• বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ২ বৈশাখ ১৪২৮  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সবজি সংরক্ষণে দোহাজারীতে হিমাগার নির্মাণের দাবি

  মো. কামরুল ইসলাম মোস্তফা, চন্দনাইশ (চট্টগ্রাম)

০২ এপ্রিল ২০২১, ১৪:১৮
সবজি নিয়ে বাজারে কৃষকরা
সবজি নিয়ে বাজারে কৃষকরা। (ছবি : দৈনিক অধিকার)

চট্টগ্রামের চন্দনাইশ ও সাতকানিয়া উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত খরস্রোতা শঙ্খ নদীর উভয় তীরের ১০ ইউনিয়নের প্রায় ১০ হাজার কৃষকের জীবন-জীবিকা বিভিন্ন জাতের সবজি চাষের উপর নির্ভরশীল। প্রতিদিন ভোরের কুয়াশায় ফসলের মাঠে গিয়ে দিনভর সবজি পরিচর্যায় শ্রম দিচ্ছেন চাষিরা।

দক্ষিণ চট্টগ্রামের সবজি ভাণ্ডার হিসেবে পরিচিত শঙ্খ চরের মাটি সবজি চাষের জন্য বেশ উর্বর এবং উপযোগী হওয়ায় এখানে সব ধরণের সবজি চাষ হয়। পুরো বছরেই এ অঞ্চলের কৃষকরা শঙ্খ চরে সবজি চাষ করে থাকেন। বিভিন্ন ধরণের সবজি চাষ করে বাজারে ভালো দাম পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন চাষিরা।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চন্দনাইশ উপজেলায় প্রতি মৌসুমে দুই হাজার পাঁচশ হেক্টর জমিতে হরেক রকম সবজির চাষাবাদ হয়। ভরা মৌসুমে পানির দামে বিক্রি হয় সবজি, আবার মৌসুম শেষ হলে ক্রেতাদের নাগালের বাহিরে চলে যায় সবজির দাম। সবজির ন্যায্য মূল্য প্রাপ্তি নিশ্চিতকল্পে সবজি সংরক্ষণের জন্য দোহাজারীতে একটি হিমাগার নির্মাণের দাবি কৃষকরা দীর্ঘদিন ধরে করে আসলেও তাদের সেই দাবি কর্তৃপক্ষ আমলে নিচ্ছেন না।

দোহাজারী কিল্লাপাড়া এলাকার সবজি চাষি আব্দুল আজিজ বলেন, ‘বেশি দামে সার ও কীটনাশক কিনেছি, সেচ দিতেও খরচ হয় অনেক টাকা, কৃষি শ্রমিকদের মজুরি, সব মিলিয়ে সবজি উৎপাদন করতে যে টাকা খরচ হয় তার তুলনায় তেমন লাভের মুখ দেখছিনা।’

একই ধরনের কথা বলেন অন্য কৃষকরাও। তারা বলেন, ‘ভরা মৌসুমে বাজারে সরবরাহ বেশি থাকায় পানির দামে সবজি বিক্রি করতে হয়।’ সবজি সংরক্ষণের জন্য দোহাজারীতে একটি হিমাগার নির্মাণের জোর দাবী জানান তারা।

চন্দনাইশ উপজেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক নবাব আলী বলেন,‘শঙ্খ চরে প্রতি বছর সবজির বাম্পার ফলন হয়। কিন্তু হিমাগার না থাকায় উৎপাদিত সবজি সংরক্ষণ করা যাচ্ছে না। হিমাগার না থাকায় সবজি নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি কম দামে বিক্রি করে দিতে হচ্ছে। এ কারণে চাষিরা ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না। শঙ্খ চরে উৎপাদিত সবজি সংরক্ষণের জন্য দোহাজারীতে হিমাগার নির্মাণ করা গেলে বাজারে সবজির দাম নিয়ন্ত্রণে থাকার পাশাপাশি কৃষকেরাও সবজির ন্যায্য দাম পাবে।’

সবজি সংরক্ষণের জন্য দোহাজারীতে একটি হিমাগারের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে উল্লেখ করে চন্দনাইশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা স্মৃতি রাণী সরকার দৈনিক অধিকারকে বলেন, ‘শঙ্খ চরে উৎপাদিত পচনশীল সবজি সংরক্ষণের জন্য সরকারিভাবে হিমাগার নির্মাণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে সুপারিশ করা হয়েছে।’

শঙ্খ চরে উৎপাদিত সবজি সংরক্ষণের জন্য দোহাজারীতে হিমাগার নির্মাণ বিষয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম জেলা বাজার কর্মকর্তা মো. সেলিম মিয়া দৈনিক অধিকারকে জানান, সবজি সংরক্ষণের জন্য চট্টগ্রামের চন্দনাইশ ও সীতাকুণ্ড উপজেলায় সরকারিভাবে হিমাগার নির্মাণ প্রকল্প প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জমা দেওয়া হয়েছে।

সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয়ের কৃষি বিপণন অধিদপ্তর থেকে চন্দনাইশের দোহাজারীতে সবজী সংরক্ষণে হিমাগার স্থাপনের লক্ষে ভূমি অধিগ্রহণের জন্য কৃষি বিপণন অধিদপ্তর বাস্তবায়নাধীন বিশেষায়িত হিমাগার স্থাপন, কৃষিপণ্য সংগ্রহনোত্তর ব্যবস্থাপনা ও বিপণন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের স্মারক নং-১২.০২.০০০০.০২২.০১.০৪৩.১৭-২৮ মুলে রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর চট্টগ্রাম নাজমুন নাহার স্বাক্ষরিত চিঠি চন্দনাইশ দোহাজারীতে ভূমি অধিগ্রহণের খাসজমির তথ্য চেয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) চন্দনাইশ বরাবর প্রেরণ করা হয়েছে।

ওডি/জেআই

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড