময় শুরু করেছেন।

সাবেক এই ছাত্রলীগ নেতা সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত পীরগাছা উপজেলার সকল ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম, বাজার, পাড়া-মহল্লায় গণসংযোগ করছেন। তার এই ব্যাপক প্রচারণা এলাকার জনগণের মধ্যে সাড়া জাগিয়েছে।

বিশেষত তরুণ প্রজন্মের মধ্যে ক্লিন ইমেজের নেতা হিসেবে তিনি পরিচিতি। ইতোমধ্যে তিনি সর্বস্তরের মানুষের মাঝে গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেছেন এবং আস্থাভাজন ব্যক্তি হিসেবে ঠাই পেয়ে গেছেন। জনপ্রিয়তার দিক থেকেও তিনি সবার উপরে।

ছোট বেলা থেকেই তিনি মুজিবের আদর্শের প্রতি অবিচল আস্থাশীল ছিলেন। মুজিবের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে অংশগ্রহণ করেন। দেশ ও এই সমাজের জন্য ভালো কিছু করার মানসিকতায় তার রাজনীতির পথ চলা। 

দলীয় পদবী থাকা অবস্থায় তার বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কোনও অভিযোগ আজও পাওয়া যায়নি। তিনি একই সঙ্গে সহজ সরল কঠিন হৃদয়ের ব্যক্তি। ইস্পাত এর চেয়েও কঠিন তার রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত। সমাজের সন্ত্রাসী দেশদ্রোহী রাজাকার ও অন্যায় কারীদের রুখে দাঁড়াতে তিনি কঠোর। 

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম পলাশ বলেন, '১/১১ এর পরীক্ষিত ছাত্রনেতা মাসুদ ভাই সারা বাংলাদেশের ছাত্রলীগের নেতা কর্মীদের কাছে পরিচিত ও পরীক্ষিত মুখ। যোগ্য জায়গায় যোগ্য ও ত্যাগীদের মূল্যায়ন সময়ের দাবি'। 

ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি সুমন সরকার বলেন, 'মাসুদ ভাই সৎ এবং নিষ্ঠাবান। তিনি জন নেত্রী শেখ হাসিনার অত্যন্ত আস্থাভাজন ব্যক্তি। তিনি দলের পিছনে নিঃস্বার্থভাবে কাজ করেছেন। তিনি লোক চক্ষুর আড়ালে ও অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। দেশ এবং জাতির উন্নয়নের স্বার্থে এরকম লোকের দরকার'। 

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ শাখার নেতা মারুফ ভূঁইয়া বলেন, 'আগামীর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে তরুণ নেতৃত্ব অগ্রণী ভূমিকা রাখবে বলে আমরা আশা করি। মাসুদ ভাই একজন পরীক্ষিত এবং সৎ ও ভাল মানুষ। তিনি চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হলে পীরগাছা উপজেলা অন্য সকল উপজেলার জন্য রোল মডেল হবে, আমরা তরুণ সমাজ সেটা বিশ্বাস করি'। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা মনোয়ারুল ইসলাম মাসুদ শিক্ষা জীবনের শুরু থেকেই ছাত্রলীগের সঙ্গে জড়িত। তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি এবং ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ আ. লীগের কৃষি ও সমবায় উপ-কমিটির সদস্য।

মনোয়ারুল ইসলাম মাসুদ বলেন, 'আমি শেখ মুজিবের আদর্শে বিশ্বাসী। আমি অন্যায়ের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে প্রস্তুত। পীরগাছা উপজেলাকে মাদকমুক্ত, সন্ত্রাসমুক্ত করতে এবং এই উপজেলার উন্নয়নে কাজ করে যেতে চাই।