• রোববার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৭  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

গ্যাস-বিদ্যুৎ লাইন অপসারণ না করেই চলছে ফোর লেন নির্মাণ

  এস এম ইউসুফ আলী, ফেনী

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৯:৩৪
ফোরলেন নির্মাণ কাজ
গ্যাস-বিদ্যুৎ লাইন অপসারণ না করেই চলছে ফোরলেন নির্মাণ কাজ। (ছবি : দৈনিক অধিকার)

ফেনী-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের মহিপাল থেকে নোয়াখালীর সেবারহাট পর্যন্ত গ্যাস-বিদ্যুৎ লাইন অপসারণ না করেই চলছে ফোর লেন নির্মাণ কাজ। এ সড়কের দুইপাশে রয়েছে ৯ শতাধিক বৈদ্যুতিক খুঁটি আর গ্যাস সরবরাহ পাইপ।

সড়ক ও জনপদ বিভাগ থেকে বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ টাকা পরিশোধ করলেও খুঁটিগুলো অপসারণ না করেই বালু ভরাট করা হচ্ছে। চাহিদা মোতাবেক টাকা না পাওয়ায় অব্যাহত রয়েছে গ্যাস লাইনের ওপর রাস্তা নির্মাণ কাজও। ফলে সড়কের কাজ শেষ হলেও পরবর্তীতে খোঁড়াখুঁড়ির কারণে ভোগান্তির শিকার হবে পথচারীরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানা যায়, সড়ক বিভাগের আওতায় ৭৪৭ কোটি টাকা ব্যয়ে মহিপাল থেকে নোয়াখালীর চৌমুহনী পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটারে নির্মিত হচ্ছে ফোর লেন সড়ক। এর মধ্যে ফেনী অংশের ১৭ কিলোমিটারের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে।

২০১৯ সালের ৩০ ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ২৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত কাজের মেয়াদকাল নির্ধারণ করা হয়। এর জন্য বরাদ্ধ করা হয়েছে ৩০৮ কোটি টাকা। নির্মাণ কাজের দায়িত্ব পান ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং (এনডিই)।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ফেনী অংশে সড়কের দুই পাশে বিদ্যুতের ৯শ ১১টি খুঁটি রয়েছে। এ খুঁটি অপসারণের জন্য সাড়ে ৮ কোটি টাকা বরাদ্ধ দেওয়া হয়। বেশিরভাগ খুঁটিই অপসারণ না করে বালু দিয়ে ভরাট করা হচ্ছে। একইসাথে ফেনী থেকে নোয়াখালী পর্যন্ত রয়েছে গ্যাসের দুটি লাইন। এটিও অপসারণ না হওয়ায় কাজ করতে গিয়ে গ্যাস পাইপ উপড়ে ছোট-বড় লিকেজ হচ্ছে। আর বাখরাবাদ কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে মেরামত করছে।

বাখরাবাদ সূত্র জানায়, যেকোনো সময় অঘটন ঘটলে ফেনী সদরের পাঁচগাছিয়া, দাগনভূঞার জায়লস্কর মাতুভূঞা ও পৌর এলাকা, নোয়াখালীর বসুরহাট, সেনবাগ এলাকার গ্রাহকরা বড় ধরনের গ্যাসের বিপর্যয়ে পড়বে।

বাখরাবাদের ফেনী এরিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক মো. সাহাবুদ্দীন জানান, গ্যাস লাইন অপসারণের জন্য বাখরাবাদের প্রধান কার্যালয়ের গঠিত টিম থেকে ৪৪ কোটি টাকা চাহিদাপত্র দেওয়া হয়েছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এর সুরাহা না করেই নির্মাণ কাজ অব্যাহত রেখেছে। এতে ভবিষ্যতের জন্যও ঝুঁকি থেকে যাচ্ছে। ঠিকাদারের লোকজন কোনরকম সমন্বয় না করে ইচ্ছেমত কাজ করছেন।

সড়ক ও জনপদ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মাকুসুদল আলম জানান, ফোর লেন প্রকল্পের সড়কের পাশে প্রয়োজন অনুযায়ী ১৯২৩ হেক্টর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। এর জন্য জমির মালিকদের ৩ গুন বেশি পরিমাণ ৫৫ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে। বিদ্যুতের খুঁটিও পর্যায়ক্রমে সরানো হচ্ছে। তবে গ্যাস লাইনের বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং (এনডিই) এর প্রকল্প ব্যবস্থাপক মো. মনজুরুল ইসলাম খুঁটি না সরানোয় বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের উদাসীনতাকে দায়ী করে বলেন, তারা সময়মত খুঁটি সরিয়ে নিলে কাজ আরও দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাবে।

আরও পড়ুন : ঝুঁকিতে বেইলি ব্রিজ, স্থায়ী সেতু চায় এলাকাবাসী

মনজুরুল ইসলাম জানান, গ্যাসের লাইন সড়কের নিচে থাকায় লাইন চিহ্নিত করে দেওয়ার জন্য বাখরাবাদ গ্যাস কর্তৃপক্ষের নিকট বারবার সহায়তা চেয়েও সাড়া পাওয়া যায়নি। মাটির নিচের গ্যাসের লাইন চিহ্নিত করতে না পারায় কাজ করতে গিয়ে কিছু কিছু জায়গায় গ্যাসের লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

তার দাবী, আমরা শিডিউল অনুযায়ী গুণগত মান ঠিক রেখে কাজটি দ্রুততার সঙ্গে করার চেষ্টা করছি। এতে সড়ক ও জনপথ বিভাগ কর্মকর্তাগণ যথেষ্ট আন্তরিক। প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে মেয়াদের আগেই কাজটি সম্পন্ন হবে।

ফেনী জেলা সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান উদ্দিন আহমেদ জানান, ফোরলেন প্রকল্পের কাজ সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে শেষ করতে সড়ক বিভাগ ছাড়াও বিদ্যুৎ ও গ্যাসসহ অন্য প্রতিষ্ঠানসমূহের সহযোগিতা প্রয়োজন। ফেনী সড়ক বিভাগ থেকে উন্নয়ন সংশ্লিষ্ট সব দপ্তরের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে। ফোরলেন প্রকল্পের ঠিকাদারকে উন্নয়ন সংশ্লিষ্ট সব দপ্তরের সঙ্গে সমন্বয় করে সতর্কতার সঙ্গে কাজ করার নির্দেশনা দেওয়া আছে।

ওডি

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড